Barta24

সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬

English

বাম্পার ফলনেও লোকসানে শিম চাষিরা

বাম্পার ফলনেও লোকসানে শিম চাষিরা
শিম ট্রাকে ভরে দেশের বিভিন্ন জায়গায় পাঠানো হচ্ছে ,ছবি: বার্তা২৪
কাজল সরকার
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
হবিগঞ্জ
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলায় এবার শিমের বাম্পার ফলন হলেও দাম কম হওয়ায় হতাশ কৃষকেরা। গত বছরের তুলনায় এবার শিমের দাম অনেক কম। এতে লাভ হওয়াতো দূরের কথা উৎপাদন খরচই উঠছে না কৃষকদের।

অন্যদিকে, উৎপাদন খরচ না উঠায় শ্রমিকের মজুরি দিতেও হিমশিম খেতে হচ্ছে চাষিদের। তবে এ অবস্থার জন্য কৃষকরা ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটকে দায়ী করছেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jan/15/1547548482463.JPG

জেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর জেলায় সাড়ে ৪ হাজার হেক্টর জমিতে শিমের আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে শুধুমাত্র বাহুবল উপজেলাতেই আবাদ হয়েছে ৩ হাজার হেক্টর জমি। ফলনও হয়েছে বাম্পার। এখানে উৎপাদিত শিমে কোন ধরণের ক্যামিকেল ব্যবহার না করায় সারাদেশে এর চাহিদাও ব্যাপক।

অন্যদিকে, আশ্বিন, কইটা, আদা সুন্দরি, গুতুম, বোয়াল গাধা জাতের শিমের চাহিদা রয়েছে দেশের বাহিরেও। ইউরোপ আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশে রফতানি হচ্ছে এখানে উৎপাদিত শিম। কিন্তু এ বছর শিমের দাম কম হওয়ায় বাম্পার ফলনেও হাসি ফুটেনি কৃষকের মুখে। লাভতো দূরের কথা উৎপাদন খরচ তুলতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে শিম চাষিদের।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jan/15/1547548496377.JPG

কৃষকদের দাবি, এক খের (৩২ শতক) জায়গায় শিম উৎপাদন করতে খরচ হয় ৪৫ হাজার টাকা। অন্যবছর যেখানে খেরপ্রতি ৯০ হাজার টাকার শিম বিক্রি করা হতো, এবছর সেখানে প্রতি কেজি ৮/১০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে উৎপাদন খরচ তোলা নিয়েও শঙ্কায় রয়েছেন তারা।

আশ্বিন, কইটা, আদা সুন্দরি, গুতুম, বোয়াল গাধাসহ অন্তত ৭/৮ জাতের শিম বিদেশে রফতানি হওয়ার পরও দাম বেশি না পাওয়া নিয়ে ক্ষুব্ধ চাষিরা। তাদের দাবি, ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কারণে ভালো দাম পাচ্ছেন না তারা (কৃষকরা)।

এ ব্যাপারে বাহুবল উপজেলার কৃষক আলী হোসেন বলেন- ‘অন্যবছর ১৫/২০ টাকা কেজি ধরে শিম বিক্রি করতাম। ফলে আমরা অনেক লাভবান ছিলাম। কিন্তু এ বছর শিম বিক্রি হচ্ছে মাত্র ৮/১০ টাকা কেজি দরে। ফলে আমাদের লাভ হওয়াতো দূরের কথা, উৎপাদন খরচই উঠবে না।’

একই উপজেলা পুটিজুরি গ্রামের কৃষক পিয়াল রায় বলেন- ‘শিম উৎপাদনের খরচ বেড়েছে। কিন্তু দাম বাড়াতো দূরের কথা ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কারণে ন্যায্য দামই পাচ্ছি না আমরা।’

তিনি বলেন- ‘ব্যবসায়ীরা প্রতি বছরই সিন্ডিকেট করে শিম চাষিদের বিপদে ফেলেন। এ বছর তারা ভয়ংকর এক সিন্ডিকেট তৈরি করেছেন। যার ফলে আমাদের মাথায় হাত পড়েছে।’

লেখাপড়ার পাশাপাশি শিম চাষ করেন কলেজছাত্র সায়েম আহমেদ। তিনি বলেন- ‘বিভিন্ন কারণে প্রতিনিয়ত আমাদের দেশে মাটির উর্বরতা নষ্ট হচ্ছে। যার ফলে শিমসহ সব ধরণের সবজি চাষ করতে অতিরিক্ত জমি পরিচর্যার প্রয়োজন হয়। এতে করে অতিরিক্ত খরচও করতে হয়। কিন্তু প্রতিনিয়ত খরচ বাড়লেও ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে শিমের দাম কমিয়ে দিয়েছেন। এতে আমরা অনেক বিপাকে পড়ে গেছি।’

তিনি বলেন- ‘ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করলেও আমাদের কিছুই করার নাই। তবে যদি সরকার আমাদের এলাকায় একটি হিমাগার তৈরি করে দিতেন তাহলে আমাদের এই দুর্দিন থাকতো না।’

আব্দুল হক মুহিত বলেন- ‘আমাদের বাহুবলে শীতকালীন বিভিন্ন সবজির চাষ হয়। কিন্তু আমরা ভালো দাম পাই না। তাই আমাদের এলাকায় একটি হিমাগার প্রতিষ্ঠা দাবি করছি সরকারের কাছে।

তবে দাম বেশি না পাওয়ার বিশেষ ট্যাকনিক ব্যবহার করতে বললেন হবিগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোহাম্মদ আলী।

তিনি বলেন- ‘আগাম অথবা শেষ সময়ে শিম চাষ করলে ভালো দাম পাওয়া যাবে। তাই কৃষকদের আগাম ও শেষ সময়ে শিম চাষ করতে হবে।'

আপনার মতামত লিখুন :

বিয়ের আসর থেকে বরের পলায়ন

বিয়ের আসর থেকে বরের পলায়ন
ছবি: সংগৃহীত

রান্না বান্না প্রায় শেষ। বরসহ কয়েকজন বরযাত্রী উপস্থিত হয়েছেন। অতি গোপনে হলেও বিয়ে বাড়ি বলে কথা। তাই লোকজনের আনাগোনা। এর মধ্যেই ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান শুরু। টের পেয়ে দৌড়ে পালিয়ে গেলেন বর।

ঘটনাটি মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সীমান্তবর্তী খাসমহল গ্রামের। রোববার (২৫ আগস্ট) রাত ১০টার দিকে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা ফেলে পালিয়ে যায় বরপক্ষ।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গাংনী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুখময় সরকার বলেন, খাসমহল গ্রামের কালু মণ্ডলের মেয়ে স্থানীয় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী। তার বিয়ে ঠিক হয় বাঁশবাড়িয়া গ্রামের এক যুবকের সঙ্গে। রাতে কালু মণ্ডলের বাড়িতে গোপনে বিয়ের আয়োজন করা হয়। খবর পেয়ে সেখানে আমরা অভিযানে গেলে বরপক্ষ পালিয়ে যায়। মেয়ের বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবেন না বলে মেয়ের বাবা-মা লিখিত মুচলেকা দিয়েছেন। এরপরও যদি তারা বিয়ে দেওয়ার অপচেষ্টা করেন, তাহলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কুষ্টিয়ায় বিদেশি পিস্তল ও মাদকসহ আটক ৩

কুষ্টিয়ায় বিদেশি পিস্তল ও মাদকসহ আটক ৩
পিস্তল ও মাদকসহ আটক তিনজন (মাঝে), ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

কুষ্টিয়ায় অভিযান চালিয়ে বিদেশি পিস্তল, গুলি, ফেনসিডিল ও গাঁজাসহ তিনজনকে আটক করেছে জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) সদস্যরা।

রোববার (২৫ আগস্ট) বিকেলে কুষ্টিয়া পূর্ব মিলপাড়ার শেখ আয়নাল আলী হেলাল নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

এ সময় একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগজিন, চার রাউন্ড গুলি, ৭৭ বোতল ফেনসিডিল, পাঁচশ’ গ্রাম গাঁজাসহ উদ্ধার করা হয়।

আটক ব্যক্তিরা হলেন-কুষ্টিয়া পূর্বপাড়ার শেখ আয়নাল আলী হেলাল (৫৬), কুমারখালী উপজেলার চড়াইকোল গ্রামের আব্দুল মোতালেবের ছেলে খাইরুল ইসলাম (৪৩) ও কুমারখালী উপজেলার জয়নাবাদ মণ্ডলপাড়ার আব্দুল মজিদের ছেলে দেলোয়ার হোসেন (৪৪)।

কুষ্টিয়া জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মমিনুল ইসলাম জানান, আটক তিনজনের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হচ্ছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র