Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

সাভারে ভোজ্য পণ্য তৈরির প্রতিষ্ঠানকে ১২ লাখ টাকা জরিমানা

সাভারে ভোজ্য পণ্য তৈরির প্রতিষ্ঠানকে ১২ লাখ টাকা জরিমানা
ভেজাল খাদ্য প্রতিরোধে র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত, ছবি: বার্তা২৪
উপজেলা করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা (সাভার)


  • Font increase
  • Font Decrease

সাভারে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে ভোজ্য পণ্য তৈরি, মেয়াদোত্তীর্ণ খাবার মজুদ রাখাসহ প্রতারণার অভিযোগে একটি প্রতিষ্ঠানকে ১২ লাখ টাকা জরিমানা করেছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার (২০ মে) দুপুরে হেমায়েতপুরের বাগবাড়ি ট্যানারি রোড এলাকায় প্রিন্স ফুড প্রডাকটস লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে এই জরিমানা করা হয়।

র‌্যাব-৪ (সিপিস-২) এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার নিজাম উদ্দিন এর নেতৃত্ব অভিযান পরিচালনা করা হয়।

র‌্যাব-৪ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আব্দুল্লাহ বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘হেমায়েতপুরের প্রিন্স ফুড নামে একটি কারখানায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে ভোজ্য পণ্য তৈরির গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এসময় কারখানায় উৎপাদিত মিষ্টি ও দইয়ের মধ্যে মশা, মাছি ও ময়লার আস্তরণ পাওয়া যায়। এছাড়া অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে নুডুলস ও সেমাই তৈরি এবং পচা পুদিনা ও ধনে পাতা দিয়ে বিভিন্ন ধরণের সস তৈরির সত্যতা মেলে।

একই সাথে কারখানার কোয়ালিটি কন্ট্রোল ল্যাবে মজুদকৃত ভোজ্য পণ্য তৈরির সব ধরণের রিএজেন্ট (বিকারক) মেয়াদোত্তীর্ণ অবস্থায় পাওয়া যায়। যার অধিকাংশের মেয়াদ ২০১৩ সালে শেষ হয়ে গেছে। যা সম্পূর্ণ নিরাপদ খাদ্য আইনের ধারার বহির্ভূত বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার তৈরি, মেয়াদোত্তীর্ণ খাবার মজুদ ও প্রতারণা সহ বিভিন্ন অভিযোগে কারখানাটির মালিক ও ম্যানেজারকে ১২ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। একই সঙ্গে কারখানার যে সব সেকশনে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ পাওয়া গেছে তা আগামী ৭ দিনের মধ্যে উপযোগী করে তোলারও নির্দেশনা দেওয়া হয় বলেও জানান তিনি।

 

আপনার মতামত লিখুন :

প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশের এএসআই ক্লোজড

প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশের এএসআই ক্লোজড
এএসআই পলাশ, ছবি: সংগৃহীত

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) পলাশকে ক্লোজ (প্রত্যাহার) করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) দামুড়হুদা থানায় ওই তরুণী ধর্ষণের অভিযোগ করলে শনিবার (২২ জুন) এএসআই পলাশকে দামুড়হুদা থানা থেকে প্রত্যাহার করে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ লাইনে যুক্ত করা হয়।

বুধবার (২৬ জুন) রাতে বার্তা২৪.কমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান।

জানা গেছে, এএসআই পলাশ জীবননগর থানায় থাকাকালে ওই এলাকার এক মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। প্রেমের সুবাদে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই মেয়ের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে আসছিলেন তিনি। দামুড়হুদা থানায় যোগদানের পর গত ১৮ জুন এএসআই পলাশ থানা থেকে ছুটি নিয়ে ওই মেয়ের সঙ্গে সিরাজগঞ্জে ঘুরতে যান। ওখানে একটি বাসায় দম্পতি পরিচয়ে দুই দিন থাকার পর চুয়াডাঙ্গায় ফিরে আসেন তিনি। এ দুই দিনে ওই মেয়ে বিয়ের জন্য চাপ দিলে পলাশ তাতে রাজি হননি। কোনো উপায় না পেয়ে অবশেষে বৃহস্পতিবার থানায় লিখিতভাবে ধর্ষণের অভিযোগ করেন ওই তরুনী। অভিযোগ পাওয়ার পর পলাশকে দামুড়হুদা থানা থেকে ক্লোজ করা হয়।

বর্তমানে ঘটনাটি তদন্তন্তের জন্য জেলা পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলেও জানান পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান।

কানে ট্যাগ লাগিয়ে বেওয়ারিশ গরু নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ

কানে ট্যাগ লাগিয়ে বেওয়ারিশ গরু নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ
হলুদ রঙের এ ট্যাগ লাগানো হবে গরুর কানে, ছবি: বার্তা২৪.কম

পটুয়াখালী শহরের বিভিন্ন অলিগলিতে বেওয়ারিশ ভাবে ঘুরে বেড়ানো গরুর মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে গরুর কানে বিশেষ ধরনের ট্যাগ লাগানোর উদ্যোগ নিয়েছে পটুয়াখালী পৌরসভা কর্তৃপক্ষ।

এর ফলে গরুর মালিকানা নির্ধারণ করে ঘুড়ে বেড়ানো গরুগুলোর মালিকদের কাছ থেকে প্রথমে আর্থিক জরিমানা আদায় করা হবে। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে পরে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পটুয়াখালী পৌরসভার মেয়র মহিউদ্দিন আহমেদ জানান, শহরে কয়েকশ’ গরু দিনে এবং রাতে বেওয়ারিশ ভাবে ঘোরাফেরা করে রাস্তায় মলমূত্র ত্যাগ করে পরিবেশ নষ্ট করছে। এছাড়া এসব গরু বিভিন্ন সড়ক এবং বাসা বাড়ির গাছ পালা খেয়ে সাধারণ মানুষের ক্ষতি করছে, বিঘ্ন ঘটাচ্ছে যান চলাচলে। বিভিন্ন সময় গবাদিপশু আটক করলেও মালিকরা তা আর নিতে আসেন না। এজন্য পশুর খাবার এবং পরিচর্যা নিয়ে ভোগান্তিতে পড়তে হয়।

আর সে কারণেই এখন থেকে বেওয়ারিশ গরু আটক করে গরুর কানে নম্বর যুক্ত ট্যাগ লাগানো হবে। একাধিকবার জরিমানার পর মালিকদের বিরুদ্ধে পৌরসভার বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে, গত কয়েক বছর ধরে পটুয়াখালী শহরের কিছু মানুষ গবাদিপশু না বেঁধে খোলা ভাবে লালন পালন করছে। এর ফলে সাধারণ মানুষকে নানা ধরনের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। বিভিন্ন সভা সেমিনার এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে মেয়রের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র