Barta24

সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬

English

নির্যাতিত ভাতিজিকে কটূক্তি, প্রতিবাদ করায় খুন হলেন চাচা

নির্যাতিত ভাতিজিকে কটূক্তি, প্রতিবাদ করায় খুন হলেন চাচা
নিহত যুবক/ছবি: বার্তা২৪.কম
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে ধর্ষণের শিকার এক স্কুলছাত্রীকে (৯) নিয়ে কটূক্তি করার প্রতিবাদ করায় তার চাচাকে হত্যা করেছেন আহাদ মিয়া নামে এক ব্যক্তি।

বুধবার (১ মে) রাত ৯টায় শ্রীমঙ্গল উপজেলার ভূনবীর ইউনিয়নের পশ্চিম লইয়ারকুল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) সোহেল রানা জানান, ধর্ষণের শিকার চতুর্থ শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীর মেয়ের বাবা ও চাচাকে দেখে রাতে নানা অশ্লীল মন্তব্য করেন আহাদ। তারা এর প্রতিবাদ করলে আহাদ তাদের ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান। এতে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়ে মেয়েটির চাচা সিরাজ মিয়ার মৃত্যু হয়। আহত অবস্থায় মেয়েটির বাবাকে উদ্ধার করে প্রথমে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে সেখান থেকে তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এর আগে মঙ্গলবার ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় জামাল মিয়া (২০) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আহাদ পশ্চিম লইয়ারকুল গ্রামের চেরাগ আলীর ছেলে। তিনি আটক যুবকের কোনও আত্মীয় নন। তবু কেন তিনি এমন করলেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তাকে গ্রেপ্তারে বিশেষ অভিযান চালানো হচ্ছে।

এদিকে রাত সাড়ে ১১টায় মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার মো. শাহজালাল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

এদিকে, হত্যাকারী আহাদকে ধরিয়ে দিলে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কারের ঘোষণা দিয়েছে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ।

 

আপনার মতামত লিখুন :

ফরিদপুরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত মসজিদ খাদেমের মৃত্যু

ফরিদপুরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত মসজিদ খাদেমের মৃত্যু
ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ছবি: সংগৃহীত

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (১৯ আগস্ট) সকাল ১০টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

নিহতের নাম দেলোয়ার হোসেন (৪৫)। সে শহরের পূর্ব খাবাসপুর এলাকায় বসবাস করতেন এবং পূর্ব খাবাসপুর জামে মসজিদের খাদেম হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি সদর উপজেলার নর্থচ্যানেল ইউনিয়নের শেখ শফিউদ্দিনের ছেলে।

এতে এই হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত ছয়জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে গত ৭২ ঘণ্টায় মারা গেছে তিনজন।

স্বজনরা জানান, গত শুক্রবার (১৬ আগস্ট) থেকে দেলোয়ার ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। গতকাল রোববার (১৮ আগস্ট) রাতে অবস্থার অবনতি হলে তাকে দ্রুত ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. কামদা প্রসাদ সাহা জানান, গুরুতর আহত অবস্থায় গতকাল রাত ১২টার দিকে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। তার অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি। ভোরে অবস্থার আরও অবনতি হওয়ার এক পর্যায়ে বেলা ১০টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

ফরিদপুরের সিভিল সার্জন ডা. এনামুল হক জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ফরিদপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে ৫৭ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে ৩৪৬ জন, চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ৭১২ জন, অন্য হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে ১৬০ জনকে। ২০ জুলাই থেকে এ পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত ভর্তি হয়েছে ১২২৪ জন। এ পর্যন্ত মারা গেছেন ছয়জন।

প্রসঙ্গত, গত ৭২ ঘণ্টায় ফরিদপুরে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (১৭ আগস্ট) সন্ধ্যা সাতটার দিকে মৃত্যুবরণকারী ওই রোগীর নাম ইউনুস শেখ (৫৫)। ইউনুস শেখ রাজবাড়ীর সুলতানপুর ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামের আয়নাল শেখের ছেলে।

ওইদিন সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ওই একই ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন মাগুরা সদর উপজেলার চাঁদপুর গ্রামের বাসিন্দা কৃষক মো. মিজানুর রহমানের ছেলে ও স্থানীয় সত্যজিৎপুর কলেজের মানবিক বিভাগে দ্বাদশ বর্ষের শিক্ষার্থী সুমন বাশার (২২) মারা যান।

গিনেস বুকে নাম লেখানো হলো না কানাই লাল শর্মার

গিনেস বুকে নাম লেখানো হলো না কানাই লাল শর্মার
কানাই লাল শর্মা। ছবি: সংগৃহীত

গিনেস বুকে নাম লেখানো হলো না সাঁতারু ডা. কানাই লাল শর্মার। ১৯৭১ সালে ঐতিহাসিক লালদিঘিতে ৯০ ঘণ্টা ১৭ মিনিট সাঁতার কেটে বিশ্ব রেকর্ড সৃষ্টি করেছিলেন তিনি।

সোমবার (১৯ আগস্ট) সকাল পৌনে ৯টার দিকে কুষ্টিয়া শহরতলীর মঙ্গলবাড়ীয়া এলাকায় নিজ বাসভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন কানাই লাল শর্মা।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর। তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে ও ৩ মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, দুপুর ১টার দিকে তাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হবে। দুপুর আড়াইটার সময় কুষ্টিয়া মহাশ্মশানে তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

১৯৩০ সালের ৭ নভেম্বর কুষ্টিয়ার হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের শালদহ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন কানাইলাল শর্মা। তার বাবা স্বর্গীয় অভিমন্যু শর্মা। কানাইলাল শর্মা পেশায় চিকিৎসক ছিলেন। কুষ্টিয়া শহরতলীর মঙ্গলবাড়ীয়া এলাকায় পরিবার নিয়ে থাকতেন তিনি। তার স্বপ্ন ছিল সাঁতারে গিনেস বুকে নাম লেখাবেন। তবে তার সে স্বপ্ন পূরণ হলো না।

আরও পড়ুন: গিনেস বুকে নাম লেখাতে চান কানাই লাল শর্মা

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র