Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

পাবনায় শেষ হলো শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকূলচন্দ্র স্মরণোৎসব

পাবনায় শেষ হলো শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকূলচন্দ্র স্মরণোৎসব
ছবি: বার্তা২৪
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
পাবনা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

পাবনার হিমাইতপুর শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকূলচন্দ্র আশ্রমে শেষ হলো তিন দিনব্যাপী ঠাকুরের আবির্ভাব-বর্ষ-স্মরণ মহোৎসব। শুক্রবার (২২ মার্চ) রাতে অনুষ্ঠিত সমাপনী সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলু।

এ সময় তিনি বলেন, একটি চক্র শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকূলচন্দ্রের আশ্রম নিয়ে আইন লড়াই করে হেরেছে, প্রকৃতরাই পেয়েছেন। ঠাকুরের এই জন্মস্থান অন্য কারও নয়, আর পাওয়ার সুযোগ নেই। ঠাকুরের আশ্রম ঘিরে যারা রয়েছেন, যারা কর্মযজ্ঞাদি পালন করছেন, প্রকৃতপক্ষে তারাই এই আশ্রমের নিবেদিত ভক্ত ও অনুসারী।

পূর্ণ দোল পূর্ণিমা তিথিতে যুগপুরুষোত্তম, প্রেমময় শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকূলচন্দ্রের ১৩২তম আবির্ভাব বর্ষস্মরণ উপলক্ষে আয়োজিত উৎসবের সমাপনী ধর্মসভায় সভাপতিত্ব করেন সৎসঙ্গ আশ্রমের সহ-সভাপতি (প্রতিঋত্বিক) ড. শ্রীরবীন্দ্রনাথ সরকার।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/23/1553285516793.jpg

সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শ্রীচন্দনকুমার চক্রবর্তী ও সৎসঙ্গ আশ্রমের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য প্রবীর কুমার সাহা।

সমাপনী দিনের ভোর থেকেই অনুষ্ঠিত হয় ঊষাকীর্তন ও মাঙ্গলিকী, ভোরের প্রার্থনা ও সদগ্রন্থদি পাঠ, শ্রীমদ্ভাগবত পাঠের আসর, অনুকূল ভক্তিগীতি ও কিশোর মেলা। সন্ধ্যায় সান্ধ্য প্রার্থনা ও লোকরঞ্জন কবিগান এবং রাতে লোকরঞ্জন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে তিনদিনের মহোৎসবের শেষ হয়।

আরও পড়ুন: পাবনায় অনুকূলচন্দ্র আশ্রমে বুধবার থেকে মহোৎসব

আপনার মতামত লিখুন :

ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে পরিবার আটক

ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে পরিবার আটক
গুজব ছড়িয়ে এক পরিবারের চার সদস্যকে আটক করে স্থানীয়রা/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বগুড়ায় ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে প্রাইভেট কারসহ একটি পরিবারকে আটক করে স্থানীয় পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলরের নেতৃত্বে এলাকাবাসী। এ সময় অল্পের জন্য গণপিটুনী থেকে রক্ষা পেয়েছেন পরিবারের সদস্যরা।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) সন্ধ্যায় বগুড়া শহরতলীর সাবগ্রাম এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বগুড়া মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য সরোয়ার হোসেন প্রাইভেট কার যোগে স্ত্রী সন্তান নিয়ে সারিয়াকান্দিতে যমুনা নদীতে বন্যার পানি দেখতে যান। সেখান থেকে ফেরার পথে গাবতলী পৌর সভার ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সোহেল রানার মোটরসাইকেলের সাথে প্রাইভেট কারের ধাক্কা লাগে।

এ সময় প্রাইভেট কার থামাতে বললে চালক সরোয়ার হোসেন না থামিয়ে বগুড়া শহরের দিকে যেতে থাকেন। সোহেল রানা মোটরসাইকেল নিয়ে প্রাইভেট কারের পিছু ধাওয়া করেন।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে প্রাইভেট কারটি সাবগ্রাম দ্বিত্বীয় বাইপাস মহাসড়কে যানজটে আটকা পড়লে সোহেল রানা ছেলে ধরা গুজব ছড়ান। এ সময় স্থানীয় জনগণ প্রাইভেট কারে দুই শিশু দেখে তাদেরকে আটক করে। মুহূর্তের মধ্যে ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে পড়লে শত-শত জনগণ তাদেরকে ঘেরাও করে।

সরোয়ার হোসেন এ সময় স্ত্রী সন্তান নিয়ে দৌড়ে একটি দোকান ঘরে গিয়ে আশ্রয় নেন। খবর পেয়ে পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে গেলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রেজাউল করিম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘থানায় আসার পর ভুল বোঝাবুঝির অবসান হলে সরোয়ার হোসেন স্ত্রী সন্তান নিয়ে বাড়ি ফিরে যান।’

ঝিনাইদহে দেখা মিলেছে ৩৫ মণ ওজনের গরু

ঝিনাইদহে দেখা মিলেছে ৩৫ মণ ওজনের গরু
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ঝিনাইদহের একটি খামারে দেখা মিলেছে ৩৫ মণ ওজনের এক গরুর। যার নাম দেওয়া হয়েছে যুবরাজ। প্রতিদিন গরুটি দেখতে খামারে ভিড় করছে উৎসুক জনতা। 

শুক্রবার (১৯ জুলাই) সদর উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামে সরেজমিনে দেখা মেলে ৩৫ মণ ওজনের এই গরুটির। গরুটির মালিক শাহ আলম নিজ খামারে যুবরাজের দেখাশোনা করেন বলেও জানা যায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563550391931.jpg
শাহ আলম নিজেই গরুটির দেখাশোনা করেন  

 

শাহ আলম বলেন, 'বর্তমানে খামারে ৮ টি বড় গরু রয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৩৫ মণ ওজনের একটি গরু আছে যার নাম দিয়েছি যুবরাজ। ইতিমধ্যে গরুটির দাম হয়েছে ২২ লাখ টাকা।'

এদিকে, যুবরাজকে দেখতে প্রতিদিন তার খামারে ভিড় করছেন শত শত মানুষ।

তার খামারে গরু দেখতে আসা শৈলকুপা উপজেলার পলাশ হোসেন বলেন, 'বড় গরুর কথা শুনে আজ দেখতে এসেছি। এত বড় গরু আমি জীবনে দেখিনি।'

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563550688905.jpg
দূর থেকেও সবাই গরুটি দেখতে ভিড় করছে

 

হরিণাকুন্ডু উপজেলার মিলু হোসেন বলেন, 'শাহ আলমের খামারে গরু দেখে আমারও গরু পালনের ইচ্ছা হয়েছে। তার খামারে গরু দেখতেও ভালো লাগে।' 

গ্রামের নাসির উদ্দিন নামের এক কৃষক বলেন, 'গরুটি দেখতে অনেক মানুষ ভিড় করছে। তাই আমিও দেখতে এসেছি।' 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র