Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

রাজবাড়ীর শত বছরের লাল ভবন ভাঙার সিদ্ধান্ত

রাজবাড়ীর শত বছরের লাল ভবন ভাঙার সিদ্ধান্ত
রাজবাড়ীর ঐতিহ্যবাহী লাল ভবন, ছবি: বার্তা২৪
সোহেল মিয়া
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
রাজবাড়ী


  • Font increase
  • Font Decrease

রাজবাড়ী শহরের প্রাণকেন্দ্রে ১৮৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় রাজবাড়ী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। বিদ্যালয়ে প্রবেশ করতেই হাতের বাম পাশে চোখে পড়বে দেড়শ বছরের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের লাল ভবন। কালের আবর্তনে বিদ্যালয়ের অবকাঠামোতে ব্যাপক পরিবর্তন আসলেও সেই ছোঁয়া লাগেনি এই লাল ভবনে। ফলে ভবনটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখনও একই রূপে দাঁড়িয়ে আছে।

ভবনটির সাথে জড়িয়ে রয়েছে রাজবাড়ীবাসীর সুখ-দুখের স্মৃতি। কিন্তু হঠাৎ করে ভবনটিকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে। এখন ভবনটি ভেঙে সেখানে নতুন ভবন তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কিন্তু কর্তৃপক্ষের এ সিদ্ধান্তে এলাকাবসীর মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। তাই ভবনটি রক্ষা করতে তারা ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ সরব। এমনকি কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত না বদলালে আত্মাহুতির হুমকিও দিয়েছন বিদ্যালয়ের প্রাক্তন কয়েকজন শিক্ষার্থী।

Rajbari Red Building

ইতোমধ্যে একুশে পদকপ্রাপ্ত চিত্রশিল্পী ও চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) অধ্যাপক মনসুর উল করিমকে সমন্বয়ক করে ‘ঐতিহ্য সংরক্ষণ আন্দোলন রাজবাড়ী’ নামে একটি সংগঠনও গড়ে উঠেছে। অধ্যাপক মনসুর উল করিম বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘বৃহত্তর ফরিদপুরের মধ্যে এটিই প্রথম মাধ্যমিক পর্যাযের বিদ্যালয়। সেক্ষেত্রে নিঃসন্দেহে এটি অনেক গুরুত্ব বহন করে। তাছাড়া রাজবাড়ীবাসীর ইতিহাস আর ঐতিহ্য বহন করে আসছে এই ভবনটি। এই ভবনটির সাথে জড়িয়ে আছে এলাকার মানুষের সুখ-দুঃখ।’

তিনি বলেন, ‘নতুন ভবন তৈরির নামে পুরাতন ঐতিহ্যবাহী ভবন ভেঙে ফেলা অযৌক্তিক। আমরাও চাই রাজবাড়ী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের অবকাঠামোর উন্নয়ন হোক। কিন্তু সেটি আমাদের গর্ব, ইতিহাস ও ঐতিহ্য ধ্বংস করে নয়। কারণ বিদ্যালয়ের জায়গার কোনো অভাব নেই। আমরা চাই প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ এটি সংরক্ষণ করুক।’

Rajbari Red Building

‘আমরা চাই কর্তৃপক্ষ তাদের এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসুক। তা না হলে আমরা রাজপথে আন্দোলন গড়ে তুলবো। আর এটি হবে আমাদের নিজেদের অস্থিত্ব রক্ষার আন্দোলন। নতুন প্রজন্মের মাঝে কালের স্বাক্ষী হয়ে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকুক ভবনটি।’

রাজবাড়ীর ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মো. আলমগীর হুসাইন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আমাদের জানিয়েছে, ভবনটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। যেকোনো মুহূর্তে ধসে যেতে পারে এবং বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। সেই প্রেক্ষিতে ভবনটির বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অধিদপ্তরকে অবগত করেছি। তবে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে সবাইকে আন্দোলন থেকে সরে আসা উচিৎ।’

Rajbari Red Building

প্রসঙ্গত, ১৮৭১ সালে মাইনর স্কুল দিয়ে এটির যাত্রা শুরু হয়। ১৮৯২ সালে তা পূর্ণরূপ পায়। সেবছর তৎকালীন গোয়ালন্দ মহকুমার বাণীবহ এস্টেটের জমিদার গিরিজা শংকর মজুমদার ও অভয় শংকর মজুমদার রাজবাড়ীর সজ্জনকান্দা মৌজায় দি গোয়ালন্দ ইংলিশ হাই স্কুল নাম দিয়ে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। পরে নাম পরিবর্তন করে গোয়ালন্দ মডেল হাই স্কুল এবং সর্বশেষ রাজবাড়ী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় নামকরণ করা হয়।

কয়েক বছর আগেও কর্তৃপক্ষ এই লাল ভবনটি ভেঙে ফেলার উদ্যোগ নেয়, কিন্তু তীব্র আন্দোলনের মুখে তখন ভবনটি রক্ষা পায়। সর্বশেষ ৯ মে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃপক্ষ ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে সেটি ফের ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। আর তাতেই ফুঁসে উঠেছে রাজবাড়ীবাসী। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে শুরু হওয়া আন্দোলন এখন রাজপথে এসে নেমেছে।

আপনার মতামত লিখুন :

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়ায় পারাপারের অপেক্ষায় ৫ শতাধিক যানবাহন

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়ায় পারাপারের অপেক্ষায় ৫ শতাধিক যানবাহন
পাটুরিয়ায় ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় শতাধিক যানবাহন

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটের মাঝপদ্মার ডুবোচরে দীর্ঘ সময় দুই ফেরি আটকে থাকা ও বৈরী আবহাওয়ায় ফেরি চলাচল বন্ধ থাকার কারণে যানবাহনের দীর্ঘ সারি রয়েছে নৌরুটের উভয় ফেরিঘাট এলাকায়।

আটকে থাকা যানবাহনের মধ্যে পণ্যবাহী ট্রাকের সংখ্যাই বেশি বলে জানিয়েছেন ফেরিঘাট কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) দুপুর পৌনে ২ টা পর্যন্ত পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে পারাপারের জন্য বাস, ট্রাক ও ছোট গাড়ি মিলিয়ে ৫ শতাধিক যানবাহন অপেক্ষামান রয়েছে বলে জানান বিআইডব্লিউটিসি আরিচা ও দৌলতদিয়া কার্যালয়ের দায়িত্বরত কর্মকর্তারা।

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের বাণিজ্য বিভাগের সহকারী মহাব্যবস্থাপক জিল্লুর রহমান বার্তা২৪.কমকে জানান, বৈরী আবহাওয়ার কারণে ভোর সাড়ে ৫টা থেকে সকাল সাড়ে ৭টা পর্যন্ত ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। এছাড়াও সকাল ৯ টায় পদ্মা নদীর ডুবোচরে আটকা পড়ে বড় দুটি ফেরি।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/27/1561624386905.jpg
এর মধ্যে ফেরি আমানত শাহ যাত্রী ও যানবাহন নিয়ে পাটুরিয়ামুখী ছিলো। আর ফেরি শাহ মখদুম ছিল দৌলতদিয়ামুখী। আটকেপড়া ফেরি দুটির মধ্যে সকাল ১১ টায় উদ্ধার হয় ফেরি আমানত শাহ। আর দুপুর দেড়টার দিকে উদ্ধার হয় ফেরি শাহ মখদুম।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের বাণিজ্য বিভাগের সহকারী ব্যবস্থাপক আব্দুল্লাহ জানান, পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুটে ছোট বড় মিলে ২০টি ফেরি রয়েছে। এর মধ্যে তিনটি ফেরি মেরামতে ও একটি মাওয়া ঘাটে রয়েছে। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ছোট-বড় মিলে এখন ১৬টি ফেরি দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে।

তবে সকালের দিকে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকার কারণে দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় অপেক্ষামান যানবাহনের সারি দীর্ঘ হতে থাকে। সবশেষ দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় বাস, ট্রাক ও ছোট গাড়ি মিলে দুই শতাধিক যানবাহন নৌরুট পারের অপেক্ষায় রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার আজমল হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, বৈরী আবহাওয়ায় ফেরি চলাচল বন্ধ ও ডুবোচরে ফেরি আচকে থাকার কারণে পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকায় যানবাহনের দীর্ঘ সারি নৌরুট পারের অপেক্ষায় রয়েছে।

সবশেষ পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকায় বাস, ট্রাক ও ছোট গাড়ি মিলে ৩ শতাধিক যানবাহন নৌরুট পারের অপেক্ষায় রয়েছে বলে জানান তিনি।

নুসরাত হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু

নুসরাত হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু
নুসরাত জাহান রাফি / ছবি: সংগৃহীত

ফেনীর সোনাগাজীর মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) দুপুরে ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদের আদালতে এ সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়। অভিযোগ গঠনের ছয়দিনের মাথায় ৯২ জন সাক্ষীর মধ্যে আজ ৩ জন সাক্ষী আদালতে তাদের সাক্ষ্য উপস্থাপন করবেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী শাহজাহান সাজু বলেন, নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী আজ মামলার বাদী নুসরাতের ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান, নুসরাতের বান্ধবী নিশাত ও সহপাঠী নাসরিন সুলতানা ফুর্তি সাক্ষ্য দিচ্ছেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২০ জুন) আদালত সাক্ষ্যগ্রহণের আদেশ দেন। ওইদিন মামলার ১৬ আসামির পক্ষে জামিন আবেদন করেন তাদের আইনজীবীরা। শুনানি শেষে আদালত তাদের আবেদন নামঞ্জুর করে ২৭ জুন সাক্ষ্যগ্রহণ শুরুর দিন ঠিক করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র