Barta24

সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬

English

বখাটে স্টাইলে চুলকাটা বন্ধে তৎপর পুলিশ

বখাটে স্টাইলে চুলকাটা বন্ধে তৎপর পুলিশ
বখাটে স্টাইলে চুলকাটা বন্ধে তৎপর পুলিশ। ছবি: সংগৃহীত
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
ঝালকাঠি
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

চুলের একপাশ কাটা। তার ওপর মোটা করে কয়েকটি দাগ। কারো মাথায় আবার মাঝখানে উঁচু রেখে কানের দুই পাশে ছোট করে কাটা। কেউ আবার জেল মেখে চুল সোজা করে রেখেছে। সকাল হলেই ঝালকাঠি শহরের স্কুল-কলেজের সামনে দেখা যায় এসব স্টাইলে চুল কাটা যুবকদের। মেয়েরা বখাটে হিসেবে এসব যুবকদের আখ্যায়িত করেছে। অনেক সময় তাদের দেখে ভয়ও পাচ্ছে মেয়েরা।

ছেলেদের এ ধরনের বখাটে স্টাইলে চুল কাটা বন্ধে উদ্যোগ নিয়েছে জেলা পুলিশ। ঝালকাঠির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এম এম মাহামুদ হাসান সেলুন মালিকদের নিয়ে বৈঠক করেন। তিনি সেলুন মালিকদের বখাটে স্টাইলে চুল কাটা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেন। এর ফলে দুই-তিন দিন ধরে শহরের সেলুনগুলোতে স্টাইল করে চুল কাটা বন্ধ রয়েছে। শিক্ষার্থীদের চুলের স্টাইল হবে মার্জিত- এ স্লোগান দিয়ে বিভিন্ন স্থানে প্রচারও শুরু করেছে পুলিশ।

পুলিশের একাধিক সূত্রে জানা যায়, ঝালকাঠি শহরে অর্ধশত সেলুন রয়েছে। এসব সেলুনে যুবকরা নানা স্টাইলে চুল কাটেন। চুল কেটে তারা সকাল হলেই শহরের স্কুল ও কলেজের সামনে এসে আড্ডা দেয়। চুলের স্টাইল দেখে মেয়েরা ভয় পায়। চুলের এ ধরনের বখাটে স্টাইল চোখে পড়ে ঝালকাঠির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এম এম মাহামুদ হাসানের।

তিনি স্কুল ও কলেজপড়ুয়া কয়েকজন মেয়ের সঙ্গে কথা বলে বখাটেপনা ও চুলের স্টাইলের ভয়ের কথা জানতে পারেন। অবশেষে তিনি সেলুন মালিকদের নিয়ে সম্প্রতি বৈঠক করেন। বৈঠকে তিনি সেলুন মালিকদের মার্জিতভাবে চুল কাটার পরামর্শ দেন। জেলা পুলিশের এ ধরনের উদ্যোগে খুশি অভিভাবকরাও।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঝালকাঠি সরকারি হরচন্দ্র বালিকা বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির এক ছাত্রী বলেন, ‘আমাদের স্কুলের সামনে সকালে মোটরসাইকেল নিয়ে বিভিন্ন স্টাইলে চুল কাটা ছেলেরা ঘোরাফেরা করে। তাদের দেখতে ভয় লাগে। শুধু চুল কাটাই নয়, অনেক ছেলে ইদানিং এমনভাবে দাড়ি রাখছেন, তা দেখেও ভয় লাগে।’

ঝালকাঠি সরকারি মহিলা কলেজের কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, ‘ছেলেরা মনে করে স্টাইল করে চুল কাটলে তাদেরকে মেয়েরা পছন্দ করবে। কিন্তু তাদের উল্টোভাবে যে মেয়েরা অপছন্দ করে সেটা মনে হয় তারা জানেন না। বখাটে স্টাইলে চুল কাটা আমরা পছন্দ করি না। আমাদের অভিভাবকরাও এটা মেনে নেয় না। আমরা চাই কলেজের সামনে এ ধরনের কোনো বখাটে যেন আড্ডা দিতে না পারে, সেজন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’

এ ব্যাপারে ঝালকাঠির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এম এম মাহামুদ হাসান বলেন, ‘আমরা শহরের বিভিন্ন স্কুল ও কলেজে স্টুডেন্ট কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সভা করেছি। এসব সভায় মেয়েরা অভিযোগ করেছেন ছেলেদের চুলের স্টাইল নিয়ে। এমনভাবে তারা চুল কাটে যা দেখলে মেয়েরা ভয় পায়। আমরা বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় সেলুন মালিকদের সংগঠন নরসুন্দর কমিটির লোকজনের সঙ্গে বৈঠক করেছি। তাদের নির্দেশ দিয়েছি বখাটে স্টাইলে চুল যেন না কাটা হয়। আমাদের সঙ্গে তারাও একমত হয়েছেন। এ ঘটনার পর থেকে অভিভাবকরাও আমাদের উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন। আমরা চাই শিক্ষর্থীদের চুলের স্টাইল হবে মার্জিত।’

আপনার মতামত লিখুন :

কুষ্টিয়ায় পচা-বাসি খাবার বিক্রি, হোটেল মালিকের কারাদণ্ড

কুষ্টিয়ায় পচা-বাসি খাবার বিক্রি, হোটেল মালিকের কারাদণ্ড
কুষ্টিয়ার মিরপুরে ঘোষ সুইটস এন্ড হোটেলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান

কুষ্টিয়ার মিরপুরে নোংরা, পচা-বাসি খাবার বিক্রয় করার অপরাধে ঘোষ সুইটস এন্ড হোটেলের মালিককে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার (১৯ আগস্ট) দুপুরে উপজেলার নিমতলা বাজারে এই অভিযান চালানো হয়।

অভিযান পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস এম জামাল আহম্মেদ।

তিনি জানান, নিয়মিত বাজার অভিযানের প্রেক্ষিতে সোমবার দুপুরে উপজেলার বিভিন্ন বাজারে অভিযান পরিচালনা করা হয়। উপজেলার নিমতলা বাজারে ঘোষ সুইটস এন্ড হোটেলে নোংরা, পচা, বাসি ও অস্বাস্থ্যকর খাবার এবং মরা পোকামাকড় মিশ্রিত মিষ্টি ও মিষ্টান্নদ্রব্য মজুদ ও বিক্রয় করার অপরাধে হোটেলের মালিক অখিল কুমার ঘোষকে ১৫ দিনের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর কুষ্টিয়ার সহকারী পরিচালক মো: সেলিমুজ্জামান, জেলা বাজার কর্মকর্তা মো: রবিউল ইসলাম প্রমুখ।

নারায়ণগঞ্জ পুলিশের বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার ৫৬

নারায়ণগঞ্জ পুলিশের বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার ৫৬
নারায়ণগঞ্জের মানচিত্র, ছবি: সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জে বিশেষ অভিযানে ৫৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ১৭ আগস্ট দিনগত রাত ১টা থেকে ১৮ আগস্ট রোববার রাত ১২টা পর্যন্ত জেলা জুড়ে চলে বিশেষ এই অভিযান।

সোমবার (১৯ আগস্ট) জেলা পুলিশ হতে প্রেরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে গণমাধ্যমকে এই তথ্য জানানো হয়।

অভিযানে মাদকের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা থাকায় ২৫ জনকে গ্রেফতার করা হয় এবং ২০টি মাদক মামলা দায়ের করা হয়। এ সময় উদ্ধার করা হয় ৬৩৪ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ৭ গ্রাম হেরোইন ও ১৫০ গ্রাম গাঁজা। এছাড়া ২৩টি জিআর ও ৭টি সিআর মামলার ওয়ারেন্ট তামিল করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদের নির্দেশে ৭ থানা এলাকাতে ওই অভিযান পরিচালিত হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র