ছাত্রী ধর্ষণকারী শিক্ষক সাময়িক বহিষ্কার

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নাটোর
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কলেজে, ছবি: বার্তা২৪

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কলেজে, ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

নাটোরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কলেজের ইসলামের ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক আব্দুল জলিলকে ওই কলেজের এক ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় সাময়িক বহিষ্কার করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। কলেজ কর্তৃপক্ষের গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পেয়ে ওই শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিলে প্রাপ্ত জবাব 'অসন্তোষজনক' হওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।

গত ৬ই মে কলেজের গভর্নিং বডির এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। শিক্ষক আব্দুল জলিলের সাময়িক বহিষ্কারাদেশ আগামী ১৩ই মে থেকে কার্যকর হবে।

আরও পড়ুন: নাটোরে ধর্ষক শিক্ষককে বাঁচাতে অধ্যক্ষ-সভাপতির চেষ্টা

কলেজের অধ্যক্ষ মৌসুমী পারভীন শুক্রবার দুপুরে বার্তা ২৪ ডটকমকে জানান, নৈতিক শৃঙ্খলাজনিত অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় শিক্ষক আব্দুল জলিলকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। কলেজের শৃঙ্খলা ও সুনাম অক্ষুণ্ণ রাখার স্বার্থে এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১২ এপ্রিল নাটোর সদর উপজেলার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কলেজের ইসলামের ইতিহাসের শিক্ষক আব্দুল জলিলের স্ত্রী কলেজ অধ্যক্ষের কাছে স্বামীর বিরুদ্ধে ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগ করেন। অভিযোগে বলা হয়, তার অনুপস্থিতিতে স্বামী আব্দুল জলিল কলেজের এক ছাত্রীকে নাটোর শহরের উপশহর এলাকায় ভাড়া করা বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে ওই ছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করলে ওই ছাত্রীর চিৎকারে বাসার মালিক রক্তাক্ত অবস্থায় ছাত্রীটিকে উদ্ধার করেন। পরে অভিযোগ প্রাপ্তির পর কলেজ কর্তৃপক্ষ ৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্তকালে কমিটি ঘটনার সত্যতা পান।

আরও পড়ুন: শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রী ধর্ষণের সত্যতা মিলেছে

আরও পড়ুন: নাটোরে শিক্ষক স্বামীর বিরুদ্ধে ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগ স্ত্রীর

আপনার মতামত লিখুন :