Barta24

শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

English

নরসিংদীতে জুট মিলের গুদামে আগুন

নরসিংদীতে জুট মিলের গুদামে আগুন
নরসিংদীতে জুট মিলের গুদামে আগুন
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

নরসিংদীর শিবপুর উপজেলার কারারচর মদিনা জুট মিলের গুদামে আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে।

রোববার (৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় এ আগুন লাগার ঘটনা ঘটে বলে ফায়ার সার্ভিসের সূত্রে জানা গেছে।

ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের ডিউটি অফিসার কামরুল হাসান বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘নরসিংদীর শিবপুরে মদিনা জুট মিলে আগুন লাগার খবর পেয়েছি। ঘটনাস্থলে আমাদের ৬টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। প্রাথমিকভাবে আগুন লাগার কারণ জানা যায়নি।’

আপনার মতামত লিখুন :

নেত্রকোনায় বাঁশ কাটতে গিয়ে বিদ্যুস্পৃষ্টে কৃষকের মৃত্যু

নেত্রকোনায় বাঁশ কাটতে গিয়ে বিদ্যুস্পৃষ্টে কৃষকের মৃত্যু
বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে কৃষকের মৃত্যু, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বাড়ির পাশে জঙ্গলে বাঁশ কাটতে গিয়ে নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় বিদ্যুতের অবৈধ তারে (সাইড লাইন) জড়িয়ে হালান মিয়া (৬০) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) দুপুরে কেন্দুয়া পৌর শহরের বাদে আঠারবাড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত হালান মিয়া বাদে আঠারবাড়ি গ্রামের মৃত নেকবর আলী মুন্সীর ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের বরাত দিয়ে জানা গেছে, কৃষক হালান মিয়া শুক্রবার দুপুরে বাড়ির পাশে জঙ্গলে বাঁশঝাড়ে বাঁশ কাটতে যান। এ সময় তিনি জঙ্গলের ভেতর দিয়ে অবৈধভাবে নেওয়া বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান।

এ বিষয়ে কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামানের সঙ্গে কথা হলে তিনি এসব তথ্য বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে নিশ্চিত করেছেন।

হবিগঞ্জে দু'পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ আহত ৩০

হবিগঞ্জে দু'পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ আহত ৩০
আহতদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে, ছবি: সংগৃহীত

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার শৈলজুরায় রাস্তা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। গুরুতর আহত অবস্থায় অন্তত ১৫ জনকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) দুপুরের দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শৈলজুরা ইউনিয়নের গায়েবপুর গ্রামের দিদাল আলী ছেলে কামাল মিয়ার সঙ্গে একই গ্রাম ইউসুফ আলীর ছেলে লাল মিয়া বাড়ির রাস্তা কাটা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে সকালে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এতে নারীসহ অন্তত ৩০ জন আহত হন।

পরে স্থানীয় লোকজন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এসেছে।

আহতরা হলেন- রুবেল মিয়া (৩২), সরুফা বেগম (৫০), রুহেল মিয়া (১৩), রহিমা বেগম (৪০), কালাবানু (৬০), বাহার মিয়া (৩৬), দুলাল মিয়া (৪০), নাজু আক্তার (২০), আরজু মিয়া (৩৫), জামান মিয়া (৫০)। তাদেরকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হবিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) জিয়াউর রহমান জানান- খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র