Barta24

শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

English

ফ্রিজে রাখা গরুর মাংসে রক্ত মিশিয়ে বিক্রি!

ফ্রিজে রাখা গরুর মাংসে রক্ত মিশিয়ে বিক্রি!
ফ্রিজে মাংস ও রক্ত রাখা হয়েছে, ছবি: বার্তা২৪.কম
মনিরুজ্জামান বাবলু
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
চাঁদপুর


  • Font increase
  • Font Decrease

গরুর মাংস ব্যবসায়ীদের প্রতারণার নতুন ফাঁদ! চাঁদপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে গিয়ে বেরিয়ে এল ফ্রিজে রাখা গরুর মাংসে রক্ত মিশিয়ে বিক্রির গোপন রহস্য।

রোববার (১২ মে) বিকেলে চাঁদপুরে দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখা ও খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধে জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খানের নির্দেশনা অনুসারে ওয়্যারলেস বাজারে অভিযান পরিচালনা করা হয়।

ওই সময় ওয়্যারলেস বাজারের এক মাংসের দোকানের ডিপ ফ্রিজে একটি বালতিতে পুরনো রক্ত ও মাংস দেখতে পান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মোরশেদুল ইসলাম এবং মো উজ্জ্বল হোসেন।

জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গরুর মাংস বিক্রেতা বলেন, গরুর মাংস বিক্রি শেষে অবশিষ্ট মাংস ডিপ ফ্রিজে রাখা হয়। ফ্রিজে রাখলে ওই মাংস সাদা হয়ে যায়। পরদিন ফ্রিজে রাখা পুরনো রক্ত ছিটিয়ে দিয়ে তাজা গরুর মাংস বলে বিক্রি করা হয়।

ওই সময় অভিযানে ১৩টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ১২ হাজার ৫শ’ টাকা জরিমানা আদায় এবং ভবিষ্যতে এমন অপরাধ না করার জন্য সতর্ক করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মোরশেদুল ইসলাম জানান, মূল্য তালিকা না টানানো, মেয়াদোত্তীর্ণ দ্রব্য সংরক্ষণ, ফ্রিজে রাখা গরুর মাংসে মেশানোর জন্য পুরনো রক্ত ফ্রিজে সংরক্ষণ ও মেয়াদকালবিহীন প্যাকেট থাকায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ অনুযায়ী এ জরিমানা করা হয়েছে।

অভিযানের সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা মার্কেটিং অফিসার নিয়াজ মো. রেজাউল করীম ও পুলিশ।

আপনার মতামত লিখুন :

কৃষকের গুপ্তধন 'বইকচু'

কৃষকের গুপ্তধন 'বইকচু'
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার সবজি ভাণ্ডার হিসেবে পরিচিত ধাপেরহাট এলাকা। এই এলাকার ফসলি জমিতে বিভিন্ন সবজির পাশাপাশি চাষ করা হয় 'বইকচু'। এবার বইকচুর অধিক ফলন ও আশানারূপ দাম পাওয়ায় এ কচু যেন গুপ্তধনে পরিণত হয়েছে। কৃষকের মাঝে দেখা গেছে হাসির ঝিলিক।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট)  সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার ধাপেরহাট ইউনিয়নের ইসলামপুরস্থ গাছতলায় বসে ছকিনা বেওয়া, আজিরণ বিবি ও মরিয়ম বেগমসহ অনেকেই কচু পরিষ্কার করছেন।

তারা বলেন, আমরা সবাই শ্রমিক হিসেবে কাজ করছি। এক মণ কচু পরিষ্কার করলে ১৫০ টাকা মজুরি পাওয়া যায়। প্রতিদিন দুই থেকে আড়াই মণ কচু পরিষ্কার করে সন্তোষজনক হারে আয় করা যায়। তবে কচুর দাম কম হলে মজুরির দামও কম হয় বলে জানান তারা।

ছত্রগাছা গ্রামের কৃষক আকবর আলী জানায়, ধাপেরহাট এলাকায় আলু, পটল, করল্লা ও হলুদসহ বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলে চাষ করা হয়েছে বইকচু। গত বছরের তুলনা এবার কচুর চাষাবাদ অনেকটাই বেড়েছে। ফলনও হয়েছে বাম্পার। বাজারে বেড়ে গেছে কচুর কদর। এর ফলে কচু আবাদ করে আর্থিকভাবে লাভবান হওয়া সম্ভব হচ্ছে।

আলীনগর গ্রামের আরেক কচু চাষি ফরিদুল ইসলাম জানান, একবিঘা (৩৩ শতক) জমিতে কচু আবাদে খরচ হয় প্রায় ১০-১২ হাজার টাকা। যা থেকে প্রায় ৬০-৬৫ মণ কচু উৎপাদন করা যায়। এবারে উৎপাদিত কচু পাইকারি বিক্রি হচ্ছে প্রায় ১ হাজার টাকা মণ দামে। আশানারূপ দাম পাওয়ায় অনেকটাই লাভবান হচ্ছি।

সাদুল্লাপুর উপজেলা কৃষি অফিসার খাজানুর রহমান বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, কচুর মধ্যে রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ। তাই কচু চাষ করার জন্য কৃষকদের উৎসাহিত করা হয়। এবার কচুর দাম ভাল থাকায় কৃষকরা বেশ লাভবান হচ্ছেন। 

স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার চেষ্টা, স্বামী আটক

স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার চেষ্টা, স্বামী আটক
আটক হওয়া স্বামী, ছবি: সংগৃহীত

সিদ্ধিরগঞ্জে পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রীকে হত্যার উদ্দেশে পেটে ছুরিকাঘাত করার অভিযোগে স্বামী সোহাগ (৩৫) কে আটক করে গণধোলাই দিয়েছে এলাকাবাসী।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) দুপুর আড়াইটার দিকে মিজমিজি পূর্বপাড়া পাগলাবাড়ী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে সোহাগকে আটক করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ।

গুরুতর আহত অবস্থায় গৃহবধূ মুন্নি আক্তারকে (২৮) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুই সন্তানের জননীর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে দাবি করেছে স্বজনরা।

আটককৃত সোহাগ কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব থানা এলাকার ফজলুর রহমানের ছেলে। তিনি স্ত্রী সন্তান নিয়ে হালিম মোল্লার বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করতেন।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বাদশা আলম জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে সোহাগ তার স্ত্রী মুন্নি আক্তারের পেটে ছুরিকাঘাত করেছে। এ ঘটনায় স্বামী সোহাগকে আটক করা হয়েছে। উভয় পরিবারের সিদ্ধান্ত জেনে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র