Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

জয়পুরহাটে ট্রেনে কাটা পড়ে মাদরাসার অধ্যাপক নিহত  

জয়পুরহাটে ট্রেনে কাটা পড়ে মাদরাসার অধ্যাপক নিহত   
জয়পুরহাটে রেলক্রসিংয়ে পার হওয়ার সময় ট্রেনের ধাক্কায় দুমড়ে মুচড়ে যায় মোটরসাইকেল, এতে নিহত হন আরোহী, ছবি: বার্তা২৪.কম
ডিস্ট্রিক করেসপন্ডেন্ট
জয়পুরহাট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

জয়পুরহাট শহরের ডাক বাংলা মোড়ের রেলক্রসিং এলাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে আব্দুল গোফফার নামে এক মাদরাসা শিক্ষক নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে রেল গেটবিহীন ওই রেলক্রসিং দিয়ে মোটর সাইকেলে করে পার হওয়ার সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত আব্দুল গোফফার জয়পুরহাট শহরের সিদ্দিকীয়া কামিল মাদরাসার সহকারী অধ্যাপক ও সদর উপজেলার কড়ই গ্রামের মৃত সুজাত উল্ল্যাহর ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে জয়পুরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম জানান, জয়পুরহাট শহরের সুইপার কলোনি এলাকার রেলক্রসিং দিয়ে মোটর সাইকেলে শিক্ষক গোফফার রাস্তা পার হচ্ছিলেন।

এ সময় পঞ্চগড় থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী দ্রুতযান আন্তঃনগর ট্রেনের ধাক্কায় তার মোটরসাইকেলটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এতে ট্রেনের নিচে কাটা টড়ে গোফ্ফার মারা যায়।

 

আপনার মতামত লিখুন :

চুয়াডাঙ্গায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে গৃহবধূর মৃত্যু

চুয়াডাঙ্গায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে গৃহবধূর মৃত্যু
নিহত গৃহবধূকে ঘিরে স্বজনরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

চুয়াডাঙ্গায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে শ্যামলী বেগম (৩০) নামের এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দুপুরে সদর উপজেলার গবর গাড়া নতুন বাজারপাড়ায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত শ্যামলী বেগম নতুন বাজারপাড়ার শফি উদ্দিনের স্ত্রী।

স্থানীয়রা জানায়, দুপুরে বাড়ির রান্না ঘরের উপরে টিনের চালে কুমড়া পাড়তে উঠে শ্যামলী বেগম। এ সময় অসাবধানতা বসত সে বৈদ্যুতিক তারে হাত দিলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলে অসুস্থ হয়ে নিচে পড়ে যান। পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক (আরএমও) ডাক্তার শামীম কবীর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

‘স্থানীয়ভাবে রাজাকারদের তালিকা করা হবে’

‘স্থানীয়ভাবে রাজাকারদের তালিকা করা হবে’
ঠাকুরগাঁওয়ে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস সংরক্ষণ করতে স্থানীয়ভাবে রাজাকারদের তালিকা প্রস্তুত করে প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দুপুরে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের উদ্বোধন শেষে আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

মোজাম্মেল হক বলেন, ‘পাঠ্যপুস্তকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস অর্ন্তভুক্ত করা হয়েছে, আরও করা হবে। এছাড়াও এখন থেকে বিসিএস পরীক্ষায় ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নিয়ে ১০০ নম্বরের প্রশ্ন থাকবে।

এ সময় মন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের প্রকৃত তালিকা প্রস্তুত করতে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তা কামনা করেন। এর আগে সকালে এলজিইডির তত্ত্বাবধানে প্রায় দুই কোটি ২৪ লাখ টাকা ব্যয়ে এই ভবনটির উদ্বোধন করা হয়।

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঠাকুরগাঁও-১ আসনের সংসদ সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদ মুহা.সাদেক কুরাইশী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজুল ইসলাম, ভারপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বদরুদ্দোজা প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র