Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

ঈদে নতুন টাকা থেকে বঞ্চিত রাজবাড়ীর গ্রাহকরা

ঈদে নতুন টাকা থেকে বঞ্চিত রাজবাড়ীর গ্রাহকরা
ছবি: সংগৃহীত
সোহেল মিয়া
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
রাজবাড়ী


  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বাংলাদেশ ব্যাংক ১৭ হাজার কোটি টাকার নতুন নোট বাজারে ছাড়লেও বঞ্চিত হচ্ছেন রাজবাড়ীর ৩০ হাজার গ্রাহক। আর নতুন নোট না পেয়ে ক্ষুব্ধ তারা।

জানা গেছে, কালোবাজারে নতুন টাকা পাওয়া গেলেও স্থানীয় জনতা, কৃষি ও অগ্রণী ব্যাংকে নতুন টাকা মিলছে না। তবে সোনালী ব্যাংক বালিয়াকান্দি শাখা কর্তৃপক্ষ কিছু নতুন নোট গ্রাহকের দিয়েছেন।

গ্রাহকদের দাবি, সারাবছর ব্যাংকে লেনদেন করে যদি বিশেষ দিনে নতুন টাকা না পায় তাহলে একটু খারাপই লাগে। ব্যাংক কর্মকর্তারা নিজেদের মধ্যে নতুন টাকাগুলো ভাগ করে নেন। আর ব্যাংক কর্মকর্তাদের দাবি, তারা না পেলে গ্রাহকদের কিভাবে দেবেন? তবে গ্রাহকদের অভিযোগের যৌক্তিকতা আছে।

ব্যাংক কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ঈদ উপলক্ষে বাংলাদেশ ব্যাংক নতুন টাকা বাজারে ছাড়লেও তা তাদের শাখাতে এসে পৌঁছায় না।

কেন পৌঁছায় না জানতে চাইলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন ব্যাংক কর্মকতা বার্তা২৪.কমকে জানান, যখন বাংলাদেশ ব্যাংক বাজারে নতুন টাকা ছাড়ে তখনই সেগুলো কালোবাজারে চলে যায়। কারণ ব্যাংকে টাকা না পাওয়া গেলেও ফুটপাতে হকারদের কাছে ঠিকই নতুন টাকা পাওয়া যায়। তাই বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে খতিয়ে দেখা উচিত। কারণ এই কাজে অসাধু ব্যবসায়ীরা জড়িত।

কৃষি ব্যাংক বালিয়াকান্দি শাখা ব্যবস্থাপক ওবায়দুল্লাহ বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘আমার শাখাতে নিয়মিত লেনদেন করেন প্রায় ৪ হাজার গ্রাহক। অথচ আমি কোনোবারই তাদের নতুন টাকা দিতে পারি না। কারণ এখানে নতুন টাকা আসে না। তবে বিশেষ অনুরোধে এবার সোনালী ব্যাংক বালিয়াকান্দি শাখা আমাদের কিছু নতুন নোট দিয়েছে।’

অগ্রণী ব্যাংক নলিয়া জামালপুর শাখা ব্যবস্থাপক মেহেদী হাসান বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘আমরা ফরিদপুর মেইন ব্রাঞ্চে টাকা সাপ্লাই দেয়। তারা আমাদেরকে না দেওয়া পর্যন্ত আমরা গ্রাহকদেরকে দিতে পারছি না। আমার শাখাতে প্রায় ১২ হাজার গ্রাহক রয়েছেন। তার মধ্যে ৫-৬ হাজার গ্রাহক নিয়মিত লেনদেন করেন।’

কৃষি ব্যাংক ফরিদপুর কর্পোরেট শাখার সহকারি মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) মীর্জা জাহিদ বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘সোনালী ব্যাংক আমাদেরকে যে নতুন টাকা দেয় সেটা দিয়ে কর্পোরেটদের চাহিদাই মেটে না। তাহলে অন্য গ্রাহকদের কিভাবে দেব।’

তিনি আরও বলেন, ‘অনেক সময় বন্ধু-স্বজনরা নতুন টাকার আবদার করে। কিন্তু দিতে না পারায় লজ্জায় তাদের সামনে যেতে পারি না। অনেক সময় হকারদের কাছ থেকে বেশি দামে নতুন নোট কিনে কয়েকজনকে দিই।’

সোনালী ব্যাংক বালিয়াকান্দি শাখা ব্যবস্থাপক আনোয়ার হোসেন বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘আমার শাখাতে প্রায় ১৪ হাজার গ্রাহক রয়েছে। ঈদ উপলক্ষে চাহিদার তুলনায় নতুন টাকার নোট পেয়েছি খুবই কম। তারপরও সবাইকে অল্প করে নতুন নোট দিয়েছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘মফস্বলে ১০-২০ টাকার নতুন নোটের চাহিদা বেশি। কিন্তু আমাদের দেওয়া হয় ১০০ টাকার নোট, যা গ্রাহকরা নিতে চান না।’

সোনালী ব্যাংক থেকে নতুন টাকার নোট পাওয়া গ্রাহক জিয়াউর রহমান বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘এবার আমি ১০ টাকার একটি নতুন বান্ডিল নিতে পেরেছি। ফলে খুবই ভালো লাগছে। পরিবারে ছোটদের সেলামি হিসাবে টাকাগুলো বিতরণ করবো।’

তবে নতুন টাকা না পাওয়ায় গ্রাহক রিজু ক্ষোভ প্রকাশ করে বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘এখানের ব্যাংকগুলোতে নাকি নতুন টাকা আসে না। এটা যদি সত্য হয় তাহলে আমি বাংলাদেশ ব্যাংককে অনুরোধ করবো মফস্বলের ব্যাংকগুলোতে যেন ঈদের আগে নতুন টাকা পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হয়।’

আপনার মতামত লিখুন :

লালমনিরহাটে বজ্রপাতে ২ শিক্ষার্থীসহ আহত ১০

লালমনিরহাটে বজ্রপাতে ২ শিক্ষার্থীসহ আহত ১০
হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় বজ্রপাত্রে আহত একজন, ছবি: বার্তা২৪.কম

লালমনিরহাটের ৫ উপজেলায় বজ্রপাতে ২ শিক্ষার্থীসহ ১০ জন আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার (২৫জুন) রাত সাড়ে ১০টার দিকে মুষলধারে বৃষ্টি ও বজ্রপাত শুরু হয়। 

আহতরা হলেন- হাতীবান্ধা উপজেলার মিলন বাজার এলাকার রোহেল উদ্দিনের স্ত্রী সেলিনা খাতুন (২৪), গড্ডিমারী ইউনিয়নের মধ্য গড্ডিমারী এলাকার আবু তালেবের স্ত্রী রানু বেগম (২০),  সিঙ্গিমারী ইউনিয়নের দেলোয়ার হোসেনের স্ত্রী খোতেজা বেগম (৬০), সিঙ্গিমারী এলাকার আব্দুল লতিফের স্ত্রী নুর নাহার বেগম (৩৩) এবং বড়খাতা ইউনিয়নের পুর্ব সারোডুবি এলাকার আমিনুর রহমানের ছেলে মিরাজুল ইসলাম পরাগ হোসেন (১৭) ও পশ্চিম সারোডুবি এলাকার শামসুল হকের ছেলে সেলিম হোসেন (১৭), হাতীবান্ধা আলিমুদ্দিন ডিগ্রী কলেজের অনার্সের আলেমা খাতুন (১৮) ও টংভাঙ্গা এলাকার মঞ্জু মিয়ার ছেলে মিরাজ (১৬), কালীগঞ্জ উপজেলার চন্দ্রপুর গ্রামের হোসেন মিয়ার ছেলে আবু বক্কর(২৪) ভোটমারী ইউনিয়নের সেলিম মিয়ার ছেলে শাহিনুর ইসলাম(৩৩)। তারা বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আছেন। 

হাতীবান্ধা আলিমুদ্দিন ডিগ্রী কলেজের অনার্সের আলেমা খাতুন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘বাড়ির বাইরে থাকা কাপড় আনতে গিয়ে আকস্মিক বজ্রপাতে  মাটিতে পড়ে যাই। পরে পরিবারের লোকজন উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসেন।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক যুগল কিশোর রায় জানান, আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে এক শিক্ষার্থী আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছেন।

বগুড়ায় পৃথক ছিনতাইয়ের ঘটনায় চারজন আহত

বগুড়ায় পৃথক ছিনতাইয়ের ঘটনায় চারজন আহত
ছিনতাইয়ের ঘটনায় আহতরা, ছবি: বার্তা২৪.কম

কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে বগুড়া শহরে দুইটি পৃথক ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে নারীসহ আহত হয়েছেন চার জন। ছিনতাইকারীরা লুট করেছে নগদ সাড়ে তিন লাখ টাকা ও একটি সোনার চেইন।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) দুপুরে বগুড়া সরকারি শাহসুলতান কলেজের সামনে এবং রাতে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অদূরে তেলিপুকুর নামক স্থানে পৃথক দুইটি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে।

ছিনতাইকারীর কবলে পড়া গ্লোব ফার্মাসিউটিক্যালসের ম্যানেজার ফরহাদ আলী (৩৭) বার্তা২৪.কমকে জানান, তিনি টাঙ্গাইলের ঘাটাইল থেকে মোটরসাইকেল যোগে স্ত্রী মর্জিনা ও সন্তান নাঈমকে (৪) নিয়ে কর্মস্থল জয়পুরহাট জেলায় যাচ্ছিলেন।

রাত সাড়ে ৮টার দিকে তারা বগুড়ার  প্রথম বাইপাস মহাসড়কের তেলীপুকুর এলাকায় পৌঁছানোর পর দুই জন ছিনতাইকারী মোটর সাইকেল নিয়ে তাদের গতিরোধ করে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ছিনতাইকারীরা ফরহাদ আলির ঘাড়ে এবং উরুতে ছুরিকাঘাত করে।

এসময় স্ত্রী মর্জিনার গলা থেকে সোনার চেইন ছিনিয়ে নেয়ার সময় তিনি বাধা দিতে গেলে ছিনতাইকারীরা তার গালে ছুরিকাঘাত করে সোনার চেইন নিয়ে পালিয়ে যায়।

অপরদিকে অলিম্পিক সিমেন্ট কোম্পানীর মার্কেটিং ম্যানেজার সুদেব সরকার (৩৮) বার্তা২৪.কমকে বলেন তার কোম্পানীর ডিলার অভি সরকারকে (২৬) সাথে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে ব্যাংকে যাচ্ছিলেন।

তারা শাজাহানপুর উপজেলার নয়মাইল বাজার থেকে নগদ সাড়ে তিন লাখ টাকা নিয়ে ফিরছিলেন। পথিমধ্যে মঙ্গলবার (২৫ জুন) বেলা তিনটার দিকে শাহসুলতান কলেজের সামনে পৌঁছানোর পর মোটরসাইকেল যোগে দুইজন ছিনতাইকারী তাদের গতিরোধ করে এবং দুইজনকেই উপুর্যপরী ছুরিকাঘাত করে টাকার ব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যায়।

ছিনতাইয়ের শিকার হওয়া ভুক্তভোগীদের বর্ণনা অনুযায়ী কালো রং এর পালসার মোটরসাইকেলে দুইজন স্মার্ট যুবক দুপুরে এবং রাতের এই ভিন্ন দুইটি ছিনতাইয়ের ঘটনার সাথে জড়িত।

বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘ছিনতাই এর সাথে জড়িতদের ধরতে পুলিশের একাধিক টিম মাঠে নেমেছে।’

উল্লেখ্য,গত রমজান মাসের শুরু থেকে বগুড়া শহরে চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি ঘটনা একেবারে নেই বললেই চলে। মঙ্গলবার দুপুরের পর কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে দুইটি ছিনতাই এর ঘটনা ঘটায় পুলিশও বেশ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র