Alexa

আম চাষিদের স্বপ্নে কালবৈশাখীর আঘাত

আম চাষিদের স্বপ্নে কালবৈশাখীর আঘাত

আম চাষিদের স্বপ্নে কালবৈশাখীর আঘাত। ছবি: বার্তা২৪.কম

রংপুরে কালবৈশাখী ঝড়ে ও শিলা বৃষ্টিতে আম চাষিদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিশেষ করে হাঁড়িভাঙা আমের মুকুল ও গুটি ঝরে পড়ার সঙ্গে ভেঙে গেছে গাছও। এমন ক্ষতিতে দিশেহারা হয়ে উঠেছে হাঁড়িভাঙা নির্ভর আম চাষিরা।

রোববার (৩১ মার্চ) রাতে দেশের অন্যান্য অঞ্চলের মতো রংপুরেও ঘূর্ণিঝড় এবং বৃষ্টিপাত হয়। এতে আমের গুটির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হাঁড়িভাঙা আমের জন্য প্রসিদ্ধ রংপুরের মিঠাপুকুরের খোড়াগাছ, ময়েনপুর, রানিপুকুর, বালুয়া মাসিমপুর, ছড়ান, বড়বালা, লতিবপুর, রংপুর সদর উপজেলার সদ্যপুস্করনী, বদরগঞ্জ উপজেলার কুতুবপুর, গোপালপুর, লোহানীপাড়াসহ বেশ কিছু এলাকার আম চাষিদের বাগান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানায়, এবার রংপুরে হাঁড়িভাঙা আমগাছগুলোয় রেকর্ড পরিমাণ মুকুল এসেছিল। বেশি আম উৎপাদনের সম্ভাবনাও ছিল। কিন্তু কালবৈশাখী ঝড় সেই সম্ভাবনায় আঘাত হেনেছে। বেশির ভাগ চাষির বাগানে মুকুল ঝরে গেছে। কোথাও কোথাও গাছ উপড়ে পড়েছে।

সদ্যপুস্করনী ইউনিয়নের নয়াপুকুর এলাকার সাগর মণ্ডল, মিলন মিয়া, রবিউল ইসলাম জানান, এক রাতের ঝড়েই তাদের বসত ভিটার আম গাছের মুকুলগুলোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এখন গাছে সামান্য কিছু মুকুল রয়েছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/01/1554117896448.jpg

রংপুর কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, চলতি মৌসুমে শুধু রংপুর জেলায় বাগান পর্যায়ে প্রায় ১৬ হাজার ১২০ হেক্টর এবং বাসাবাড়ি ও ক্ষুদ্র পরিসরে ৩ হাজার ১১৪ হেক্টর জমিতে আমের বাগান রয়েছে। এর মধ্যে অর্ধেক চাষির এবং বাকি অর্ধেক মধ্যস্বত্বভোগী, আড়তদার, ব্যাপারীদের বাগান।

এদিকে কালবৈশাখী ঝড়ের ফলে দুশ্চিন্তায় রয়েছে আম চাষিরা। খোড়াগাছা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের তেকানী গ্রামের আম চাষি আমজাদ উদ্দিন পাইকার জানান, কালবৈশাখী ঝড়ে মুকুল ও আমের গুটির অনেক ক্ষতি হয়েছে।

সাধারণ আম চাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছাড়াও প্রতি বছর বাগানের অর্ধেকেরও বেশি আম নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু আমের মুকুল ঝরে যাওয়া বা মুকুলে কম গুটি থাকা, কিংবা পরিণত আমে পচন প্রতিরোধে তাদের তেমন কোনো কৌশল জানা নেই।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. সরোয়ারুল হক জানান, রংপুরে ঐতিহ্যবাহী হাঁড়িভাঙা আমের এবার রেকর্ড পরিমাণ মুকুল ধরেছে। কিন্তু গতকালের ঘূর্ণিঝড়ে সামান্য ক্ষতি হয়েছে। তবে বড় কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবার রংপুর অঞ্চলে হাঁড়িভাঙা আমের বাম্পার ফলন হবে। যা উৎপাদনের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে।

আপনার মতামত লিখুন :