Barta24

মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬

English

সড়ক যেন ফসল রোপণের জমি!

সড়ক যেন ফসল রোপণের জমি!
বৃষ্টিতে জনদুর্ভোগের নগরী কুমিল্লা। ছবি: বার্তা২৪.কম
জাহিদ পাটোয়ারী
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
কুমিল্লা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ফাল্গুনের মাঝামাঝি সময়ে পশ্চিমা লঘুচাপে কুমিল্লায় দেখা দিয়েছে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি। গত মঙ্গলবার ভোর থেকে শুরু হয়ে বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল পর্যন্ত চলে থেমে থেমে মেঘের গর্জন আর বৃষ্টি। ফলে জনদুর্ভোগের নগরীতে পরিণত হয়েছে কুমিল্লা। মহানগরীর অন্যতম ব্যস্ততম সড়কগুলো এখন চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এ সব সড়কে ছোট বড় গর্ত আর কাদামাটিতে একাকার হয়ে গেছে। যা দেখলে মনে হবে ফসল রোপণের জন্য জমি তৈরি করা হয়েছে।

এতে করে নগরবাসীর দুর্ভোগের শেষ নেই। এসব সড়কে প্রতিনিয়তই ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। বর্ষার আগেই নগরজীবনের এমন চিত্র, আর বর্ষা এলে না জানি কী হবে এনিয়ে চলছে নগর জুড়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা।

এদিকে সিটি মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বলছেন, এক ঠিকাদার একাধিক সড়কের টেন্ডার পাওয়ায় সংস্কার কাজ শুরু করতে সময় লাগছে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, মহানগরীর কান্দিপাড়, ধর্মপুর, ইপিজেড রোড, শাসনগাছা, সুজানগর ও উত্তর চর্থা এলাকায় বিভিন্ন সড়কে ছোট-বড় গর্ত আর কাদামাটি একাকার হয়ে মানুষ চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। নগরবাসীর একটাই দাবি- এ সব সড়ক যেন বর্ষার আগেই সংস্কার করে মানুষের চলাচল উপযোগী করা হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/28/1551330802467.jpg

মো. দ্বীন ইসলাম জাবেদ নামে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের এক ছাত্র বার্তা২৪.কমকে জানান, নগরীর রাণীর বাজার থেকে ধর্মপুর পশ্চিম চৌমুহনী পর্যন্ত সড়কটির বেহাল অবস্থা। দীর্ঘদিনেও এ সড়কটির উন্নতি হয়নি। যার ফলে ভিক্টোরিয়া কলেজের হাজার হাজার শিক্ষার্থীসহ প্রতিদিন এই সড়কে যাতায়াতকারীরা চরম দুর্ভোগের স্বীকার হন। বৃষ্টি হলে তো আর কথাই নেই। খানা-খন্দ আর কাদামাটি একাকার হয়ে ভোগান্তির যেন শেষ নেই। যার কারণে যাত্রী সাধারণদেরকে যানবাহনেও গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া।

নগরীর সুজানগর এলাকার বাসিন্দা দেলোয়ার হোসাইন আকাঈদ বার্তা২৪.কমকে জানান, ২০১১ সালে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠার পর থেকে আজ পর্যন্ত সুজানগর সড়কে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। যার ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই কাদামাটি একাকার হয়ে সড়কে চলাচল করা দুষ্কর হয়ে পড়ে। এ এলাকার গণমানুষের দাবি- বর্ষার আগেই যেন সড়কটি সংস্কার করে সাধারণ মানুষের চলাচলের উপযোগী করে তোলে সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ।

মো. আবু বকর সিদ্দিক নামে উত্তর চর্থার এক ব্যক্তি বার্তা২৪.কমকে জানান, কুমিল্লার মানুষের বহুল প্রত্যাশিত সিটি করপোরেশন হলেও নগরবাসীর প্রাপ্তির জায়গাটি একেবারেই নগণ্য রয়ে গেছে। সিটির কর বাড়লেও বাড়েনি নাগরিকদের সেবার মান। চর্থা চৌমুহনী থেকে মু্ন্সেফবাড়ি পর্যন্ত সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে অবহেলায় পড়ে আছে। এছাড়াও মহিলা কলেজ থেকে হালুয়া পাড়া সড়কের অবস্থাতো আরও নাজুক।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/28/1551330826901.jpg

এ বিষয়ে মানবাধিকার কর্মী ইয়াসমিন রিমা বার্তা২৪.কমকে জানান, কুমিল্লা সিটি করপোরেশন কাগজে-কলমে বাস্তবায়ন হলেও সে হিসেবে সফলতা পাচ্ছে না জনগণ। এর কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন নগর পরিকল্পনাবিদরা সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা না করে কর্মপরিকল্পনা করে থাকেন। যার ফলে রাস্তাঘাটসহ নানা সমস্যা ভোগ করতে থাকে নগরের বাসিন্দারা।

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বার্তা২৪.কমকে জানান, এসব সড়কের অধিকাংশ টেন্ডার হয়ে গেছে।

তবে কাজ শুরু করতে ধীরগতি কেন প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, একজন ঠিকাদার একাধিক টেন্ডার পেয়েছেন। তাই কাজ শুরু করতে সময় লাগছে।

তবে আগামী বর্ষার আগে সড়কের কাজ শেষ হবে কিনা এ বিষয়ে পরিষ্কার ভাবে কিছু্ই জানাননি তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :

বাজারে জাটকার ছড়াছড়ি, দামও চড়া

বাজারে জাটকার ছড়াছড়ি, দামও চড়া
বরগুনায় ইলিশের বাজার, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বরগুনায় বাজারগুলোতে জাটকার ছড়াছড়ি থাকলেও দেখা মিলছে না বড় ইলিশের। আর মাছ ধরার মৌসুম হলেও এসব জাটকা বিক্রি হচ্ছে বেশ চড়া দামে। ক্রেতাদের অভিযোগ, বরফ দেওয়া মাছও তাজা বলে বিক্রি করা হচ্ছে। অনেকটা বাধ্য হয়ে বেশি দাম দিয়েই জাটকা কিনতে হচ্ছে। আর মাছ ব্যবসায়ীদের দাবি, ঈদের পর হওয়ায় মাছের দাম একটু বাড়তি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566245039647.jpg

 

সোমবার (১৯ আগস্ট) রাত ৯টার দিকে বরগুনার কয়েকটি মাছের বাজারে ঘুরে দেখা গেছে, ১০ ইঞ্চির ছোট জাটকায় ভরে আছে বাজার। ছোট মাছ (২০০ গ্রামের কম) প্রতি কেজি ৫০০ টাকা, মাঝারি (২৫০-৩০০ গ্রাম) ৮০০ টাকা এবং ৫০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ২০০ টাকায়। আর এক কেজির বেশি ওজনের মাছ বিক্রি হচ্ছে দুই-তিন হাজার টাকা।

মাছ ক্রেতা রানী বেগম জানান, এক কেজি জাটকা কিনেছেন ৫০০ টাকায়। এক কেজিতে হয়েছে ৬টি ইলিশ। যা সাধারণ মাছের দামের চেয়ে তিনগুণ।

মাছ ব্যবসায়ী আবুল হোসেন জানান, ঈদের পর মাছের দাম একটু বেশি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566245068318.jpg

 

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম আজাদ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'গত নভেম্বর-জুন পর্যন্ত জাটকা ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকায় এখন অনেক ইলিশ ধরা পড়ছে।'

বরগুনা জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাইন বিল্লাহ্ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'মৎস্য আইন অমান্য করে জাটকা ইলিশ ধরলে ও তা বিক্রি করলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর আগামীকাল থেকে মাছের বাজারগুলোতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে।' 

আরও পড়ুন, পটুয়াখালীতে জমে উঠেছে ইলিশের বাজার

বরিশালে ডেঙ্গুতে তরুণীর মৃত্যু

বরিশালে ডেঙ্গুতে তরুণীর মৃত্যু
মৃত সুমাইয়া আক্তার, ছবি: সংগৃহীত

বরিশালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে সুমাইয়া আক্তার (১৮) নামে এক তরুণীর মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার (১৯ আগস্ট) দুপুরে বরিশালে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

বিষয়টি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে নিশ্চিত করেছেন শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ বাকির হোসেন। মৃত সুমাইয়া পটুয়াখালীর দুমকি উপজেলার বাসিন্দা ফজলুল হকের মেয়ে।

তিনি জানান, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত সুমাইয়াকে মুমূর্ষ অবস্থায় শুক্রবার (১৬ আগস্ট) রাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে আসে স্বজনরা। ভর্তির পর থেকেই সুমাইয়াকে ডেঙ্গুর সব ধরণের উন্নত চিকিৎসা দেওয়া হয়। তারপরও সোমবার দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।

এদিকে পটুয়াখালীর সিভিল সার্জন ডা. শাহে মোজাহেদুল ইসলাম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে সুমাইয়া প্রথমে দুমকি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি হয়। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য শেবাচিমে শুক্রবার রাতে ভর্তি করা হয়। শেবাচিমের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার দুপুরে সে মারা যায়।'

এ নিয়ে শের-ই-বাংলা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৫ জন এবং গৌরনদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র