Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ফেসবুকে মানবিক আবেদনে সাড়া মাশরাফির

ফেসবুকে মানবিক আবেদনে সাড়া মাশরাফির
অসহায় আব্দুর রশিদের চিকিৎসায় এগিয়ে এলেন মাশরাফি, ছবি: সংগৃহীত
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
নড়াইল
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রকাশিত এক মানবিক আবেদনে সাড়া দিলেন নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। অসুস্থ আব্দুর রশিদকে ৫০ হাজার টাকার ব্যবস্থা করে দেন তিনি। দেশের না থাকলেও অসহায় এ মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসেন নড়াইলের সংসদ সদস্য।

জানা গেছে, লোহাগড়া উপজেলার ডহরপাড়া গ্রামের মোফাজ্জেল হোসেন মোল্যার ছেলে আব্দুর রশিদের দুইটা কিডনি নষ্ট হয়ে গেছে। বর্তমানে ঢাকা পিজি হাসপাতালের চতুর্থ তলার সি-ব্ল এর ২৭ নং বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন ৮ থেকে ১০ লক্ষ টাকার প্রয়োজন।

গত ১১ মার্চ নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এফ এম রোমান রায়হান তার ফেসবুক ওয়ালে চিকিৎসার জন্য আর্থিক সাহায্যে চেয়ে সংসদ সদস্য বরাবর একটি আবেদন করেন।

সেখানে লেখা ছিল, লোহাগড়া উপজেলা ছাত্রলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এশারতের বড় ভাই আব্দুর রশিদের দুইটি কিডনি নষ্ট। তার চিকিৎসার জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন যা এই হতদরিদ্র পরিবারের পক্ষে জোগাড় করা সম্ভব নয়। তাকে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করলে তাকে বাঁচানো সম্ভবও উল্লেখ করা হয়।

নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ও ক্রিকেট তারকা মাশরাফি বিন মর্তুজা পরিবার নিয়ে দেশের বাইরে অবস্থান করলেও বিষয়টি তার চোখ এড়ায়নি। সেখান থেকেই তাৎক্ষণিকভাবে যোগাযোগ করে ৫০,০০০ হাজার টাকার ব্যবস্থা করে দেন। পাশাপাশি তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন তিনি।

আব্দুর রশিদকে মাশরাফি সার্বিক সহযোগিতা করার বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর অনেকেই সাধুবাদ জানিয়েছেন।

জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নিলয় রায় বাঁধন ফেসবুকে লিখেছেন, 'পোষ্টটি প্রিয়নেতা মাশরাফি ভাই দেখেছেন এবং আব্দুর রশিদের চিকিৎসার জন্য ৫০ হাজার টাকা দেবেন বলে জানিয়েছেন। শুধু তাই নয়, হাসপাতালে আব্দুর রশিদের সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিশ্চিত করতে যা যা করণীয় সকল সাহায্যে করবেন বলে জানিয়েছেন।'

ছাত্রলীগ নেতা এশারত বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'আমার ভাই কি চিকিৎসার অভাবে মরে যাবে? বড় ভাই আব্দুর রশিদের চিকিৎসার জন্য পিতার যায়গা জমি যা ছিল সবই বিক্রি করে চিকিৎসা চালানো হচ্ছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন ৮ থেকে ১০ লক্ষ টাকার প্রয়োজন। তার চিকিৎসা করানো মত অর্থ আমাদের নেই।'

তিনি আরও জানান, এমপি সাহেব ৫০ হাজার দিবেন আমার ভাইয়ের চিকিৎসার জন্য। এমপি সাহেবের মত সমাজের বিত্তবানদের তার ভাইয়ের চিকিৎসা জন্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ও নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সৌমেন চন্দ্র বসু বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'আব্দুর রশিদকে চিকিৎসার জন্য পঞ্চাশ হাজার টাকা প্রদানের জন্য তার স্বজনদের সাথে যোগাযোগ করা হচ্ছে। দ্রুত সময়ের মধ্যেই তাদের কাছে টাকা পৌঁছে দেয়া হবে।'

তিনি আরও বলেন, 'মাশরাফি দেশে না থাকলেও তার নির্বাচনী এলাকার প্রতি বিশেষ নজর রয়েছে। দেশের বাইরে অবস্থান করেও তিনি বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করছেন।'

আপনার মতামত লিখুন :

ভুঞাপু‌রে কম‌তে শুরু ক‌রে‌ছে যমুনার পা‌নি

ভুঞাপু‌রে কম‌তে শুরু ক‌রে‌ছে যমুনার পা‌নি
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

টাঙ্গাই‌লের ভুঞাপু‌র উপজেলায় যমুনা নদীর পানি কমতে শুরু করেছে। শুক্রবার (১৯ জুলাই) বি‌কে‌লের পর থে‌কেই পানি কমতে দেখা যায়।

স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) জানায়, ভুঞাপুরে যমুনা নদীর পা‌নি দুই সে‌ন্টি‌মিটার ক‌মে বিপদসীমার ৯৭ সে‌ন্টি‌মিটার ওপর দি‌য়ে বইছে। অথচ দুপুরেও এই পয়েন্টে পা‌নি ‌বিপদসীমার ৯৯ সে‌ন্টি‌মিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।

Tangail Flood

টাঙ্গাইলের পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম জানান, বি‌কে‌লের পর থে‌কে যমুনা নদী‌তে কিছুটা পা‌নি হ্রাস পে‌য়ে‌ছে। ধারণা করা হচ্ছে, শ‌নিবার (২০ জুলাই) থে‌কে পা‌নি আরও কমবে।

আরও পড়ুন: ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়ক মেরামতে সেনাবাহিনী

ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে পরিবার আটক

ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে পরিবার আটক
গুজব ছড়িয়ে এক পরিবারের চার সদস্যকে আটক করে স্থানীয়রা/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বগুড়ায় ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে প্রাইভেট কারসহ একটি পরিবারকে আটক করে স্থানীয় পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলরের নেতৃত্বে এলাকাবাসী। এ সময় অল্পের জন্য গণপিটুনী থেকে রক্ষা পেয়েছেন পরিবারের সদস্যরা।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) সন্ধ্যায় বগুড়া শহরতলীর সাবগ্রাম এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বগুড়া মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য সরোয়ার হোসেন প্রাইভেট কার যোগে স্ত্রী সন্তান নিয়ে সারিয়াকান্দিতে যমুনা নদীতে বন্যার পানি দেখতে যান। সেখান থেকে ফেরার পথে গাবতলী পৌর সভার ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সোহেল রানার মোটরসাইকেলের সাথে প্রাইভেট কারের ধাক্কা লাগে।

এ সময় প্রাইভেট কার থামাতে বললে চালক সরোয়ার হোসেন না থামিয়ে বগুড়া শহরের দিকে যেতে থাকেন। সোহেল রানা মোটরসাইকেল নিয়ে প্রাইভেট কারের পিছু ধাওয়া করেন।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে প্রাইভেট কারটি সাবগ্রাম দ্বিত্বীয় বাইপাস মহাসড়কে যানজটে আটকা পড়লে সোহেল রানা ছেলে ধরা গুজব ছড়ান। এ সময় স্থানীয় জনগণ প্রাইভেট কারে দুই শিশু দেখে তাদেরকে আটক করে। মুহূর্তের মধ্যে ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে পড়লে শত-শত জনগণ তাদেরকে ঘেরাও করে।

সরোয়ার হোসেন এ সময় স্ত্রী সন্তান নিয়ে দৌড়ে একটি দোকান ঘরে গিয়ে আশ্রয় নেন। খবর পেয়ে পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে গেলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রেজাউল করিম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘থানায় আসার পর ভুল বোঝাবুঝির অবসান হলে সরোয়ার হোসেন স্ত্রী সন্তান নিয়ে বাড়ি ফিরে যান।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র