বাঁধ ভাঙনের আতঙ্কে নির্ঘুম রাত

ডিস্ট্রিক করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম
বেড়িবাঁধ ভাঙন-বার্তা২৪

বেড়িবাঁধ ভাঙন-বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

খুলনা: উপকূলীয় জেলা খুলনায় প্রতিনিয়তই ভাঙছে বেড়িবাঁধ। ভাঙনের আতঙ্কে উপকূলবাসীর নির্ঘুম রাত কাটছে। এমনি একটি নির্ঘুম রাত কাটলো কয়রার দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়নের মাটিয়াভাঙ্গা, গোলখালী, ঘড়িলাল, মোল্যাপাড়া ও আংটিহারা গ্রামবাসীর। স্বেচ্ছাশ্রমে সারারাত নদীর বাঁধ রক্ষায় মাটি কেটেছে তারা। কিন্তু সকাল হতেই শুরু হয়েছে নদী ভাঙন। যেকোন মুহূর্তে সুন্দরবন ঘেঁষা কপোতাক্ষ নদীর নোনাপানিতে তলিয়ে যেতে পারে বিস্তৃর্ণ এলাকা।

স্থানীয় ইউপি সদস্য জিএম বেলাল হোসেন জানান, সাতক্ষীরা পাউবো’র আওতাধীন ১৪/১নং পোল্ডারের নূর গাজীর বাড়ী সামনের ওয়াবদার রাস্তায় বুধবার (২৯ আগস্ট) দিবাগত সন্ধ্যা থেকে প্রবল ভাঙন শুরু হয়। মুহূর্তেই কপোতাক্ষ নদী ভয়ঙ্কর রূপে সব গ্রাস করতে শুরু করে সব। আমার এলাকার মসজিদের মাইকের ঘোষণা দিয়ে ও পার্শ্ববতী ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বর মোড়ল আছের আলী ও রবিউল শেখের সহায়তায় চার/পাঁচশ’ লোক সারারাত বাঁধরক্ষায় স্বেচ্ছায় কাজ করেছি। কিন্তু আজ (৩০ আগস্ট) সকাল থেকে আবার ভাঙতে শুরু করেছে। যেকোন মুহূর্তে তলিয়ে যাবে কয়েকটি গ্রাম।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/30/1535601170447.jpg
রাতভর বাঁধ রক্ষায় কাজ করছে গ্রামবাসী।

ফলে মানচিত্র থেকে মুছে যেতে পারে গোলখালী, মাটিয়াভাঙ্গা, ছোট আংটিহারা, ঘড়িলাল ও মোল্যাপাড়া এলাকা। পাউবো’র অফিসারদের বার বার জানালে তারা কার্যকর কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেন বলেও অভিযোগ তার।

অন্যদিকে, পার্শ্ববর্তী উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নের একাধিক পোল্ডারেও নদী ভাঙন শুরু হয়েছে। দাকোপের ৩১নং পোল্ডারের কামিনী বাসিয়া পুলিশ ক্যাম্পের পাশে ঢাকী নদীর ভয়াবহ ভাঙনের পর ৩২নং পোল্ডারের নলিয়ান ফরেস্ট অফিসের দক্ষিণ পাশে ওয়াপদা বেড়িবাঁধ শিবসা নদী গর্ভে বিলীন হচ্ছে।

কয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিমুল কুমার সাহা বলেন, মাটিয়াভাঙ্গার বেড়িবাঁধের বিষয়টি পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষসহ জেলা প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে। জরুরিভিত্তিতে ভাঙনরোধে কাজ করা হবে বলে তিনি জানান।

 

আপনার মতামত লিখুন :