Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

পাকা ধান নিয়ে চিন্তার ভাঁজ কৃষকের কপালে

পাকা ধান নিয়ে চিন্তার ভাঁজ কৃষকের কপালে
ধানের আটিঁ নিয়ে বাড়ি ফিরছে কৃষক। ছবি: বার্তা২৪.কম
মাসুদুর রহমান
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
গোপালগঞ্জ


  • Font increase
  • Font Decrease

গোপালগঞ্জে বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে দাম কম হওয়ায় হাসি নেই কৃষকের মুখে। তাছাড়া ধান কাটার জন্য এ বছর রয়েছে শ্রমিক সংকট। ফলে সোনার ফসল নিয়ে বিপাকে পড়েছে কৃষকরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরে গোপালগঞ্জে ৭৭ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে। জেলার অধিকাংশ জমির ধান পেকে গেলেও শ্রমিক সংকট এবং তাপদাহের কারণে ধান কাটা সম্ভব হচ্ছে না। তবে ফলন ভালো হলেও কম দামে বিক্রি হচ্ছে কৃষকদের কষ্টার্জিত ধান।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/23/1558595940569.jpg

জেলার বিভিন্ন অঞ্চলের কৃষকরা জানান, এ বছর প্রতি বিঘা জমিতে ৪০-৫০ মণ ধান হয়েছে। কিন্তু বাজারে এখন ধানের দাম উৎপাদন খরচের থেকেও কম। তাছাড়া আগে গোপালগঞ্জে ধান কাটার মৌসুমে বাগেরহাট, ফরিদপুর, যশোর, সাতক্ষীরাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে শ্রমিকরা আসতেন এবং ধানের বিনিময়ে কাজ করতেন। কিন্তু ধানের স্বল্পমূল্যের কারণে অন্য জেলার শ্রমিকরা এ বছর আসেননি। সব মিলিয়ে পাকা ধান নিয়ে কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে কৃষকদের।

গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) হরলাল মধু বলেন, ‘আমাদের পরামর্শ নিয়ে অধিকাংশ কৃষকরা এ বছর ব্রি-২৮ জাতের ধান চাষ করেছেন। এবার ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে।’

ধান কাটা প্রসঙ্গে তিনি জানান, বর্তমানে মিনি কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন বাজারে এসেছে। যা কৃষকরা সমিতির মাধ্যমে কিনতে পারেন। এতে শ্রমিক সংকটের যে সমস্যা, তা দূর হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

ডেঙ্গুতে বাস সুপারভাইজারের মৃত্যু

ডেঙ্গুতে বাস সুপারভাইজারের মৃত্যু
মৃত নাজিম উদ্দিন, ছবি: সংগৃহীত

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে নাজিম উদ্দিন নামে এক বাস সুপারভাইজারের মৃত্যু হয়েছে।

রোববার (১৮ আগস্ট) রাত ৪টা ৪৫ মিনিটে ঢাকার ইউনিভার্সাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। 

নিহত নাজিম উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের গনিপুর গ্রামের মনির মিয়ার বাড়ীর রুহুল আমিনের ছেলে। তিনি ঢাকা-নোয়াখালী রুটের হিমাচল পরিবহনে সুপারভাইজার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। 

নিহত নাজিমের চাচা সহিদ উদ্দিন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, বেশ কয়েকদিন যাবৎ গায়ে জ্বর নিয়েও নাজিম ঈদ শেষে মানুষদের কর্মস্থলে পৌঁছানোর জন্য কাজে যায়।

গতকাল বাড়িতে এসে তার শরীরে ভীষণ ব্যথা ও গায়ে প্রচণ্ড জ্বর অনুভব করে। একপর্যায়ে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাকে দ্রুত স্থানীয় রাবেয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করলে তার ডেঙ্গুর ভাইরাস ধরা পড়ে। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকার বেসরকারি ইউনিভার্সাল হাসপাতালের আইসিউতে স্থানান্তর করা হয়।

রোববার সকালে পরিবারের লোকজন তার মরদেহ গ্রামের বাড়ীতে নিয়ে আসে। বিকেলে তাকে পারবিারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

সৈকতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

সৈকতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার
কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে গোসল করতে গিয়ে নিখোঁজ হওয়ার কিছুক্ষণ পর রবিউল হাসান (১২) নামের এক স্কুলছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করেছে লাইফগার্ড ও বিচ কর্মীরা।

রোববার (১৮ আগস্ট) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সৈকতের কলাতলী পয়েন্ট থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত রবিউল কলাতলীর ঝিরঝিরি পাড়ার শামসুদ্দিনের ছেলে। সে কলাতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র বলে জানা গেছে।

বিচ কর্মী মাহবুব আলম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, কলাতলী পয়েন্টে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে নিখোঁজ হয় রবিউল। এরপর লাইফগার্ড ও বিচ কর্মীরা উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে তার মৃতদেহ উদ্ধার করে। পরে তা সদর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদ উদ্দিন খন্দকার বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘মৃতদেহ উদ্ধারের পর কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে আনা হয়। পরবর্তী ব্যবস্থা শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র