Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

লক্ষ্মীপুরে ট্রাকচাপায় স্কুলছাত্রের মৃত্যু, প্রতিবাদে মানববন্ধন

লক্ষ্মীপুরে ট্রাকচাপায় স্কুলছাত্রের মৃত্যু, প্রতিবাদে মানববন্ধন
মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা, ছবি: বার্তা২৪.কম
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
লক্ষ্মীপুর


  • Font increase
  • Font Decrease

লক্ষ্মীপুরে ট্রাক চাপায় দশম শ্রেণির ছাত্র আবদুল বারেক (১৬) নিহতের ঘটনার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) দুপুরে রায়পুর বামনী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে শিক্ষার্থীদের উদ্যোগ এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

নিহত বারেক ওই বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র ও একই এলাকার আবদুল মোতালেবের ছেলে।

জানা গেছে, গত ১৫ জুন রাতে গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার জন্য বারেক লক্ষ্মীপুর বাস টার্মিনাল এলাকায় সড়কে পাশে গাড়ির জন্য দাঁড়িয়ে ছিল। এ সময় একটি ট্রাক মোড় ঘুরতে গিয়ে তাকে চাপা দেয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকের পরামর্শে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়ার পথে কুমিল্লার দাউদকান্দি এলাকায় পৌঁছালে তার মৃত্যু হয়।

লক্ষ্মীপুরে ট্রাকচাপায় স্কুলছাত্রের মৃত্যু, প্রতিবাদে মানববন্ধন

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন- বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মানসুরুল হক পিয়াল, আবদুর সালাম, তাপস কুমার শর্মা, বেলাল হোসেন, প্রাক্তন ছাত্র হাসান পারভেজ ও ইয়াসিন আরাফাতসহ শিক্ষার্থীরা।

বক্তারা বলেন, 'অদক্ষ চালকের কারণেই মেধাবী ছাত্র বারেক গাড়ির চাপা পড়ে মারা গেছে। দ্রুত সকল চালককে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। স্কুল-কলেজের সামনে গতিরোধক নির্মাণ করতে হবে। গাড়ির গতিবিধি নির্ধারণ করে দিতে হবে।' এ সময় বারেক হত্যার বিচার চেয়েছেন তারা।

আপনার মতামত লিখুন :

ঠাকুরগাঁওয়ের নারী ফুটবলারদের ফুলেল শুভেচ্ছা

ঠাকুরগাঁওয়ের নারী ফুটবলারদের ফুলেল শুভেচ্ছা
ঠাকুরগাঁও নারী ফুটবলারদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছে জানানো হয়, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

'তোমরাই আমাদের জেলার চ্যাম্পিয়ন, তোমরাই সেরা'- এমন স্লোগানে ঠাকুরগাঁও নাগরিক অধিকার আন্দোলন সংগঠনের আয়োজনে এক প্রতিবাদ সমাবেশে খেলোয়াড়দের উৎসাহিত করে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। 

রোববার (২১ জুলাই) দুপুরে শহরের চৌরাস্তা মোড়ে জেলার বিভিন্ন স্তরের মানুষ এই সমাবেশে অবস্থান করেন। জেএফএ অনূর্ধ্ব-১৪ জাতীয় মহিলা ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে ঠাকুরগাঁও নারী ফুটবলারদের ফাইনাল খেলার পূর্ব মূহুর্তে বাদ দেওয়ার প্রতিবাদ এই সমাবেশের আহ্বান করা হয়।

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন- নাগরিক অধিকার আন্দোলনের আহবায়ক আতাউর রহমান, জেলা উদীচীর সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ানুল হক রিজু, দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ, সুজন সংগঠনের জেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপক মনতোষ কুমার দে, টাউন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন জুলু সহ নারী খেলোয়াড়রা।

সমাবেশে বক্তরা বলেন, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন যে কাজটি করেছে তা কোন ভাবেই মেনে নেয়ার মতো নয়। তারা আমাদের ঠাকুরগাঁও জেলার সম্মানকে ক্ষুণ্ণ করেছে। মিথ্যা অপবাদ দিয়ে দলটিকে বাদ দেওয়া হয়েছে। আমার এর সঠিক বিচার চাই।

উল্লেখ্য গত বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) কমলাপুরস্থ বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহি মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে সেমিফাইনালে ময়মনসিংহ জেলাকে টাইব্রেকারে ৩-২ গোল ব্যবধানে হারিয়ে জেএফএ অনূর্ধ্ব-১৪ জাতীয় মহিলা ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ-২০১৯ এর ফাইনালে উঠে ঠাকুরগাঁওয়ের মেয়ে ফুটবলাররা। কিন্তু শুক্রবার (১৯ জুলাই) খেলা শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ আগে ঠাকুরগাঁও ফাইনাল খেলতে পারবে না বলে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দেন। 

দুই বছর ধরে ডাক্তার আসেন না, সেবা বঞ্চিত সাধারণ মানুষ

দুই বছর ধরে ডাক্তার আসেন না, সেবা বঞ্চিত সাধারণ মানুষ
হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার ১নং ইউনিয়নের উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্র। ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম।

সরকার সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেয়ার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করলেও দক্ষ জনবল ও কর্মকর্তাদের দ্বায়িত্বহীনতার কারণে প্রান্তিক জনগোষ্ঠী তার সুফল পাচ্ছে না। এর বাস্তব চিত্রের দেখা মিলেছে হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার ১নং ইউনিয়নের উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে।

সরকারি নিয়ম অনুযায়ী একটি উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে স্বাস্থ্য বিভাগের একজন মেডিকেল অফিসার, একজন সাব অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার, একজন ফার্মাসিস্ট, একজন এমএলএসএস এবং পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের একজন এফডব্লিউভি ও একজন আয়ার দায়িত্ব পালন করার কথা।

অথচ লাখাই উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কাগজে কলমে কর্মরত রয়েছেন মাত্র একজন মেডিকেল অফিসার। তাও গত দুই বছর যাবৎ কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন তিনি। ফলে স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন ওই ইউনিয়নের কয়েক হাজার মানুষ।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, লাখাই উপ-স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিকেল অফিসার হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত রয়েছেন ডা. নাহিদ চৌধুরী সুমন। কিন্তু ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে দুই বছর ধরে কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন তিনি। তার স্থলে সপ্তাহে দুইদিন রোগী দেখেন লাখাই উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের অ্যাসিস্ট্যান্ট মেডিকেল অফিসার অমল চন্দ্র মোদক।

তিনি জানান, বামৈ ইউনিয়নের উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত আছেন তিনি। বর্তমানে উপজেলার দুইটি উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের একমাত্র চিকিৎসক তিনি। যার কারণে লাখাই উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে সপ্তাহে দুই দিনের বেশি রোগী দেখা সম্ভব হয় না।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, সপ্তাহে ১-২ দিন স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি খোলা হয়। তাছাড়া যিনি সপ্তাহে ১-২ দিন রোগী দেখেন তিনিও ১-২ ঘণ্টা বসে চলে যান। যার ফলে তিনি কখন আসছেন বা চলে যান তা তারা (স্থানীয়রা) জানেন না। আবার সেখান থেকে ঠিকমতো ওষুধও পাওয়া যায় না।

এ ব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা জুয়েল মিয়া অভিযোগ করে বলেন, ‘ঠিকমতো ওষুধ বা জরুরি স্বাস্থ্যসেবা পাওয়া থেকে গত দুই বছর ধরে আমরা বঞ্চিত রয়েছি। সপ্তাহে ১-২ দিন এখানে একজন ডাক্তার আসেন। কিন্তু ১-২ ঘণ্টা বসে চলে যান।’

উৎপল দাস নামে একজন জানান, এখানে একটি সরকারি চিকিৎসা কেন্দ্র আছে তা অনেকেই জানেন না। অনেকে মনে করেন এটা কোনো পরিত্যক্ত ভবন।

তিনি আরও জানান, বর্ষা মৌসুমে নানা রকম পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে এ এলাকার লোকজন। কিন্তু সঠিক চিকিৎসা তারা পাচ্ছে না। আবার অনেকের টাকা দিয়ে চিকিৎসা করানোর সামর্থ্য নেই।

লাখাই উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ মাসুম জানান, লাখাই উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে লোকবলের অভাবে স্বাস্থ্যসেবা ব্যাহত হচ্ছে। সরকারিভাবে কম জনবল নিয়োগসহ নানা প্রতিকূলতার কারণে এমনটা হচ্ছে।

ডা. নাহিদ চৌধুরী সুমনের কর্মস্থলে না যাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দীর্ঘদিন যাবৎ কর্মস্থলে আসেন না তিনি। বিষয়টি আমাদের জানা আছে। এ ব্যাপারে তাকে একাধিক কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। শিগগিরই কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে।’

তিনি আরও জানান, অচিরেই এই পদটি শূন্য ঘোষণা করে নতুন নিয়োগের ব্যবস্থা করা হবে।

এ ব্যাপারে জানতে ডা. নাহিদ চৌধুরী সুমনের সঙ্গে মোবাইলে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র