Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

যৌতুক নয়, পরকীয়ার কারণেই বাল্যবধূ ফারজানা খুন

যৌতুক নয়, পরকীয়ার কারণেই বাল্যবধূ ফারজানা খুন
রকির হাতে খুন হন স্ত্রী ফারজানা ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
বগুড়া


  • Font increase
  • Font Decrease

যৌতুকের জন্য নয়, পরকীয়ার কারণেই বাল্য বিয়ের শিকার নববধূ ফারজানাকে (১৫) খুন করে তার স্বামী রকি হোসেন। পুলিশের হাতে গ্রেফতারের পর মঙ্গলবার (১৪ মে) দুপুরে আদালতের ১৬৪ ধারায় স্ত্রীকে হত্যার দায় স্বীকার করে রকি জবানবন্দী দেয়।

রকি বগুড়ার নন্দীগ্রাম থানার থালতা মাঝগ্রাম ইউনিয়নের মঞ্জুরুল ইসলামের ছেলে।

সোমবার (১৩ এপ্রিল) সকালে রকির বাড়ির পাশের বাঁশ ঝাড় থেকে তার স্ত্রী ফারজানার লাশ উদ্ধার করে নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের বাবা আবুল কালাম যৌতুকের দাবিতে তার মেয়েকে হত্যার অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার পরপরই পুলিশ কৌশলে রকি হোসেনকে গ্রেফতার করে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নন্দীগ্রাম থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নুর মোহাম্মদ বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘গ্রেফতারকৃত রকি তার জবানবন্দীতে উল্লেখ করেন যে, তার প্রথম স্ত্রী অন্য এক যুবকের সাথে পরকীয়া সর্ম্পক করে সাত মাস আগে স্বামী রকিকে তালাক দেয়। এরপর থেকে তার বিয়ে হচ্ছিল না। একমাস আগে পার্শ্ববর্তী আগাপুর গ্রামের আবুল কালামের মেয়ে ফারজানাকে বিয়ে করেন রকি।

বিয়ের সময় ২৫ হাজার টাকা যৌতুক দিতে চাইলেও তা বাকি রাখা হয়। যৌতুক না দেয়া নিয়ে রকি বা তার পরিবারের কোন আপত্তি ছিল না। বিয়ের পরপরই ফারজানা স্বামীর বাড়ি যেতে চাচ্ছিল না। খুনের দুই সপ্তাহ আগে রকি স্ত্রীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাকে বাড়িতে নিয়ে আসেন। স্বামীর বাড়িতে আসার পর থেকেই ফারজানা মোবাইল ফোনে অপর এক যুবকের সাথে প্রায় কথা বলতো। বিষয়টি নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রতিনিয়ত ঝগড়া হতো। এক পর্যায়ে ফারজানা সংসার করবে না বলে রকিকে জানিয়ে দেয়। দ্বিতীয় স্ত্রী চলে গেলে আবারও বিয়ে করা কঠিন হবে মর্মে ফারজানাকে বোঝানোর চেষ্টা করে স্বামী রকি।

রকির বর্ণনা অনুযায়ী রোববার (১২ মে) দিবাগত রাত একটার দিকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। তিনটার দিকে ঘুম থেকে জেগে দেখে বিছানায় স্ত্রী নেই, ঘরের দরজা খোলা। রকি বের হয়ে দেখে স্ত্রী ফারজানা কার সঙ্গে মোবাইলে কথা বলছে। এদৃশ্য দেখে রকি রাগের মাথায় ওড়না দিয়ে স্ত্রীর গলায় ফাঁস দেন। ফারজানা মাটিতে পড়ে গেলে তার বুকের উপর পা তুলে গলায় ফাঁস দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করেন।

সকালে ফারজানার লাশ পাওয়া গেলে প্রতিবেশীরা রকিকে নানা প্রশ্ন করতে থাকেন। একপর্যায়ে পুলিশ আসলে রকি কৌশলে পালিয়ে যান।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ আরও বলেন, ‘গ্রেফতারকৃত রকি আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করার পর নিশ্চিত হওয়া গেছে যৌতুকের জন্য নয়, পরকীয়ার কারণেই স্ত্রীকে সে একাই খুন করেছে।’

আপনার মতামত লিখুন :

সালিশ থেকে ধর্ষককে গ্রেফতার করল পাগলা পুলিশ

সালিশ থেকে ধর্ষককে গ্রেফতার করল পাগলা পুলিশ
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

স্কুল ছাত্রীর ধর্ষনের ঘটনা ধামাচাপা দিতে অনুষ্ঠিত গ্রাম্য সালিশ থেকে দিলু মিয়া (২৬) নামে এক ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে ময়মনসিংহের পাগলা থানার পুলিশ।

বুধবার (২১ আগস্ট) দুপুরে পাগলার মশাখালী ইউনিয়নের দড়িচাইর বাড়িয়া গ্রাম থেকে দুই সন্তানের জনক ও মামলার প্রধান আসামী দিলু মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়।

বিষয়টি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে নিশ্চিত করেছেন পাগলা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহিনুজ্জামান।

এ বিষয়টি মামলার তদন্ত অফিসার ফয়েজুর রহমান বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি, দড়িচাইর বাড়িয়া গ্রামের শাহজাহান কবীরের বাড়ির ধর্ষণ মামলার সমঝোতা সালিশের আয়োজন করে স্থানীয় ইউপি সদস্য গোলাম রব্বানী ও বদরুজ্জামান বুইদ্যা। সেখান থেকে দিলুকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি জানান, সোমবার বিকেলে মশাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেনীর ছাত্রীকে (১৩) বাড়িতে একা পেয়ে ধর্ষণ করে একই গ্রামের দিলু মিয়া ও আমিরুল ইসলাম। এরপর রাতেই ধর্ষিতার মা বাদি হয়ে পাগলা থানায় দু’জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে।

মঙ্গলবার পুলিশ হেফাজতে ১৩ বছর বয়সী ওই কিশোরীর ডাক্তারী পরীক্ষা ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সম্পন্ন করা হয়। বুধবার ঘটনাটি মিমাংসার জন্য ইউপি সদস্যসহ ১০-১২ জন ধর্ষিতার পরিবারকে চাপ প্রয়োগ করে। উপায় না পেয়ে ধর্ষিতার পরিবার সালিশ বৈঠকে বসে। ওই বৈঠক থেকে আসামীকে গ্রেফতার করা হয়।

বাংলাদেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে ২১ আগস্টের হামলা

বাংলাদেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে ২১ আগস্টের হামলা
জুনাইদ আহমেদ পলক/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

শুধুমাত্র আওয়ামী লীগকে নয়, এই বাংলাদেশকে নেতৃত্বশূন্য করার জন্যই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা করা হয়েছিল বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

বুধবার (২১ আগস্ট) দুপুরে নাটোরের সিংড়া উপজেলা হলরুমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী এবং ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত শহীদদের স্মরণে দোয়া ও আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতেই ২১ আগস্ট শেখ হাসিনার ওপর গ্রেনেড হামলা করা হয়েছিল। আমাদের প্রধান শত্রু সন্ত্রাস, মাদক ও দারিদ্রতা। আর এর জন্য আ’লীগকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। উন্নয়ন ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা অব্যাহত রাখতে হবে।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566410789446.jpg

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ওহিদুর রহমান শেখ সভায় সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, সিংড়া পৌরসভার মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস, থানা আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম আরিফ, আ.লীগ নেতা জিল্লুর রহমান, থানা যুবলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম, পৌর যুবলীগের সভাপতি সোহেল তালুকদার প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র