Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

এবারও ভারতীয় পোশাকের চাহিদা বেশি ঝিনাইদহে

এবারও ভারতীয় পোশাকের চাহিদা বেশি ঝিনাইদহে
ঈদ উপলক্ষে জমে উঠছে ঝিনাইদহের মার্কেটগুলো, ছবি:বার্তা২৪.কম
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঝিনাইদহ


  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে ততই জমে উঠছে ঝিনাইদহের মার্কেটগুলো। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত শহরের বিপনী বিতানগুলোতে চলছে বেচাকেনা। নানা আয়ের মানুষের সাধ্যমত পছন্দের পোশাক কিনতে ভিড় করছেন দোকানগুলোতে। নগরীর ফুটপাতগুলোতেও সমানতালে চলছে বেচাকেনা।

সরেজমিনে জানা যায়, শহরের গীতাঞ্জলী সড়ক, পৌর মার্কেট, মুন্সী মার্কেট, বঙ্গবাজার, জামান সুপার মার্কেট, সাদাতিয়া মার্কেটসহ ৬ টি উপজেলা শহরের মার্কেট, শপিং মল, ফ্যাশন হাউস ও বিপনী বিতানগুলো ক্রেতা সমাগমে মুখর হয়ে উঠেছে। বাহারি পোশাক আর নতুন ডিজাইনের পোশাকের পসরা সাজিয়ে বসেছেন দোকানীরা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/27/1558919322623.jpg

তবে দেশী পোশাকের চেয়ে এবারও ভারতীয় পোশাকের চাহিদা বেশি। ছেলেদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে টি-শার্ট ও পাঞ্জাবী। গৃহিণী ও বধূরা ভারতের বিভিন্ন সিনেমা ও নায়িকার নামের শাড়ির দিকে ঝুঁকছেন বেশি। বিভিন্ন নামের পাথর আর চুমকির কারুকাজ করা গাঢ় রঙের এসব শাড়িতে বাজারের দোকানগুলো ভরে গেছে।

শহরের কাঞ্চননগর থেকে আসা সুফিয়া খাতুন নামের এক ক্রেতা বলেন, পরিবারের সকল সদস্যের জন্য পোশাক কিনতে এসেছি। তবে গত বছরের থেকে এ বছর পোশাকের দাম বেশি। এছাড়াও একই পোশাকের দাম একেক দোকানে একেই রকম বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

চাকলাপাড়া থেকে আসা নাসিমা খাতুন বলেন, আমরা মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষ। অল্প বাজেটের মধ্যে ঈদের কেনাকাটা করতে হবে। তবে দেশি অনেক ভালো মানের কাপড় রয়েছে।

এদিকে বিক্রেতারা জানিয়েছে, এ বছর ভারতীয় সুতির থ্রি-পিসের চাহিদা বেশি। পছন্দের শীর্ষে রয়েছে গঙ্গা, মাঈসা, বিবেক, বর্ষা, লেডি গাউন। দামও হাতের নাগালে রয়েছে।https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/27/1558919351474.jpg

শহরের গীতাঞ্জলী সড়কের পাকিজা গার্মেন্টেসের স্বত্বাধিকারী মধু মিয়া বলেন, এবার ঈদের পোশাকে দেশীয় ডিজাইনের থেকে ভারতীয় পোশাকের চাহিদা বেশি। আর ক্রেতাদের হাতের নাগালে দাম রয়েছে। এক হাজার টাকা থেকে শুরু করে ২০ হাজার টাকার পোশাক বিক্রি হচ্ছে।

ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিলু মিয়া বিশ্বাস বলেন, ঈদের কেনাকাটা নির্বিঘ্ন করতে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সকল প্রকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতিটি মার্কেটে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়াও সাদা পোশাকে পুলিশ টহল দিচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :

মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে শিশু নাহিদ

মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে শিশু নাহিদ
নাহিদুজ্জামান নাহিদ, ছবি: সংগৃহীত

সড়ক দুর্ঘটনায় বাবা-মাসহ পরিবারের পাঁচ সদস্যকে হারিয়ে ভাগ্যগুণে বেঁচে যাওয়া তিন বছরের শিশু নাহিদুজ্জামান নাহিদ মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। রাজধানী ঢাকার অ্যাপেলো হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন আছে শিশুটি। দুর্ঘটনায় আহত নাহিদের চোয়ালের হাড় ভেঙে গেছে। আগামী সোমবার (১৯ আগস্ট) তার সার্জারি অস্ত্রোপচার করবেন চিকিৎসকরা।

রোববার (১৮ আগস্ট) রাতে বার্তা২৪.কমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নাহিদের চাচা নুরুজ্জামান।

নাহিদের বাড়ি নেত্রকোনার জেলার দূর্গাপুরে। তার বাবা রফিকুজ্জামান নরসিংদী জেলার একটি টেক্সটাইল মিলের মালিক।

গত ১৬ আগস্ট শুক্রবার নাহিদের পরিবার প্রাইভেটকারযোগে এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে ময়মনসিংহ কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের গাও রামগোপালপুর এলাকায় যাত্রীবাহী এমকে সুপার নামের একটি বাস ওভারটেক করতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রাইভেটকারটিকে চাপা দেয়। এ সময় প্রাইভেটকারটি দুমড়েমুচড়ে যায়।

আরও পড়ুন: গৌরীপুরে বাস-প্রাইভেটকার সংঘর্ষ: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫

দুর্ঘটনায় নাহিদের মা শাহীনা আক্তার বাবা রফিকুজ্জামান, বড় ভাই নাদিম মাহমুদ, বোন রওনক জাহান ও মামা জিসান কবীর আশরাফ প্রাণ হারান। ভাগ্যগুণে বেঁচে যায় শিশু নাহিদ ও চালক স্বপন মিয়া।

নাহিদ রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন। চালক স্বপন মিয়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

অপরদিকে দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো নাহিদের বাবা-মা, ভাই-বোন ও মামাকে শনিবার নেত্রকোনার দূর্গাপুরে দাফন করা হয়েছে। সব হারানো নাহিদ এখন তার দাদা-দাদির তত্ত্বাবধানেই থাকবে।

নাহিদের চাচা নুরুজ্জামান বলেন, ‘নাহিদ এখনো আইসিইউতে আছে। তার শরীরে বিভিন্ন স্থানে ক্ষত হয়েছে। এখনো জ্ঞান ফেরেনি। চিকিৎসকরা বলেছেন আমাদের ধৈর্য ধরতে। সবাই আমাদের নাহিদের জন্য দোয়া করবেন।’


এদিকে, মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় শুক্রবার রাতে বাসের চালককে (অজ্ঞাতনামা) আসামি করে গৌরীপুর থানায় মামলা করেছেন রফিকুজ্জামানের ছোট ভাই নুরুজ্জামান। কিন্তু পুলিশ রোববার রাত সোয়া ১০টা পর্যন্ত আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেননি।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুল ইসলাম মিয়া বলেন, ‘মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে।’

মতলবে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় পথচারী নিহত

মতলবে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় পথচারী নিহত
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

চাঁদপুরের মতলবে চলন্ত মোটরসাইকেলের ধাক্কায় সুধীর চন্দ্র দাস (৭০) নামে এক পথচারী নিহত হয়েছেন।

রোববার (১৮ আগস্ট) বিকেলে উপজেলার সটাকী-ষাটনল বেড়িবাঁধ সড়কের উপর এ ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী ফতুয়াকান্দি গ্রামের আমিন উদ্দিনের ছেলে আরমান (১৫) ও একই গ্রামের আবু সুফিয়ানের ছেলে নাজমুল (২৩) গুরুতর আহত হয়েছেন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে মতলব উত্তর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

স্থানীয়রা জানান, বিকালে সটাকী মালোপাড়া গ্রামের মৃত সুরিন্দ্র চন্দ্র দাসের ছেলে সুধীর চন্দ্র দাস বাড়ি থেকে বের হয়ে রাস্তা পারাপারের সময় বিপরীতমুখী মোটরসাইকেল এসে তাকে ধাক্কা দেয়। এতে তার মুখমণ্ডলে মারাত্মক জখম হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আকলিমা জাহান তাকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত দুই জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

মতলব উত্তর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হানিফ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, 'ঘটনার সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। মোটর সাইকেলটি থানার হেফাজতে রাখা হয়েছে।'

অপরদিকে থানার এসআই মিজানুর রহমান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে সুধীর চন্দ্রের মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর মর্গে পাঠানো হবে বলে থানায় নিয়ে যান।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র