Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে পোনা, উদাসীন কর্তৃপক্ষ

প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে পোনা, উদাসীন কর্তৃপক্ষ
ছবি: বার্তা২৪.কম
আব্দুস সালাম আরিফ
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
পটুয়াখালী


  • Font increase
  • Font Decrease

পটুয়াখালী শহরের প্রধান মাছের বাজার নিউ মার্কেটসহ বিভিন্ন হাট বাজারে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে পোনা। এসব পোনার সাইজ এক থেকে দেড় ইঞ্চি। যা দেড় থেকে দুইশ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হচ্ছে। তবে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলো এ বিষয়ে উদাসীন।

মৎস্য গবেষকরা মনে করছেন, এভাবে চলতে থাকলে ইলিশসহ অন্যান্য মাছের উৎপাদন হুমকির মুখে পড়বে।

জানা গেছে, নদী ও সাগর বেষ্টিত পটুয়াখালী জেলার অনেক মানুষ মাছ ধরার পেশার সঙ্গে জড়িত। এসব মানুষ সাগর এবং নদীতে জাল ফেলে মাছ শিকার করে। তবে এদের মধ্যে অসাধু একটি গ্রুপ নিষিদ্ধ ছোট ফাঁসের (বেহুন্দি/বাঁধা) জাল দিয়ে মাছ শিকার করছে। এতে ধরা পড়ছে ইলিশ, পোমা, পাঙাশ, তাপসিসহ বিভিন্ন মাছের পোনা। এমনকি মাছের ডিমও জালে আটকা পড়ছে। আর এসব মাছের পোনা বিভিন্ন হাট বাজারে নাম মাত্র মূল্যে বিক্রি হচ্ছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/11/1557566552002.gif

অনেক সময় বিক্রি করতে না পেরে নদীতে ফেলে দেয়া হচ্ছে। কিংবা হাঁস-মুরগির খাবার হিসেবে এসব মাছের পোনা খাওয়ানো হচ্ছে। প্রশাসন উদাসীন থাকায় বেহুন্দি/বাঁধা জালের ব্যবহার বন্ধ হচ্ছে না।

এদিকে পটুয়াখালী শহরের নিউ মার্কেট, পুরান বাজার, হেতালিয়া বাঁধঘাট বাজারে নিয়মিত প্রকাশ্যে এসব মাছের পোনা বিক্রি হতে দেখা যাচ্ছে। এ বিষয়ে বিক্রেতাদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলছেন, ‘যারা মাছ ধরছে, আপনারা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেন। আমরা বিক্রি করছি, আমাদের কাছ থেকে নিম্ন আয়ের মানুষ এসব মাছ কিনে খাচ্ছে।,

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/11/1557566724674.gif

এ বিষয়ে পটুয়াখালী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোল্লা এমদাদুল্লাহ জানান, ছোট ফাঁসের জালের ব্যবহার বন্ধ করতে এবং বাজারে যাতে এসব মাছ বিক্রি না হতে পারে এ জন্য বিভিন্ন সময় জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে। আগামীতে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মৎস্য বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক লোকমান হোসেন জানান, এসব ছোট ফাঁসের জালের ব্যবহারের ফলে মাছের পাশাপাশি পানিতে বসবাস করা বিভিন্ন কীটপতঙ্গ ধ্বংস হচ্ছে। এর ফলে পানির খাদ্য শৃঙ্খল বিভিন্ন ভাবে নষ্ট হচ্ছে। তাই এ বিষয়ে আইনের কঠোর প্রয়োগের পাশাপাশি সাধারণ মানুষ এবং জেলেদের সচেতন করার পরামর্শ দেন তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :

বাংলাবাজারের খালের উপর থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

বাংলাবাজারের খালের উপর থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
বাংলাবাজারের খালের উপর গড়ে ওঠা বেশ কয়েকটি স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। ছবি: বার্তা২৪.কম

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে খালের উপর গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দুপুরে উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের বাংলাবাজারের খালের উপর গড়ে ওঠা বেশ কয়েকটি স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।

জানা যায়, বাংলাবাজারের পশ্চিম পাশে কচ্ছপদের বাড়ি থেকে পূর্ব বাজার স্কুল গেইট পর্যন্ত ওই খালের উপর বেশ কয়েকটি স্থাপনা নির্মাণ করে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। মঙ্গলবার দুপুরে বাজারের জিরোপয়েন্ট থেকে স্কুল গেইট পর্যন্ত অন্তত ১০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563278483803.jpg

এই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইয়াছিন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইয়াছিন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে খালের উপর গড়ে ওঠা বেশ কয়েকটি বাণিজ্যিক স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। যেগুলো বাকি রয়েছে তা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে উচ্ছেদের ব্যবস্থা করা হবে।

পাসপোর্ট করতে এসে ভুয়া বাবাসহ রোহিঙ্গা নারী আটক

পাসপোর্ট করতে এসে ভুয়া বাবাসহ রোহিঙ্গা নারী আটক
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

কক্সবাজারে পাসপোর্ট করতে এসে ভুয়া বাবাসহ এক রোহিঙ্গা নারীকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বিকেলে কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- রোহিঙ্গা নারী ছেনুয়ারা বেগম (২১) ও আমির হোসেন। ছেনুয়ারা জামতলী রোহিঙ্গা শিবিরের কামাল উদ্দিনের মেয়ে। আর আমির চকরিয়ার খুটাখালীর পূর্ব হাজীপাড়ার বাক্কুম এলাকার ফজল আলীর ছেলে।

Cox's Bazar Rohinga

কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক আবু নঈম মাসুম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, আমির হোসেনের আসল মেয়ের নাম ফাতেমা খাতুন। ওই নামে ছেনুয়ারাকে ফাতেমার সব ডকুমেন্ট দিয়ে পাসপোর্ট করতে আনেন আমির। কিন্তু সন্দেহ হলে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এক পর্যায়ে ছেনুয়ারা নিজেকে রোহিঙ্গা বলে স্বীকার করেন। পরে দুইজনকে আটক করে পুলিশ।

এবিষয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদ উদ্দিন খন্দকার বলেন, তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র