Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বিকেলের মধ্যেই চালু হলো দৌলতদিয়া হেল্প ডেস্ক

বিকেলের মধ্যেই চালু হলো দৌলতদিয়া হেল্প ডেস্ক
ছবি: বার্তা২৪.কম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
রাজবাড়ী


  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের প্রথম মাল্টিমিডিয়া অনলাইন নিউজ পোর্টাল বার্তা২৪.কমে ‘দৌলতদিয়ায় যাত্রীদের কাজে আসছে না হেল্প ডেস্ক’ শিরোনামে শনিবার (১ জুন) দুপুরে একটি অনুসন্ধানীমূলক প্রতিবেদন প্রকাশ হয়।

আর খবরটি প্রকাশের পর তাৎক্ষণিক হেল্প ডেস্কটি খোলার ব্যবস্থা করেন জেলা প্রশাসন। দীর্ঘদিন হেল্প ডেস্কটি বন্ধ থাকায় ভেতরে ময়লা আর ধুলাবালি জমে থাকায় সেগুলো পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করেছে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশের সদস্যরা।

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাটে অবস্থিত যাত্রীদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান ও সহযোগিতার জন্য জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হেল্প ডেস্কটি দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর আজ এটি চালু হওয়ার বিষয়টি বার্তা২৪.কমকে নিশ্চিত করেছেন হেল্প ডেস্কের অফিস সহায়ক নয়ন সাহা।

শনিবার (১ জুন) বিকেল ৩টার দিকে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের বেশ কয়েকজন গ্রাম পুলিশ হেল্প ডেস্ক পরিষ্কার করার কাজে ব্যস্ত রয়েছে। কেউ ঝাড়ু দিয়ে অফিসটির ভেতর ও বাহিরে ধুলা-বালু পরিষ্কার করছে। আবার কেউ অফিসের ভেতরে পানি দিয়ে সম্পূর্ণ কক্ষটি ধুচ্ছে। কেউ আবার অফিসের চেয়ার টেবিলে জমে থাকা ধুলার স্তূপ পরিষ্কার করছে।

হেল্প ডেস্কটির অফিস সহায়ক নয়ন সাহা বার্তা২৪.কমকে জানান, সব সময়ই হেল্প ডেস্ক যাত্রীদের সহায়তা করে থাকে। তবে আজ বিকেল থেকে পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঘরে ফেরা যাত্রীদের সেবা দিতে দিন-রাত চব্বিশ ঘণ্টা অফিস খোলা থাকবে।

তাছাড়া আগামীকাল রোববার (২ জুন) সকাল থেকে এখানে একটি মেডিকেল টিম দায়িত্ব পালন করবে। ঘাট এলাকায় কোনো যাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়লে এই টিমটি তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দেবে।

প্রসঙ্গত, রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাটে অবস্থিত যাত্রীদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান ও সহযোগিতার জন্য জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয় একটি হেল্প ডেস্ক। কিন্তু দীর্ঘদিন সেটি বন্ধ ছিল। আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঘাট এলাকায় যাত্রীদের নিরাপত্তাসহ নির্বিঘ্নে বাড়ি ফেরার জন্য রাজবাড়ী জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রসাশন বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করলেও এটি আজো বন্ধ ছিল। বন্ধ থাকার বিষয়টি বার্তা২৪.কমের নজরে আসলে একটি অনুসন্ধানমূলক প্রতিবেদন প্রকাশ হলে নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে যাত্রীদের সেবায় অবশেষে এটি চালু করল জেলা প্রশাসন।

আপনার মতামত লিখুন :

স্ত্রীকে হত্যা করে পালিয়েছে কৃষকলীগ নেতা

স্ত্রীকে হত্যা করে পালিয়েছে কৃষকলীগ নেতা
ময়ুরী বেগমের মরদেহ। ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম।

বগুড়ার নন্দীগ্রামে স্ত্রী ময়ুরী বেগমকে (২৬) হত্যা করে পালিয়েছে স্বামী কৃষকলীগ নেতা মাসুদ রানা। স্বামীর পরকীয়ায় বাঁধা দেয়ায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

রোববার (২১ জুলাই) ভোররাতে নন্দীগ্রাম পৌর শহরের কলেজপাড়ায় এ হত্যার ঘটনা ঘটে। বেলা ১১টায় নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ স্বামীর বাড়ি থেকে ময়ুরীর মরদেহ উদ্ধার করে।

এ ঘটনার পর থেকে ময়ুরীর স্বামী নন্দীগ্রাম পৌর কৃষকলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা ও তার বাবা উপজেলা কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ওসমান ফকিরসহ পরিবারের সবাই পলাতক রয়েছে।

নিহত ময়ুরীর বাবা আনোয়ার হোসেন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘মাসুদ রানার পরকীয়া নিয়ে তার স্ত্রীর সঙ্গে দাম্পত্য কলহ চলছিল বেশ কিছুদিন ধরে। শনিবার (২১ জুলাই) রাতে তাদের মধ্যে ঝগড়া হলে মাসুদ ফোন করে আমাকে বলে, রাতেই তোর মেয়েকে মেরে ফেলব। রোববার সকালে খবর পেয়ে এসে দেখি মেয়ের মরদেহ।’

নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা (ওসি) শওকত কবির বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। নিহতের পরিবার মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত

কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত
খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকটে দুর্ভোগ বেড়েছে বানভাসিদের, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

কুড়িগ্রামে নদ-নদীর পানি ধীর গতিতে কমতে শুরু করায় কিছু এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হলেও জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে।

ব্রহ্মপুত্রের পানি এখনও চিলমারী পয়েন্টে বিপদসীমার ৬৩ সেন্টিমিটার, নুনখাওয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ২৫ সেন্টিমিটার ও ধরলা নদীর সেতু পয়েন্টে বিপদসীমার ২৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ অবস্থায় ঘর-বাড়ি থেকে পানি নেমে না যাওয়ায় চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের প্রায় ৫ থেকে ৬ হাজার পরিবার ১০/১২ দিন নৌকায় বসবাস করছে। ঘরে ফিরতে পারছেন না উঁচু এলাকায় আশ্রয় নেয়া বানভাসি মানুষ। খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকটে দুর্ভোগ বেড়েছে বানভাসিদের।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/21/1563692543534.jpg
এলাকাগুলোতে ছড়িয়ে পড়ছে ডায়রিয়া, জ্বরসহ নানা পানিবাহিত রোগ

 

এদিকে বাঁধ ভাঙা বন্যার পানিতে এখনও তলিয়ে আছে চিলমারী উপজেলা শহরের রাস্তা-ঘাট, ঘর-বাড়ি, অফিসসহ বিভিন্ন স্থাপনা। 

বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে ছড়িয়ে পড়ছে ডায়রিয়া, জ্বরসহ নানা পানিবাহিত রোগ। বন্যা দীর্ঘস্থায়ী হওয়ায় ও কোনো  কাজ না থাকায় চরম খাদ্য সংকটে পড়েছেন বন্যা কবলিত দিনমজুর শ্রেণির মানুষ। 

সরকারি-বেসরকারি ত্রাণ তৎপরতা শুরু হলেও তা জেলার ৯ উপজেলায় ৮ লক্ষাধিক বানভাসি মানুষের জন্য অপ্রতুল। 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র