Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

গোপালগঞ্জে পানির জন্য এখন অন্য গ্রামে যেতে হয় না

গোপালগঞ্জে পানির জন্য এখন অন্য গ্রামে যেতে হয় না
ছবি: বার্তা২৪.কম
মাসুদুর রহমান
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
গোপালগঞ্জ


  • Font increase
  • Font Decrease

গোপালগঞ্জে আর্সেনিকের ঝুঁকি কমাতে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতায় চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে স্থাপন করা হচ্ছে আরও ৩ হাজার ২৩৭টি গভীর নলকূপ। আর এই গভীর নলকূপ স্থাপনের মাধ্যমে গোপালগঞ্জের পাঁচ উপজেলায় শহর থেকে গ্রাম পর্যায়ের সাধারণ মানুষ সুপেয় পানি পানের সুযোগ পাচ্ছে।

ইতোমধ্যে বসতবাড়ি থেকে শুরু করে স্কুল-কলেজ, মাদরাসা, মসজিদ, মন্দির, গির্জায় এখন পাওয়া যাচ্ছে আর্সেনিকমুক্ত সুপেয় পানি। এখন আর সুপেয় পানির জন্য এ গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে যেতে হয় না। নিজের বাড়িতে না থাকলেও পাশের বাড়িতেই রয়েছে গভীর নলকূপ (ডিপ-টিউবওয়েল)। বাড়ির মেয়েরাই পাশের বাড়ি থেকে অর্সেনিকমুক্ত খাবার পানি সংগ্রহ করতে পারছে।

গোপালগঞ্জ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি অর্থবছরে পানি সরবরাহে আর্সেনিক ঝুঁকি নিরসন প্রকল্পে ২ হাজার ১২টি গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে। এরমধ্যে গোপালগঞ্জ সদরে ৪৬৮টি, টুঙ্গিপাড়ায় ১০০টি, কোটালীপাড়ায় ২৮৪টি, কাশিয়ানীতে ৪৮৩টি এবং মুকসুদপুরে ৬৯৭টি।

এছাড়াও অগ্রাধিকার মূলক গ্রামীণ পানি সরবরাহ প্রকল্পে সাধারণ বরাদ্দ ও অতিরিক্ত মিলে ১ হাজার ৬৮টি গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে। এরমধ্যে গোপালগঞ্জ সদরে ১৭৮টি, টুঙ্গিপাড়ায় ১৭৮টি, কোটালীপাড়ায় ১৭৮টি, কাশিয়ানীতে ৩৫৬টি এবং মুকসুদপুরে ১৭৮টি। আগামী অর্থবছরে ৫ হাজার ৬শ সাব-মার্সিবল পাম্পসহ গভীর নলকূপ, ৪২টি গ্রামীণ পাইপ ওয়াটার সাপ্লাই প্রকল্প, ১০টি সিডকো প্লান্ট, ১০টি রিভার্স অসমোসিস প্লান্ট, ২ হাজার আর্সেনিক আয়রন রিমোভাল প্লান্টের চাহিদা পাঠানো হয়েছে।

গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার জালালাবাদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম সুপারুল আলম টিকে বলেন, ‘আমার ইউনিয়নে আরও অন্তত ২শ গভীর নলকূপের প্রয়োজন রয়েছে। এই ২শ গভীর নলকূপ স্থাপন করতে পারলে আমার ইউনিয়নের কোনো বাড়িতে আর্সেনিকমুক্ত সুপেয় পানির সমস্যা থাকবে না। আমি আমার ইউনিয়নে ২শ গভীর নলকূপ স্থাপন করার দাবি করছি।’

গোপালগঞ্জ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী দীপক চন্দ্র তালুকদার জানান, গোপালগঞ্জের পাঁচ উপজেলার ৬৮টি ইউনিয়নে সুপেয় পানি পানের সুবিধার জন্য চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে স্থাপন করা হচ্ছে আরও ৩ হাজার ২৩৭টি গভীর নলকূপ। আর এই গভীর নলকূপ স্থাপনের মাধ্যমে গোপালগঞ্জের পাঁচ উপজেলার শহর থেকে গ্রাম পর্যায়ের সাধারণ মানুষ সুপেয় পানি পানের সুযোগ পাচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :

বাংলাবাজারের খালের উপর থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

বাংলাবাজারের খালের উপর থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
বাংলাবাজারের খালের উপর গড়ে ওঠা বেশ কয়েকটি স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। ছবি: বার্তা২৪.কম

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে খালের উপর গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দুপুরে উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের বাংলাবাজারের খালের উপর গড়ে ওঠা বেশ কয়েকটি স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।

জানা যায়, বাংলাবাজারের পশ্চিম পাশে কচ্ছপদের বাড়ি থেকে পূর্ব বাজার স্কুল গেইট পর্যন্ত ওই খালের উপর বেশ কয়েকটি স্থাপনা নির্মাণ করে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। মঙ্গলবার দুপুরে বাজারের জিরোপয়েন্ট থেকে স্কুল গেইট পর্যন্ত অন্তত ১০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563278483803.jpg

এই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইয়াছিন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইয়াছিন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে খালের উপর গড়ে ওঠা বেশ কয়েকটি বাণিজ্যিক স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। যেগুলো বাকি রয়েছে তা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে উচ্ছেদের ব্যবস্থা করা হবে।

পাসপোর্ট করতে এসে ভুয়া বাবাসহ রোহিঙ্গা নারী আটক

পাসপোর্ট করতে এসে ভুয়া বাবাসহ রোহিঙ্গা নারী আটক
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

কক্সবাজারে পাসপোর্ট করতে এসে ভুয়া বাবাসহ এক রোহিঙ্গা নারীকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বিকেলে কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- রোহিঙ্গা নারী ছেনুয়ারা বেগম (২১) ও আমির হোসেন। ছেনুয়ারা জামতলী রোহিঙ্গা শিবিরের কামাল উদ্দিনের মেয়ে। আর আমির চকরিয়ার খুটাখালীর পূর্ব হাজীপাড়ার বাক্কুম এলাকার ফজল আলীর ছেলে।

Cox's Bazar Rohinga

কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক আবু নঈম মাসুম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, আমির হোসেনের আসল মেয়ের নাম ফাতেমা খাতুন। ওই নামে ছেনুয়ারাকে ফাতেমার সব ডকুমেন্ট দিয়ে পাসপোর্ট করতে আনেন আমির। কিন্তু সন্দেহ হলে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এক পর্যায়ে ছেনুয়ারা নিজেকে রোহিঙ্গা বলে স্বীকার করেন। পরে দুইজনকে আটক করে পুলিশ।

এবিষয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদ উদ্দিন খন্দকার বলেন, তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র