আড়াইহাজারে ৩ গ্রামের সংঘর্ষে আহত ২০

সংঘর্ষ চলাকালীন দেড় শতাধিক ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়/ ছবি: বার্তা২৪.কম

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তিনটি গ্রামের বাসিন্দাদের মাঝে কয়েক দফা সংঘর্ষে নারীসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে।

শুক্রবার (১১ জানুয়ারি) সকালে উপজেলার খাগকান্দা ইউনিয়নের চম্পক নগর গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষ চলাকালীন তিনটি গ্রামের দেড় শতাধিক ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুইদিন আগে স্থানীয় স্কুলের ৯ম শ্রেণীর ছাত্র সিয়ামকে উপজেলার কাকাইল মোড়ার লোকজন মারধর করেন। এই নিয়ে শুক্রবার সকাল ৯টায় চম্পক নগরের মঞ্জুরের বাড়িতে সালিশ বসে।

সেখানে তর্ক-বিতর্কের এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন দা, টেঁটা, ছুরি, বল্লম নিয়ে একে অপরের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। সকাল ৯টায় শুরু হয়ে সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলে সকাল ১১টা পর্যন্ত।

সংঘর্ষে কাকাইল মোড়া ও বাহেরচর পক্ষে নেতৃত্ব দেন লোকমান মেম্বার এবং চম্পক নগরের পক্ষে নেতৃত্বে দেন মোসলেম মেম্বার। সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে আড়াইহাজারসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

মোসলেম মেম্বার জানান, সংঘর্ষ চলাকালীন কাকাইল মোড়া ও বাহের চর গ্রামের পাঁচ শতাধিক লোক লোকমান মেম্বার ও তোফাজ্জলের নেতৃত্বে চম্পক নগর গ্রামে এসে তাণ্ডব চালান। এতে দেড় শতাধিক ঘরবাড়ি ভাঙচুর করা হয়। চম্পক নগর বাজার থেকে দোকানের মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে। এতে চম্পক নগর গ্রামবাসীর অর্ধ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।’

আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আক্তার হোসেন জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মূল হোতা লোকমান মেম্বারকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

জেলা এর আরও খবর