Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

চেম্বার থেকে কারাগারে ডাক্তার

চেম্বার থেকে কারাগারে ডাক্তার
নড়াইলের সংগৃহীত ছবি
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
নড়াইল
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ডাক্তার সেজে রীতিমতো রোগী দেখে ভালোই অর্থ আয় করতেন। অবশেষে ধরা খেয়ে কারাগারে গেলেন ভুয়া দাঁতের চিকিৎসক। মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করার দায়ে মো. শহিদুল ইসলাম ইয়াদ নামে একজন ভুয়া ডাক্তারকে ১৫ দিনের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

রোববার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নড়াইলের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আশিক রহমান এ আদেশ দেন। এ সময় অপর একটি চেম্বার সিলগালা করেন তিনি।

কারাদণ্ডপ্রাপ্ত মো. শহিদুল ইসলাম ইয়াদের বাড়ি লোহাগড়ায়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, নড়াইলের লোহাগড়া বাজারের মজুমদার কমপ্লেক্সে সিটি ডেন্টাল নামে চেম্বার খুলে ভুয়া ডাক্তার হিসেবে জনসাধারণের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিলেন মো. শহিদুল ইসলাম ইয়াদ। রোববার বিকেলে ওই চেম্বারে অভিযান চালান জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আশিক রহমান। এ সময় মেডিকেল ও ডেন্টাল আইনের অধীনে ভুয়া ডাক্তার পদবি ব্যবহার করায় শহিদুল ইসলাম ইয়াদকে ১৫ দিনের কারাদণ্ড দেন।

এছাড়া মজুমদার কমপ্লেক্সের অপর ভুয়া ডাক্তার লিয়াকত আলী পালিয়ে গেলেও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তার চেম্বার সিলগালা করে দেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত চলাকালে লোহাগড়া বাজারের অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায় বলে জানা গেছে।

আপনার মতামত লিখুন :

ডানাহীন সেই পাখি এইচএসসিতে পেলেন জিপিএ ৪.৩৩

ডানাহীন সেই পাখি এইচএসসিতে পেলেন জিপিএ ৪.৩৩
পুরনো ছবি

ফরিদপুরের নাঈমা সুলতানা পাখি। আর দশ জনের মতো নয়। একজন বিশেষ মানুষ। সব থাকতেও যেন কি যেন নেই। তাতে কি, পাখিকে দমিয়ে রাখা যায়নি। পাখি উড়ছে নিরবধি। এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পেয়েছেন জিপিএ ৪.৩৩।

ফরিদপুর সদর উপজেলার কানাইপুর ইউনিয়নের নাদের হোসেন ও শাহেদা বেগম দম্পতির প্রথম সন্তান নাঈমা সুলতানা পাখি। জন্ম থেকে নানা রোগ ছিল দেহে। চিকিৎসার পর চিকিৎসা চলেছেই। এক পর্যায়ে বাবা-মা জানতে পারলেন অন্যসব রোগ ভালো হলেও পাখি উচ্চতায় খুব একটা লম্বা হবেন না। পাখির ২০ বছর বয়স, উচ্চতা মাত্র ২৮ ইঞ্চি।

পাখি পারিবারিক ও সামাজিক বাধা পেরিয়ে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছেন। ফরিদপুর মুসলিম মিশন কলেজ থেকে ২০১৯ সালের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় ব্যবসা বাণিজ্য শাখা থেকে তিনি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন।

ভবিষ্যতের স্বপ্ন নিয়ে পাখি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘বড় হয়ে সরকারি চাকরি করতে চাই। বিসিএস ক্যাডার হতে চাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘৯ বছর আগে বাবা যখন অসুস্থ হয়ে ঘরে পড়ে গেলো তখন আমার পড়ালেখা অনিশ্চিত হয়ে যায়। কিন্তু মা সব সময় পাশে ছিল। আর আমিও চেষ্টা করেছি। কখনো ছটো মনে করিনি নিজেকে। মানুষ হিসেবে লেখাপড়া করে গেছি।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/20/1563563395502.jpg

পাখি বলেন, ‘বাবার যে জমি জমা আছে সেসব বর্গা দিয়ে যে টাকা পয়সা পাই, তা দিয়ে কোনো রকম সংসার চলছে। তার উপর তিন বোনের লেখাপড়া চালানো মায়ের জন্য কষ্টকর। তবে আমি সরকারি প্রতিবন্ধী ভাতা ও উপবৃত্তি পাই। তা দিয়ে আমার লেখাপড়ার অনেকটা সহায়ক হয়। সকল বাধা পেরিয়ে আমার স্বপ্ন নিয়ে লেখাপড়া করে আমি এগিয়ে চলছি। আমি সকলের দোয়া চাই।’

পাখির মা শাহেদা বেগম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘পাখির আরও দুটি বোন আছে মেজ বোন হাফছা এবার এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। ছোট বোন ছামিয়া পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ে। স্বামী দীর্ঘদিন শয্যাশায়ী।’

পাখির কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল্লাহ আল মামুন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম বলেন, পাখি হয়তো আর দশ জনের মতো নয়। ক্লাসে প্রাণচাঞ্চল্য থাকতো সে। দেখা হলেই সবাইকে সালাম দেয়। লেখাপড়াও ভালো।’

তিনি জানান, পাখির লেখাপড়ার সুবিধার্থে মুসলিম মিশনে ফ্রিতে থাকা ও খাওয়া এবং লেখাপড়ার ব্যবস্থা ছিল। কিন্তু এবার পাশ করে অনার্সে ভর্তি হলে পাখির আরও সাহায্যের প্রয়োজন হবে।

ফরিদপুরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

ফরিদপুরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার
ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত যুবক, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ফরিদপুরের সালথা উপজেলায় পঞ্চম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে (১২) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় শুক্রবার (১৯ জুলাই) রাতে অভিযুক্ত বহুলুল বিশ্বাসকে (২৮) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত বহুলুল উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের বাংরাইল গ্রামের আফছার বিশ্বাসের ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার বিকেল ৩টার দিকে ওই স্কুলছাত্রী টয়লেটে যায়। এ সময় ওৎ পেতে থাকা বহুলুল টয়লেটে ঢুকে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। ওই ছাত্রীর চিৎকারে তার মা এগিয়ে গেলে ধর্ষক বহুলুল দৌড়ে পালিয়ে যান।

এ ঘটনায় সন্ধ্যায় শিশুটির মা বাদী হয়ে সালথা থানায় মামলা দায়ের করেন। রাত সাড়ে ৮টার দিকে বহুলুল বিশ্বাসকে তার গ্রামে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করে পুলিশ।

সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দেলোয়ার হোসেন খান বলেন, ‘স্কুলছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে বহুলুল বিশ্বাসকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধর্ষণের শিকার শিশুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র