Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

‘ডাক্তারের কাছে অনুরোধ করার পরও অক্সিজেন খুলে নেয়’

‘ডাক্তারের কাছে অনুরোধ করার পরও অক্সিজেন খুলে নেয়’
ভুল চিকিৎসায় রোগী মারা যাওয়ার অভিযোগে স্বজনদের রাস্তা অবরোধ, ছবি: সংগৃহীত
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
টাঙ্গাইল


  • Font increase
  • Font Decrease

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসকের অবহেলায় মুকুল আকন্দ (৫২) নামের এক রোগীর মৃত্যু হওয়ায় দোষী‌দের শাস্তির দাবি জা‌নি‌য়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে নিহতের স্বজনরা।

শুক্রবার (২৪ মে) দুপু‌রে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিহতের ছোট ভাই হুমায়ন আকন্দ রশিদ সোনা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/24/1558686753027.jpg
প্রেসক্লাবে রোগীর স্বজনদের সংবাদ সম্মেলন, ছবি: সংগৃহীত

 

এ সময় তিনি বলেন, ‘বৃহস্পতিবার বিকেলে শ্বাস-কষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে বড় ভাই মুকুল আকন্দকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের ৪ নং ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার ভাইকে রেফার্ড করা হয়। এ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করতে গেলে হাসপাতালে কর্তব্যরত সজিব নামের চি‌কিৎসক অক্সিজেন খুলে দেয়। বার বার অনুরোধ করার পরও সে অক্সিজেন আর দেয়নি। অক্সিজেন দিতে অস্বীকৃতি জানায় কর্তব্যরত স্টাফরাও। এর পর ছটফট করতে করতে মারা যায় আমার ভাই।

ঘটনার প্রতিবাদ করলে পরিবারের সদস্যদের একটি কক্ষে আটকে রেখে ডা. সজিবের নেতৃত্বে ১৫-২০ স্টাফ ও ইন্টার্ন শিক্ষার্থীরা আমাকে, নিহতের বড় ছেলে মাসুদ আকন্দ, মেঝো ছেলে রাসেল আকন্দ, নিহতের বউ হাসিনা বেগম, ভাগ্নে মিলন আকন্দ, ভাগ্নি মুক্তি, ভগ্নিপতি শামুসর রহমান এবং প্রতিবেশী শাহাদত হোসেনকে মারধর করেন।

এরপর ডাক্তার, স্টাফ ও ইন্টার্ন শিক্ষার্থীদের শাস্তির দাবিতে আমরা লাশ নিয়ে শহরের বিভিন্ন জায়গায় ও টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ মিছিল করি। শুক্রবার আমার বড় ভাইয়ের দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘চিকিৎসকদের অবহেলা ও ভুল চিকিৎসার কারণে আমার মতো আর কারো যেন ভাই হারাতে না হয় সেই কামনা করছি।’

আপনার মতামত লিখুন :

প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশের এএসআই ক্লোজড

প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশের এএসআই ক্লোজড
এএসআই পলাশ, ছবি: সংগৃহীত

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এসআই) পলাশকে ক্লোজ (প্রত্যাহার) করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) দামুড়হুদা থানায় ওই তরুণী ধর্ষণের অভিযোগ করলে শনিবার (২২ জুন) এএসআই পলাশকে দামুড়হুদা থানা থেকে প্রত্যাহার করে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ লাইনে যুক্ত করা হয়।

বুধবার (২৬ জুন) রাতে বার্তা২৪.কমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান।

জানা গেছে, এএসআই পলাশ জীবননগর থানায় থাকাকালে ওই এলাকার এক মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। প্রেমের সুবাদে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই মেয়ের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে আসছিলেন তিনি। দামুড়হুদা থানায় যোগদানের পর গত ১৮ জুন এএসআই পলাশ থানা থেকে ছুটি নিয়ে ওই মেয়ের সঙ্গে সিরাজগঞ্জে ঘুরতে যান। ওখানে একটি বাসায় দম্পতি পরিচয়ে দুই দিন থাকার পর চুয়াডাঙ্গায় ফিরে আসেন তিনি। এ দুই দিনে ওই মেয়ে বিয়ের জন্য চাপ দিলে পলাশ তাতে রাজি হননি। কোনো উপায় না পেয়ে অবশেষে বৃহস্পতিবার থানায় লিখিতভাবে ধর্ষণের অভিযোগ করেন ওই তরুনী। অভিযোগ পাওয়ার পর পলাশকে দামুড়হুদা থানা থেকে ক্লোজ করা হয়।

বর্তমানে ঘটনাটি তদন্তন্তের জন্য জেলা পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলেও জানান পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান।

কানে ট্যাগ লাগিয়ে বেওয়ারিশ গরু নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ

কানে ট্যাগ লাগিয়ে বেওয়ারিশ গরু নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ
হলুদ রঙের এ ট্যাগ লাগানো হবে গরুর কানে, ছবি: বার্তা২৪.কম

পটুয়াখালী শহরের বিভিন্ন অলিগলিতে বেওয়ারিশ ভাবে ঘুরে বেড়ানো গরুর মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে গরুর কানে বিশেষ ধরনের ট্যাগ লাগানোর উদ্যোগ নিয়েছে পটুয়াখালী পৌরসভা কর্তৃপক্ষ।

এর ফলে গরুর মালিকানা নির্ধারণ করে ঘুড়ে বেড়ানো গরুগুলোর মালিকদের কাছ থেকে প্রথমে আর্থিক জরিমানা আদায় করা হবে। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে পরে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পটুয়াখালী পৌরসভার মেয়র মহিউদ্দিন আহমেদ জানান, শহরে কয়েকশ’ গরু দিনে এবং রাতে বেওয়ারিশ ভাবে ঘোরাফেরা করে রাস্তায় মলমূত্র ত্যাগ করে পরিবেশ নষ্ট করছে। এছাড়া এসব গরু বিভিন্ন সড়ক এবং বাসা বাড়ির গাছ পালা খেয়ে সাধারণ মানুষের ক্ষতি করছে, বিঘ্ন ঘটাচ্ছে যান চলাচলে। বিভিন্ন সময় গবাদিপশু আটক করলেও মালিকরা তা আর নিতে আসেন না। এজন্য পশুর খাবার এবং পরিচর্যা নিয়ে ভোগান্তিতে পড়তে হয়।

আর সে কারণেই এখন থেকে বেওয়ারিশ গরু আটক করে গরুর কানে নম্বর যুক্ত ট্যাগ লাগানো হবে। একাধিকবার জরিমানার পর মালিকদের বিরুদ্ধে পৌরসভার বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে, গত কয়েক বছর ধরে পটুয়াখালী শহরের কিছু মানুষ গবাদিপশু না বেঁধে খোলা ভাবে লালন পালন করছে। এর ফলে সাধারণ মানুষকে নানা ধরনের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। বিভিন্ন সভা সেমিনার এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে মেয়রের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র