Alexa

বার্তা২৪.কম-এ সংবাদ প্রকাশ

হুইল চেয়ার পেল প্রতিবন্ধী জান্নাতি

হুইল চেয়ার পেল প্রতিবন্ধী জান্নাতি

হুইলচেয়ার পেয়ে খুশি শিশু জান্নাতির পরিবার / ছবি: বার্তা২৪

মাল্টিমিডিয়া অনলাইন নিউজ পোর্টাল বার্তা২৪.কমে সংবাদ প্রকাশে হুইল চেয়ার পেল গাইবান্ধার সাদুল্লপুরের শারীরিক প্রতিবন্ধী শিশু জান্নাতি খাতুন।

‘প্রতিবন্ধী জান্নাতির খোঁজ রাখেনি কেউ’ শিরোনামে বার্তা২৪.কমে প্রকাশিত সংবাদটি সাহারুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তির নজরে আসে। এরপর ফলশ্রুতিতে জান্নাতিকে একটি হুইল চেয়ার দেন তিনি।

সাহারুল ইসলাম গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার তালুক জামিরা গ্রামের তোফাজ্জল হক সরকারের ছেলে। তিনি ঢাকা শিক্ষা ভবনের প্রকৌশলী অধিদফতরের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে কর্মরত।

মঙ্গলবার (২৭ মে) বিকেলে সাদুল্লাপুরের নাগবাড়ী বাজারস্থ জান্নাতিকে হুইল চেয়ারটি তুলে দেন বার্তা২৪.কমের গাইবান্ধা প্রতিনিধি তোফায়েল হোসেন জাকির। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ধাপেরহাট প্রেসকাবের সাধারণ সম্পাদক ছোলায়মান সরকার।

চেয়ারটি হাতে পেয়ে প্রতিবন্ধী জান্নাতির বাবা হেলাল মিয়া ও দাদি বেলী বেওয়ার মুখে ফুটে ওঠে হাসির ঝিলিক। তবে একটি ভাতা কার্ডের আকুতি রয়েই গেল তাদের।

হেলাল মিয়া বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘ইতোপূর্বে জান্নাতি খাতুনের জন্য একটি হুইল চেয়ার ও ভাতা সুবিধা পাওয়ার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও কোনো ফল পাওয়া যায়নি। আজ হুইল চেয়ার পেয়ে আমি অনেক খুশি।’

উল্লেখ্য, গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপেরহাট ইউনিয়নের হাসানপাড়া গ্রামের ভ্যান চালক হেলাল মিয়ার মেয়ে প্রতিবন্ধী জান্নাতি খাতুন (৬)। জন্মলগ্ন থেকেই জান্নাতির দু’পা অতি চিকন, তেড়াবাঁকা ও দুর্বল। নিজের
পায়ে ভর দিয়ে চলতে পারেনা জান্নাতি খাতুন। অর্থাৎ যাকে বলা হয় শারীরিক প্রতিবন্ধী। পিতা হেলাল মিয়ার বসতভিটা ব্যতিত কোনো জায়গা জমি নেই। মাতা পারভীন বেগম।

প্রতিবন্ধী জান্নাতির চিকিৎসা সেবার অর্থ যোগানের জন্য অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করেন পারভিন। নানা অভাব অনটনে দিন কাটে হেলাল মিয়ার। এর মধ্যে দিয়ে প্রতিবন্ধী শিশুকন্যা জান্নাতিকে সুস্থ করতে বিভিন্ন ভাবে চিকিৎসা অব্যহত রেখেছেন। ইতোমধ্যে চিকিৎসা বাবদ প্রায় তিন লক্ষাধিক টাকা ব্যয় করা হয়েছে। তবে কিছুতেই উন্নতি হচ্ছে না জান্নাতির।

আরও পড়ুন: প্রতিবন্ধী জান্নাতির খোঁজ রাখেনি কেউ!

আপনার মতামত লিখুন :