গরমে ঘরবন্দি কুষ্টিয়ার মানুষ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুষ্টিয়া
কুষ্টিয়ায় প্রচণ্ড গরমে আখের রস, ঠাণ্ডা পানি ও লেবুর শরবতে পান করে গরম নিবারণের চেষ্টা করছে মানুষ, ছবি: বার্তা২৪.কম

কুষ্টিয়ায় প্রচণ্ড গরমে আখের রস, ঠাণ্ডা পানি ও লেবুর শরবতে পান করে গরম নিবারণের চেষ্টা করছে মানুষ, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

তীব্র দাবদাহে পুড়ছে কুষ্টিয়া অঞ্চল। প্রায় এক সপ্তাহ ধরে বৃষ্টির দেখা নেই। প্রতিদিনই বাড়ছে তাপমাত্রা। শহর থেকে শুরু করে গ্রামীণ জীবন সর্বত্র হাসঁ ফাঁস অবস্থা মানুষের। প্রচণ্ড গরমে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে কুষ্টিয়ার জনজীবন। উচ্চ তাপমাত্রার ফলে হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে বাড়ছে রোগীদের ভিড়।

কুষ্টিয়া আবহাওয়া অফিস সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার (৯ মে) বিকেল ৩টা পর্যন্ত কুষ্টিয়ায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সাধারণ মানুষ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ।

এই রমজানে শহরের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে দেখা গেছে আখের তৈরি রস, ঠাণ্ডা পানি ও লেবুর শরবত বিক্রি বেড়েছে ভ্রাম্যমাণ দোকানগুলোতে। বিক্রি বেড়েছে ফলমূলের।

মশান বাজারের বাবু ফল ভাণ্ডারের মালিক বাবু ও জসিম জানান এই তীব্র এই গরমে ফলের আগ্রহ অনেক ক্রেতাদের বেশি। কারণ এই রমজান উপলক্ষে ফল ফ্রিজে রেখে ঠাণ্ডা করে শরবত পান করে তারাও উপকৃত হচ্ছেন।

মিরপুর উপজেলার মশান গ্রামের ভ্যানচালক রতন আলী বলেন,সকাল ১১টা পর্যন্ত ভাড়া মারতে পারছি। তারপর থেকে আর রাস্তায় ভ্যান নিয়ে নামতে পারছি না। বাতাসের সঙ্গে প্রখর রোদের তাপের কারণে ভ্যান চালাতে পারছি না।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. তাপস কুমার পাল জানান, প্রচণ্ড গরমে ঠাণ্ডা, জ্বর ও ডায়রিয়ার রোগী বাড়ছে। দাবদাহজনিত কারণে প্রধানত হিট স্ট্রোকের আশঙ্কা থাকে। এখন পর্যন্ত সেরকম রোগী ভর্তি হয়নি। তবে বেশ কিছু শ্বাস কষ্টজনিত ও পেটের সমস্যা নিয়ে রোগী ভর্তি হয়েছে। তিনি বলেন, এই গরমে বেশি পরিমাণে পানি, লেবু শরবত, বেলের শরবত এবং খাবার স্যালাইন খাওয়া ভালো।

আপনার মতামত লিখুন :