Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

স্টাইল করে চুল কাটলে জরিমানা: নিষেধাজ্ঞা নোটিশ প্রত্যাহার

স্টাইল করে চুল কাটলে জরিমানা: নিষেধাজ্ঞা নোটিশ প্রত্যাহার
স্টাইল করে চুল কাটলে জরিমানা: নিষেধাজ্ঞা নোটিশ প্রত্যাহার, ছবি: সংগৃহীত
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
টাঙ্গাইল
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

নানামুখি আলোচনা-সমালোচনার পর টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে হেয়ার স্টাইলে চুল কাটাসহ দাঁড়ি ও গোঁফ মডেলিংয়ের ওপর সরকারিভাবে নিষেধাজ্ঞা জারি করে নগদ টাকা অর্থ জরিমানা সংক্রান্ত নোটিশটি প্রত্যাহার করে নিয়েছে উপজেলা শীল সমিতি।

বার্তা২৪.কমসহ বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এ জাতীয় খবর প্রকাশ হলে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনের নজরে আসে। পরে শুক্রবার (২২ মার্চ) রাতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের হস্তক্ষেপে নোটিশটি প্রত্যাহার করে নেয় সমিতি।

শনিবার (২৩ মার্চ) সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝোটন চন্দ ও উপজেলা শীল সমিতির সভাপতি শেখর চন্দ্র শীল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নোটিশ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হয়।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝোটন চন্দ বার্তা২৪.কমকে বলেন, বার্তা২৪.কমসহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে বিষয়টি জেনে ওসির সাথে আলোচনা করি। বিষয়টি নিয়ে ভুল বুঝাবুঝি হয়েছে। পরে শীল সমিতির সভাপতি ও সম্পাদককে নিয়ে বৈঠক করি। বৈঠকে উক্ত নোটিশ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

ভূঞাপুর উপজেলা শীল সমিতির সভাপতি শেখর চন্দ্র শীল বলেন, ইউএনও স্যার আমাদেরকে তার অফিসে আসতে বলেন। পরে সেখানে গেলে এটি প্রত্যাহার করে নিতে বলেন। পরে আমরা ইউএনও স্যারের সাথে আলোচনা করে প্রত্যাহার করে নেই। পরে ওসি স্যারের পক্ষ থেকে সবাইকে জানানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, তবে কোনো বখাটে স্টাইলে চুল কাটা হবে না।

ভূঞাপুর থানার ওসি রাশিদুল ইসলামও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ, সম্প্রতি ছাত্র ও উঠতি বয়সের যুবকসহ সকলের হেয়ার স্টাইলে চুল কাটাসহ দাঁড়ি ও গোঁফ মডেলিং এবং রঙ না করার বিষয়ে ভূঞাপুর থানার ওসি শীল সদস্যদের ডেকে নিয়ে সতর্ক করে দেন। পরে ভূঞাপুর থানার ওসি রাশিদুল ইসলাম, শীল সমিতির সভাপতি ও সম্পাদক স্বাক্ষরিত নোটিশ উপজেলার সকল সেলুনে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়।

বিষয়টি সম্পর্কে উপজেলা শীল সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ‘ওসির নির্দেশনায় হেয়ার স্টাইল করে চুল, দাঁড়ি ও গোঁফ কাটা বন্ধ করা হয়েছিল। বর্তমানে ছাত্র ও যুবকরা স্টাইল করে চুল কাটা বন্ধ করে স্বাভাবিকভাবেই চুল কাটাচ্ছে।’ তবে উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে নোটিশটি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে পরিবার আটক

ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে পরিবার আটক
গুজব ছড়িয়ে এক পরিবারের চার সদস্যকে আটক করে স্থানীয়রা/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বগুড়ায় ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে প্রাইভেট কারসহ একটি পরিবারকে আটক করে স্থানীয় পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলরের নেতৃত্বে এলাকাবাসী। এ সময় অল্পের জন্য গণপিটুনী থেকে রক্ষা পেয়েছেন পরিবারের সদস্যরা।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) সন্ধ্যায় বগুড়া শহরতলীর সাবগ্রাম এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বগুড়া মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য সরোয়ার হোসেন প্রাইভেট কার যোগে স্ত্রী সন্তান নিয়ে সারিয়াকান্দিতে যমুনা নদীতে বন্যার পানি দেখতে যান। সেখান থেকে ফেরার পথে গাবতলী পৌর সভার ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সোহেল রানার মোটরসাইকেলের সাথে প্রাইভেট কারের ধাক্কা লাগে।

এ সময় প্রাইভেট কার থামাতে বললে চালক সরোয়ার হোসেন না থামিয়ে বগুড়া শহরের দিকে যেতে থাকেন। সোহেল রানা মোটরসাইকেল নিয়ে প্রাইভেট কারের পিছু ধাওয়া করেন।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে প্রাইভেট কারটি সাবগ্রাম দ্বিত্বীয় বাইপাস মহাসড়কে যানজটে আটকা পড়লে সোহেল রানা ছেলে ধরা গুজব ছড়ান। এ সময় স্থানীয় জনগণ প্রাইভেট কারে দুই শিশু দেখে তাদেরকে আটক করে। মুহূর্তের মধ্যে ছেলে ধরা গুজব ছড়িয়ে পড়লে শত-শত জনগণ তাদেরকে ঘেরাও করে।

সরোয়ার হোসেন এ সময় স্ত্রী সন্তান নিয়ে দৌড়ে একটি দোকান ঘরে গিয়ে আশ্রয় নেন। খবর পেয়ে পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে গেলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রেজাউল করিম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘থানায় আসার পর ভুল বোঝাবুঝির অবসান হলে সরোয়ার হোসেন স্ত্রী সন্তান নিয়ে বাড়ি ফিরে যান।’

ঝিনাইদহে দেখা মিলেছে ৩৫ মণ ওজনের গরু

ঝিনাইদহে দেখা মিলেছে ৩৫ মণ ওজনের গরু
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ঝিনাইদহের একটি খামারে দেখা মিলেছে ৩৫ মণ ওজনের এক গরুর। যার নাম দেওয়া হয়েছে যুবরাজ। প্রতিদিন গরুটি দেখতে খামারে ভিড় করছে উৎসুক জনতা। 

শুক্রবার (১৯ জুলাই) সদর উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামে সরেজমিনে দেখা মেলে ৩৫ মণ ওজনের এই গরুটির। গরুটির মালিক শাহ আলম নিজ খামারে যুবরাজের দেখাশোনা করেন বলেও জানা যায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563550391931.jpg
শাহ আলম নিজেই গরুটির দেখাশোনা করেন  

 

শাহ আলম বলেন, 'বর্তমানে খামারে ৮ টি বড় গরু রয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৩৫ মণ ওজনের একটি গরু আছে যার নাম দিয়েছি যুবরাজ। ইতিমধ্যে গরুটির দাম হয়েছে ২২ লাখ টাকা।'

এদিকে, যুবরাজকে দেখতে প্রতিদিন তার খামারে ভিড় করছেন শত শত মানুষ।

তার খামারে গরু দেখতে আসা শৈলকুপা উপজেলার পলাশ হোসেন বলেন, 'বড় গরুর কথা শুনে আজ দেখতে এসেছি। এত বড় গরু আমি জীবনে দেখিনি।'

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563550688905.jpg
দূর থেকেও সবাই গরুটি দেখতে ভিড় করছে

 

হরিণাকুন্ডু উপজেলার মিলু হোসেন বলেন, 'শাহ আলমের খামারে গরু দেখে আমারও গরু পালনের ইচ্ছা হয়েছে। তার খামারে গরু দেখতেও ভালো লাগে।' 

গ্রামের নাসির উদ্দিন নামের এক কৃষক বলেন, 'গরুটি দেখতে অনেক মানুষ ভিড় করছে। তাই আমিও দেখতে এসেছি।' 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র