Barta24

শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

English

সম্ভাবনার নতুন দ্বার সোনাহাট স্থলবন্দর

সম্ভাবনার নতুন দ্বার সোনাহাট স্থলবন্দর
সোনাহাট স্থলবন্দর / ছবি: বার্তা২৪
ওয়াহিদুজ্জামান তুহিন
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

সম্ভাবনামার নতুন দ্বার দেশের সর্ব উত্তরের সোনাহাট স্থলবন্দর। বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সাতটি অঙ্গ রাজ্যের সড়ক পথে পণ্য পরিবহনের সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে এ বন্দরটি। সোনাহাট স্থলবন্দর ব্যবহার করে ভারতের আসাম, মেঘালয়, মিজোরাম, মনিপুর, নাগাল্যান্ড, ত্রিপুরা ও অরুনাচল রাজ্যের সঙ্গে সড়ক পথে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। ভারত থেকে আমদানি পণ্য পরিবহনে ৪০০ কিলোমিটার পথ সাশ্রয় হওয়ায় লাভবান হবেন দু’দেশের ব্যবসায়ীরা। পাশাপাশি পর্যটন ও পারস্পরিক সর্ম্পক উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখবে।

উত্তরের সীমান্ত ঘেষা জেলা কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলার বঙ্গসোনাহাট ইউনিয়নের বানুরকুটি গ্রামে আন্তর্জাতিক সীমানা পিলারের (পিলার নং-১০০৯) কাছে এ বন্দর অবস্থিত। এটি ব্রিটিশ আমলে একটি বাণিজ্যিক বন্দর ও একটি সমৃদ্ধ শহর ছিল। ওই সময় বাংলাদেশ ও ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলের আসাম, মিজোরাম, মনিপুর, নাগাল্যান্ড, ত্রিপুরা, অরুনাচল ও মেঘালয় রাজ্যের একমাত্র প্রবেশদ্বার ছিল এ বন্দরটি। ১৯৪৭ সালে ভারত বিভক্তির পর এ পথগুলো বন্ধ হয়ে যায়। বন্ধ হয়ে আসে এ বন্দরের সকল প্রকার কার্যক্রম।

পরবর্তীতে বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ আইন ২০০১ (২০০১ সালের ২০ নং আইন) এর ধারা ৩ অনুয়ায়ী সরকার ২০০৯ সালের ১১ জুন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের প্রজ্ঞাপন (নং ২৬২/২০০৮) দ্বারা ঘোষিত সোনাহাট শুল্ক স্টেশনকে পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর ঘোষণা করা হয়। এর আগে ১৯৯৫ সালে অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ সোনাহাট স্থল শুল্ক স্টেশন স্থাপনের প্রজ্ঞাপন জারি করে। ১৯৯৬ সালে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড বঙ্গসোনাহাট স্থলবন্দরকে ল্যান্ড পোস্ট হিসেবে ঘোষণা করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/19/1555667171394.jpg

এ বন্দরে ১৪ দশমিক ৬৮ একর জমির উপর ৬০ মেট্রিক টন ধারণ ক্ষমতার একটি ওয়ার হাউস, ৯৬ হাজার বর্গফুট আয়তনের পার্কিং ইয়ার্ড, ৮৫ হাজার বর্গফুট আয়তনের ওপেন স্ট্যাক ইয়ার্ড, শ্রমিকদের জন্য দুটি বিশ্রামাগার, একটি প্রশাসনিক ভবন, সিকিউরিটি ব্যারাক, ডরমেটরি ভবনসহ অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে। এতে ব্যয় হয় ৩৯ কোটি ৪৩ লাখ ২৬ হাজার টাকা। এই বন্দর দিয়ে পাথর, কয়লা, তাজা ফল, ভূট্টা, গম, চাল, ডাল, রসুন, আদা ও পিঁয়াজসহ ১০টি পণ্য আমদানি এবং বিধি অনুযায়ী সব ধরনের বৈধ্য পণ্য রফতানি করার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত শুধু মাত্র কয়লা ও পাথর আমদানি করছেন বাংলাদেশী ব্যবসায়ীরা।

২০১৩ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলায় সোনাহাট স্থল বন্দর চালু করা হয়। সে আলোকে জেলা শহর থেকে বন্দর পর্যন্ত সড়ক পথ সম্প্রসারণ করা হলেও দুধকুমার নদীর উপর ব্রিটিশ আমলে নির্মিত সোনাহাট রেল সেতুর স্থায়িত্ব শেষ হওয়ায় এর উপর দিয়ে ভারী যান চলাচল করতে পারে না। বিভিন্ন সময় সেতুর পাটাতন ভেঙে বন্ধ হয়ে যায় যান চলাচল।

সোনাহাট স্থল বন্দর সিএন্ডএফ সভাপতি সরকার রাকিব আহমেদ জুয়েল বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘বন্দর সচল রাখতে সড়ক পথ ভালো রাখার কোনো বিকল্প নাই। আর সে ক্ষেত্রে সোনাহাট সেতু এখন রীতিমত বন্দর ব্যবসায়ীর জন্য অভিশাপে পরিণত হয়েছে। তবে আশার কথা সম্প্রতি একনেক সভায় সরকার সোনাহাট সেতুর নির্মাণ প্রকল্প পাশ করেছে। আমরা চাই দ্রুতই তা বাস্তবায়ন করে বন্দরের যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল রাখবে।’

সোনাহাট স্থল বন্দর আমদানি-রফতানি কারক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক বার্তা২৪কমকে বলেন, ‘এই বন্দরটি চালু করার পর অনেক আশা নিয়ে আমরা ব্যবসা শুরু করি। এরপর দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ব্যবসায়ীরা এখানে আসা শুরু করে। কিন্তু ভারতীয় প্রশাসনের সঠিক নজরদারির অভাবে এলসি করেও কয়লা ও পাথরের জন্য অপেক্ষা করতে হয় দীর্ঘ সময়। এতে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/19/1555667193232.jpg

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমানে এ বন্দর দিয়ে প্রতিদিন ১ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পাথর ও কয়লা ভারত থেকে আমদানি হয়। এতে সরকারের বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আদায় হয়।’

সোনাহাট স্থলবন্দর হ্যান্ডেলিং শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. হামিদুল ইসলাম বার্তা২৪.কমকে জানান, বন্দরটি চালু হওয়ার পর এই অঞ্চলের প্রায় ২ হাজার অভাবী মানুষজন বন্দরে লোড-আনলোডের কাজসহ অন্যান্য কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। ভারতীয় নানা সমস্যায় বিভিন্ন সময় ১৫দিন থেকে এক মাস পর্যন্ত পণ্য আমদানি বন্ধ থাকে। এতে করে বিপাকে পড়ে যান বন্দরের শ্রমিকরা।

সোনাহাট স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের ওয়্যার হাউস ইনচার্জ মাহফুজুল হক ভুইয়া বার্তা২৪.কমকে জানান, এই বন্দরে ওয়ার হাউস, পার্কিং ডক ইয়ার্ডসহ সকল অবকাঠামো আমাদের প্রস্তুত রয়েছে। পণ্য আমদানি রফতানির সংখ্যা বাড়লে সরকারের রাজস্বের পাশাপাশি সকল ক্ষেত্রে লাভবান হবেন বন্দরের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা।

আরও পড়ুন: সোনাহাট স্থলবন্দর দি‌য়ে পণ্য রফতা‌নি শুরু

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) দুপু‌রে বাংলাদেশে তৈরি প্লা‌স্টিক পণ্য রফতা‌নির মাধ্য‌মে প্রথমবা‌রের মতো সোনাহাট স্থলবন্দর দি‌য়ে পণ্য রফতা‌নির কার্যক্রম শুরু হয়।

সোনাহাট স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গে‌ছে, সোনাহাট স্থলবন্দর‌ চালু হওয়ার পর ভারত থে‌কে পাথর ও কয়লা আমদানি চলমান ছিল। তবে এত‌দিন বাংলা‌দে‌শ থেকে কোন পণ্য ভারতে রফতা‌নি করা হয়‌নি। বৃহস্পতিবার প্রথমবা‌রের ম‌তো বাংলাদেশি পণ্য রফতা‌নির মাধ্য‌মে এ স্থ‌বিরতার অবসান হ‌লো।

আপনার মতামত লিখুন :

বান্দরবানে অপহৃত আরেক চালককে মুক্তি দিয়েছে সন্ত্রাসীরা

বান্দরবানে অপহৃত আরেক চালককে মুক্তি দিয়েছে সন্ত্রাসীরা
মানচিত্রে বান্দরবান

বান্দরবানের রুমায় অপহরণের চারদিন পর অপহৃত আরেক জিপ চালক বাসু কর্মকারকে (৩২) মুক্তি দিয়েছে সন্ত্রাসীরা।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) দুপুরে তাকে মুক্তি দেওয়ার খবর পাওয়া গেছে। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গত সোমবার (১৯ আগস্ট) রুমা উপজেলার সদর ইউনিয়নের মিনজিরি পাড়ামুখ থেকে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা তিনটি জিপ গাড়ির গতিরোধ করে ৩ চালককে অপহরণ করে নিয়ে যায়। অপহরণের একদিন পর নয়ন জলদাস (২৯) এবং মো: মিজান (৩০) নামে দুজনকে মুক্তি দেয়। শুক্রবার অপহরণের চারদিন পর অপর জিপ চালক বাসু কর্মকার (৩২) ছেড়ে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা।

আরও পড়ুন: রুমায় অস্ত্রের মুখে জিপ গাড়ির ৩ চালককে অপহরণ

স্থানীয়দের দাবি, অস্ত্রের মুখে অপহৃত তিন জন জিপ চালকের মুক্তিপণ বাবদ সন্ত্রাসীরা ১০ লাখ টাকা দাবি করে। অনেক আলোচনার পর মোটা অংকের মুক্তিপণ দিয়েই ছাড়া পেয়েছেন অপহৃতরা।

তবে মুক্তিপণ দেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে রুমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) নজরুল ইসলাম জানান, সেনাবাহিনী-পুলিশের যৌথ অভিযানের মুখে অপহৃত ৩ জন জিপ চালককে ছেড়ে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের ধরতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

'সকল খুনীদের রক্ষক, পৃষ্ঠপোষক হচ্ছে বিএনপি-জামায়াত'

'সকল খুনীদের রক্ষক, পৃষ্ঠপোষক হচ্ছে বিএনপি-জামায়াত'
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাসদ সভাপতি ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি, ছবি: সংগৃহীত

 

সকল খুনিদের রক্ষক, পৃষ্ঠপোষক বিএনপি-জামায়াত বলে মন্তব্য করেছেন জাসদ সভাপতি ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি।

তিনি বলেন, ৭১’র খুনি, ৭৫’র খুনি, ২১ আগস্টের খুনি ও মানুষ পোড়ানোর সকল খুনিদের রক্ষক, পৃষ্ঠপোষক, আস্তানা ও ঠিকানা হচ্ছে বিএনপি-জামায়াত।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) দুপুরে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার তালবাড়িয়া ইউনিয়ন জাসদ আয়োজিত শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘যখন খোলা আদালতে খালেদা ও তারেকসহ সকল খুনিদের বিচার চলছে। তখন খুনিদের পক্ষে বিএনপির ওকালতি চোরের মার বড় গলার মতোই শোনা যাচ্ছে।’

এ সময় কেন্দ্রীয় জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন, কুষ্টিয়া জেলা জাসদ সভাপতি গোলাম মহসীন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম জামাল আহমেদসহ জাসদ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র