Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ফারাক্কার কারণে মৃতপ্রায় চার নদী, জীব-বৈচিত্রে বিরূপ প্রভাব

ফারাক্কার কারণে মৃতপ্রায় চার নদী, জীব-বৈচিত্রে বিরূপ প্রভাব
শুকিয়ে যাওয়া নদী, ছবি: বার্তা২৪.কম
ডিস্ট্রিক করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
চাঁপাইনবাবগঞ্জ


  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মালদহ ও মুর্শিদাবাদ জেলায় অবস্থিত ফারাক্কা ব্যারেজের নির্মাণ কাজ শেষ হয় ১৯৭৫ সালে। ওই বছর থেকেই ব্যারাজের মাধ্যমে পানি প্রবাহ নিয়ন্ত্রন করে ভারত। ফারাক্কার বিরুদ্ধে ১৯৭৬ সালের ১৬ মে মজলুম নেতা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী'র নেতৃত্বে ফারাক্কা অভিমুখে লংমার্চ করা হয়। সেই থেকে ১৬ মে ফারাক্কা দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

ফারাক্কার প্রভাবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পদ্মাসহ চার নদীই এখন মৃতপ্রায়। স্থানীয়রা বলছেন, নদীতে এখন পানির প্রবাহ নির্ভর করে ভারতের ইচ্ছা-অনিচ্ছার ওপর। শুষ্ক মৌসুমে পানি পাওয়া যায়না, আবার বর্ষায় হঠাৎ পানি ছেড়ে দিলে বন্যা এবং নদী ভাঙন দেখা দেয়। এদিকে পরিবেশবাদীরা বলছেন, নদী শুকিয়ে যাওয়ায় জীব-বৈচিত্রের ওপর মারত্মকভাবে বিরূপ প্রভাব পড়েছে।

পদ্মার চরের বাসিন্দারা জানান, ফারাক্কা ব্যারেজ নির্মাণের আগে, পদ্মায় ছিল থৈ থৈ পানি। ব্যারেজ নির্মাণের পর পানির প্রবাহ নিয়ন্ত্রিত হয়েছে। এখন ভারতের ইচ্ছার ওপর নির্ভর করে পদ্মার পানি প্রবাহের মাত্রা। শুষ্ক মৌসুমে কখনো কখনো নৌকাও চালানো যায়না এই নদীতে।

তাদের অভিযোগ, পদ্মার চর এলাকায় ইরি ধান, ভুট্টা, কলা, পটলসহ বিভিন্ন ফসল রয়েছে। কিন্তু যথা সময়ে পানি দিতে না পারায় কাঙ্খিত ফসল উৎপাদন নিয়ে সংশয় রয়েছে তাদের।

‘সেভ দ্য ন্যাচার’ চাঁপাইনবাবগঞ্জ’র প্রধান সমন্বয়কারী রবিউল হাসান ডলার জানান, স্থানীয় পরিবেশবাদীদের মতে পদ্মায় পানি না থাকায় পরিবেশের উপর পড়ছে বিরূপ প্রভাব। সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে উদ্ভিদ ও জীবচক্র। বিশেষ করে শুশুক ও ঘড়িয়ালের প্রজননস্থল পদ্মা নদী হওয়ায় এই প্রাণীদুটি হুমকির মুখে পড়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সাহেদুল আলম বলেন, ‘ফারাক্কা ব্যারেজের দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবের কারণে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পদ্মাসহ অন্য তিন নদী মহানন্দা, পাগলা ও পূণর্ভবা শুকিয়ে যাচ্ছে।’

পানি উন্নয়ন বোর্ডের এই কর্মকর্তা জানালেন, ব্যারেজ নির্মাণের পর পানি প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হওয়ায় নদীতে নাব্যতা সংকট দেখা দেয়। এখন প্রয়োজনীয় পানি পেলেও তা ধরে রাখা যায় না। আর ফারাক্কা ব্যারেজের দরজা হঠাৎ খুলে দেয়ার কারণে বন্যা ও নদী ভাঙন প্রবণতা বাড়ছে।

আপনার মতামত লিখুন :

সরিষাবাড়ীতে যুবককে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ

সরিষাবাড়ীতে যুবককে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ
গলা কাটা চক্রের সদস্য সন্দেহে যুবককে গণপিটুনি

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে গলা কাটা চক্রের সদস্য সন্দেহে রুবেল মিয়া (৩২) নামে এক যুবককে গাছের সঙ্গে বেঁধে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয়রা।

রোববার (২১ জুলাই) দুপুরে উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের কান্দারপাড়া বাজার জামে মসজিদ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সরিষাবাড়ী উপজেলার তারাকান্দি যমুনা সার কারখানা এলাকায় রুবেল মিয়া (৩২) নামে ওই ব্যক্তি সকাল থেকে ঘোরাফেরা করতে থাকেন। দুপুর ২টার দিকে কান্দারপাড়া বাজার জামে মসজিদ এলাকার চা দোকানদার গোলাপ আলীর চায়ের দোকানে তিনি চা পান শেষে মসজিদে নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় স্থানীয় লোকজন তাকে গলা কাটা চক্রের সদস্য হিসেবে সন্দেহ করে গাছের সঙ্গে বেঁধে গণপিটুনি দেয়।

পরে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান, ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান, ইসাহাক আলী, ইমাম শরীফ উদ্দিনসহ কতিপয় লোকজন তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে খবর দেন।

খবর পেয়ে তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এস আই ইউনুস আলী ও সঙ্গীয় পুলিশ সদস্যরা রুবেলকে মসজিদের ভিতর থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করেন। পরে তাকে জেএফসিএল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে যান।

রুবেল মিয়অর দেহ তল্লাশি করে টুপি, আতর, পান, জর্দ্দা, ও কয়েকটি ঘুমের বড়ি পায় পুলিশ।

আটক যুবক টাঙ্গাইল জেলা ভুয়াপুর উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের কষ্টাপাড়া গ্রামের মৃত গফুর মিয়ার ছেলে। তিনি পরিবার-পরিজনের কাছ থেকে বিতাড়িত। চুরি, ভিক্ষা ও প্রতারণা করাই তার রুবেলের কাজ বলে জানান তার বড় ভাই নুরুজ্জামান মিয়া।

জানতে চাইলে সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ মাজেদুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে কোন মামলা হয়নি। আটক ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থার নেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

আমিনবাজারে ব্রিজ থেকে পড়ে গেছে যাত্রীবাহী ট্যাক্সি

আমিনবাজারে ব্রিজ থেকে পড়ে গেছে যাত্রীবাহী ট্যাক্সি
ঘটনাস্থল

রাজধানীর সাভারের আমিনবাজার এলাকায় ব্রিজ থেকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি ট্যাক্সি ক্যাব নদীতে পড়ে গেছে বলে জানা গেছে।

রোববার (২১ জুলাই) রাত ৮টার দিকে আমিনবাজারের সালেহপুর ব্রিজে ট্যাক্সি ক্যাবটি পড়ে যায় বলে স্থানীয়দের উদ্ধৃতি দিয়ে সাভার থানা পুলিশ বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

এ বিষয়ে সাভার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এএফএম সায়েদ জানান, ট্যাক্সি ক্যাবটি উদ্ধার করতে ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট কাজ করছে।

তিনি বলেন, 'স্থানীয়দের মুখে এ বিষয়ে শুনেছি, কিন্তু বিষয়টি নিয়ে আমরা এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি। ট্যাক্সি ক্যাবে চালক ছাড়া যাত্রী ছিল কি না তাও জানা যায়নি।'

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র