Barta24

মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬

English

‘পাখিও এখন ডিজিটাল হয়ে গেছে’

‘পাখিও এখন ডিজিটাল হয়ে গেছে’
পাখি থেকে রক্ষা পেতে বরই গাছের চূড়ায় কাকতাড়ুয়া / ছবি: বার্তা২৪
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
লক্ষ্মীপুর
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

কাকতাড়ুয়া ফসলি ক্ষেতের রক্ষক। এটি গ্রাম্য সংস্কৃতিতে বেশ জনপ্রিয়। সাধারণত পাখির হাত থেকে জমির ফসল রক্ষা করতে কাকতাড়ুয়া ব্যবহার করে কৃষকরা। কিন্তু এবার এর ব্যবহার দেখা গেছে মফস্বল শহরের বরই গাছের চূড়ায়।

লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সমসেরাবাদ এলাকায় নিলুফা কটেজে বরই গাছের চূড়ায় এটি দেখা যায়। একটি লাঠিতে সাদা গেঞ্জি পরিহিত কাকতাড়ুয়াটি লাগানো হয়েছে পাখির হাত থেকে ফলগুলো রক্ষার জন্য।

জানা গেছে, পরিবারের চাহিদা পূরণ করার জন্য ওই বাসার সামনে খালি জায়গায় বিভিন্ন ফলের চারা রোপণ করা হয়েছে। ফল ধরলেই পাখি খেতে এসে সব নষ্ট করে দেয়। এতে ফল আর সংগ্রহ করা যায় না। পরিবারের চাহিদা আর মেটানো সম্ভব হয় না।

জানতে চাইলে পরিবারের সদস্য রিংকু জিয়া বলেন, ‘গাছে বরই ধরার পর থেকেই পাখির উৎপাত বেড়ে গেছে। পাকা বরইয়ের সঙ্গে সঙ্গে কাঁচাগুলোও নষ্ট করে ফেলে।’

ওই পরিবারের মেজো ছেলে মো. আমিন বলেন, ‘পাখিও এখন ডিজিটাল হয়ে গেছে। কাকতাড়ুয়া দিয়েও লাভ হয়নি। প্রতিদিনই পাখি এসে ফলগুলো নষ্ট করে ফেলছে।’

আপনার মতামত লিখুন :

বাজারে জাটকার ছড়াছড়ি, দামও চড়া

বাজারে জাটকার ছড়াছড়ি, দামও চড়া
বরগুনায় ইলিশের বাজার, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বরগুনায় বাজারগুলোতে জাটকার ছড়াছড়ি থাকলেও দেখা মিলছে না বড় ইলিশের। আর মাছ ধরার মৌসুম হলেও এসব জাটকা বিক্রি হচ্ছে বেশ চড়া দামে। ক্রেতাদের অভিযোগ, বরফ দেওয়া মাছও তাজা বলে বিক্রি করা হচ্ছে। অনেকটা বাধ্য হয়ে বেশি দাম দিয়েই জাটকা কিনতে হচ্ছে। আর মাছ ব্যবসায়ীদের দাবি, ঈদের পর হওয়ায় মাছের দাম একটু বাড়তি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566245039647.jpg

 

সোমবার (১৯ আগস্ট) রাত ৯টার দিকে বরগুনার কয়েকটি মাছের বাজারে ঘুরে দেখা গেছে, ১০ ইঞ্চির ছোট জাটকায় ভরে আছে বাজার। ছোট মাছ (২০০ গ্রামের কম) প্রতি কেজি ৫০০ টাকা, মাঝারি (২৫০-৩০০ গ্রাম) ৮০০ টাকা এবং ৫০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ২০০ টাকায়। আর এক কেজির বেশি ওজনের মাছ বিক্রি হচ্ছে দুই-তিন হাজার টাকা।

মাছ ক্রেতা রানী বেগম জানান, এক কেজি জাটকা কিনেছেন ৫০০ টাকায়। এক কেজিতে হয়েছে ৬টি ইলিশ। যা সাধারণ মাছের দামের চেয়ে তিনগুণ।

মাছ ব্যবসায়ী আবুল হোসেন জানান, ঈদের পর মাছের দাম একটু বেশি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566245068318.jpg

 

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম আজাদ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'গত নভেম্বর-জুন পর্যন্ত জাটকা ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকায় এখন অনেক ইলিশ ধরা পড়ছে।'

বরগুনা জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাইন বিল্লাহ্ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'মৎস্য আইন অমান্য করে জাটকা ইলিশ ধরলে ও তা বিক্রি করলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর আগামীকাল থেকে মাছের বাজারগুলোতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে।' 

আরও পড়ুন, পটুয়াখালীতে জমে উঠেছে ইলিশের বাজার

বরিশালে ডেঙ্গুতে তরুণীর মৃত্যু

বরিশালে ডেঙ্গুতে তরুণীর মৃত্যু
মৃত সুমাইয়া আক্তার, ছবি: সংগৃহীত

বরিশালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে সুমাইয়া আক্তার (১৮) নামে এক তরুণীর মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার (১৯ আগস্ট) দুপুরে বরিশালে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

বিষয়টি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে নিশ্চিত করেছেন শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ বাকির হোসেন। মৃত সুমাইয়া পটুয়াখালীর দুমকি উপজেলার বাসিন্দা ফজলুল হকের মেয়ে।

তিনি জানান, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত সুমাইয়াকে মুমূর্ষ অবস্থায় শুক্রবার (১৬ আগস্ট) রাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে আসে স্বজনরা। ভর্তির পর থেকেই সুমাইয়াকে ডেঙ্গুর সব ধরণের উন্নত চিকিৎসা দেওয়া হয়। তারপরও সোমবার দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।

এদিকে পটুয়াখালীর সিভিল সার্জন ডা. শাহে মোজাহেদুল ইসলাম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে সুমাইয়া প্রথমে দুমকি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি হয়। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য শেবাচিমে শুক্রবার রাতে ভর্তি করা হয়। শেবাচিমের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার দুপুরে সে মারা যায়।'

এ নিয়ে শের-ই-বাংলা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৫ জন এবং গৌরনদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র