Barta24

শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬

English

কানসাটে ২৫ মণ আম ধ্বংস, তিন জনের কারাদণ্ড

কানসাটে ২৫ মণ আম ধ্বংস, তিন জনের কারাদণ্ড
কেমিকেল মেশানোর অভিযোগে কানসাটে ২৫ মণ আম ধ্বংস
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
চাঁপাইনবাবগঞ্জ


  • Font increase
  • Font Decrease

জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃত পাওয়া খিরসাপাত আমে কেমিকেল মেশানোর অভিযোগে ২৫ মণ আম ধ্বংস করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে আমের মালিক ও শ্রমিককে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন-মোবারকপুর ইউনিয়নের হাফিজুর রহমানের ছেলে মালিক সেবারুল ইসলাম, কান্তিনগর গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে কবির হোসেন ও টিকরি বটতলা হাটের আবুল হোসেনের ছেলে মজিবর রহমান।

শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চৌধুরী রওশন ইসলাম জানান, আজ শনিবার (২ মে) বিকেলে এসআই আরিফের নেতৃত্বে একদল পুলিশ উপজেলার মোবারকপুর এলাকার সেবারুল ইসলামের আম আড়তে অভিযান চালিয়ে কেমিকেল মেশানো অবস্থায় হাতেনাতে তাকে আটক করে।

পরে ঘটনাস্থলে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে আমের মালিক সেবারুল ইসলামকে ছয় মাস, তার সহযোগী শ্রমিক কবির ও মজিবুরকে একমাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয় এবং জব্দকৃত আমগুলো কেরোসিন মিশিয়ে কানসাট ব্রীজের নিচে পানিতে ফেলে দেয়া হয়।

এ সময় শিবগঞ্জ থানার ওসি শিকাদার মো.মশিউর রহমান, ওসি তদন্ত সেলিম রেজা উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :

খেলার সময় পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

খেলার সময় পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু
ছবি: প্রতীকী

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে ফুফু বাড়ি বেড়াতে এসে পুকুরের পানিতে ডুবে রঞ্জন চন্দ্র সেন (৯) নামে এক শিশু মারা গেছে।

শনিবার (১৭ আগস্ট) দুপুরে উপজেলার শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের বার্ডের হাট সেনপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মৃত রঞ্জন চন্দ্র সেন পার্শ্ববর্তী জেলা লালমনিরহাট সদর উপজেলার বড়বাড়ী ইউনিয়নের গযেন চন্দ্র সেনের ছেলে।

নিহতের পরিবার জানায়, রঞ্জন চন্দ্র সেন মায়ের সঙ্গে ফুফু বাড়িতে বেড়াতে আসে। সেখানে খেলাধুলা করার সময় বাড়ির পাশে পুকুরে পড়ে যায় সে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

ফুলবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার ফুয়াদ রুহানী এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

শাহজাদপুরে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি ২২ বছর পর গ্রেফতার

শাহজাদপুরে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি ২২ বছর পর গ্রেফতার
গ্রেফতার হওয়া পলাতক আসামি, ছবি: সংগৃহীত

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি সিদ্দিকুর রহমান (৫৫)কে ২২ বছর পর গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (১৭ আগস্ট) ভোরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পাবনার ফরিদপুর থানার ডেমরা গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি সিদ্দিকুর রহমান উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়নের রাউতারা গ্রামের মৃত আরজান আলীর ছেলে।

শাহজাদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আতাউর রহমান মামলার বরাত দিয়ে জানান, গার্মেন্টসকর্মী সাথী খাতুন (১৬) কে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি সিদ্দিকুর রহমান (৫৫) কে ২২ বছর পর গ্রেফতার করা হয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে পাবনা জেলার ফরিদপুর থানার ডেমরা গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।  

তিনি আরো জানান, রাজমিন্ত্রী সিদ্দিকুর রহমান শাহজাদপুর পৌর সদরের দিলরুবা বাসস্ট্যান্ড এলাকার সিদ্দিকুর রহমানের মেয়ে সাথী খাতুন (১৬) কে বেশি বেতনে গার্মেন্টসে চাকরি দেয়ার লোভ দেখিয়ে ১৯৯৫ সালের ৩০ অক্টোবর ঢাকায় নিয়ে যায়। এরপর ১ বছর অজ্ঞাতস্থানে আটকে রেখে তাকে অসংখ্যবার ধর্ষণ করে সে। ১৯৯৬ সালের ২৪ নভেম্বর ধর্ষণে বাধা দিলে শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যা করে।

তিনি আরো জানান, এ ঘটনায় নিহত সাথীর মা জবেদা খাতুন(৩৬) বাদী হয়ে ১৯৯৭ সালের ৬ মার্চ সিরাজগঞ্জর নারী ও শিশুনির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনাল আদালতে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে মামলা দায়ের করে। এরপর থেকেই আসামি সিদ্দিকুর রহমান পলাতক ছিল। তার অনুপস্থিতিতেই ১৯৯৭ সালের ২৬ মার্চ শাহজাদপুর থানা পুলিশ আদালতে চার্জশীট দাখিল করে। এরপর এ মামলার ৬ জন স্বাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে ২০১২ সালের ২৬ জানুয়ারি সিরাজগঞ্জের নারী ও শিশুনির্যাতন দমনের বিশেষ ট্রাইব্যুনাল আদালতের তৎকালীন বিচারক আকবর হোসেন মৃধা যাবজ্জীবন রায় প্রদান করেন।

ওসি আতাউর রহমান আরো জানান, এ হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই আসামি সিদ্দিকুর রহমান পলাতক ছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে পাবনা জেলার ফরিদপুর থানার ডেমরা গ্রাম গ্রেফতার করা হয়।

তিনি বলেন, পুলিশ দীর্ঘদিন ধরে তাকে খুঁজছিল। কিন্তু বারবার তার অবস্থান পরিবর্তন করায় তাকে এতোদিন গ্রেফতার করা সম্ভব হচ্ছিল না।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র