Alexa

বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে সূর্যমুখীর হাসি

বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে সূর্যমুখীর হাসি

মাঠজুড়ে সূর্যমুখীর হাসি। ছবি: বার্তা২৪.কম

সোনা রোদের আভায় সবুজ গাছের মাথায় সূর্যমুখীর হাসি যেন চারিদিকে দ্যুতি ছড়াচ্ছে। ফুলে ফুলে উড়ে মধু সংগ্রহ করছে মৌমাছি, ভ্রমর আর প্রজাপতি। বিস্তীর্ণ মাঠ জুড়ে এখন শুধু পরিপক্ব সোনালি সূর্যমুখী ফুলের সৌন্দর্য। খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার মহম্মদনগরে কৃষকের মাঠজুড়ে হাসছে নয়নাভিরাম সূর্যমুখী ফুল।

ফসলের মাঠ থেকে আমন ধান কাটার পরে এ মৌসুমের বাকি সময়ে জমিতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ করে লাভবান হচ্ছেন উপজেলার কৃষকরা। এ অঞ্চলে বসন্তের এ সময়েই সূর্যমুখী ফুলের চাষ ভালো হয়। সূর্যমুখী ফুল চাষে তুলনামূলক খরচ কম হওয়ায় এতে কৃষকের আগ্রহ বাড়ছে। প্রথমদিকে ব্যক্তিগত উদ্যোগে সূর্যমুখী চাষ শুরু করলেও লাভের মুখ দেখায় এখন বাণিজ্যিকভাবে সূর্যমুখী চাষ করছে কৃষকরা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/03/1554272523503.jpg

মহম্মদনগর পূর্ব পাড়ার সূর্যমুখী ফুল চাষি বাবুল হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘আমি ৫ বছর ধরে এখানে সূর্যমুখীর চাষ করি। বিগত বছরগুলোতে সূর্যমুখী চাষ করে ভালো লাভ পেয়েছি। তাই এ বছরও প্রায় ৬ বিঘা জমিতে সূর্যমুখীর চাষ করেছি। এ বছর শিলা বৃষ্টিতে বেশ কিছু ফুল নষ্ট হয়েছে। তবে আমি জমিতে ১০ হাজার টাকা খরচ করে ফুলের তেল বিক্রির মাধ্যমে প্রায় ৪০ হাজারেরও বেশি লাভ পাব বলে আশা করছি।’

আরেক চাষি সালমান শেখ বলেন, ‘প্রথমে ব্র্যাকের কৃষি ও খাদ্য নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় আমাদের বীজ ও সার দেয়া হতো। আমরা সবাই এ থেকে উপকৃত হতাম। গত দু’বছর ধরে ব্র্যাকের কোনো সাহায্য পাচ্ছি না। এখন ব্যক্তিগত ভাবেই সূর্যমুখী চাষ করি।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/03/1554272541945.jpg

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানান, সূর্যমুখী ফুল চাষে খরচের তুলনায় কয়েকগুণ লাভ বেশি হওয়ায় এ ফুল চাষে দিন দিন কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে। চলতি রবি মৌসুমের আবহাওয়াই সূর্যমুখী ফুল চাষের জন্য উপযুক্ত সময়। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে সূর্যমুখীর চাষ করে এ অঞ্চলের কৃষকরা লাভবান হবেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খুলনার উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) পঙ্কজ কান্তি মজুমদার বার্তা২৪.কমকে জানান, সূর্যমুখী ফুল চাষ করে যে তেল পাওয়া যায়, দেশে-বিদেশে সেই তেলের বেশ চাহিদা রয়েছে। এ ফুল থেকে যে তেল উৎপন্ন হয় তা সম্পূর্ণ কোলেস্টেরলমুক্ত। এ তেলে মানুষের হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। সূর্যমুখী তেলের অনেক পুষ্টিগুণ। এ অঞ্চলে কৃষকদের সূর্যমুখী চাষে উদ্বুদ্ধ করতে সরকারিভাবে অনেক কার্যক্রম অব্যাহত আছে। তবে বেসরকারি সহায়তায়ও অনেক জায়গায় এখন সূর্যমুখী চাষ হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :