Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

কোদাল হাতে পানিতে এডিসি!

কোদাল হাতে পানিতে এডিসি!
লালমনিরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল ইসলাম প্লাবিত এলাকায় পানি আটকানোর কাজ করছেন, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
নিয়াজ আহমেদ সিপন
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
লালমনিরহাট


  • Font increase
  • Font Decrease

চারদিনের টানা বর্ষণের সঙ্গে উজানের পাহাড়ি ঢলে তিস্তা ও ধরলা নদীর চরাঞ্চল থেকে শুরু করে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে লালমনিরহাটে প্রায় ১০/১৫ হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। পানি প্রবাহ বেড়ে যাওয়ায় হাতীবান্ধার সিন্দুর্ণা ইউনিয়নের রাস্তার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বিকেলে প্লাবিত এলাকা পরিদর্শনে যান লালমনিরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল ইসলাম। সেখানে গিয়ে দেখতে পান এক যুবক একা কোদাল দিয়ে পানি আটকানোর চেষ্টা করছেন। পরে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (এডিসি সার্বিক) রফিকুল ইসলাম কোদাল হাতে নিয়ে ওই যুবকের সঙ্গে পানি আটকানোর কাজে সহযোগিতা করেন।

স্থানীয়রা জানান, বিকেল ৪টার দিকে লালমনিরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (এডিসি সার্বিক) রফিকুল ইসলাম প্লাবিত এলাকা দেখতে আসেন। পরিদর্শনে এসে তিনি দেখেন ওই এলাকার একটি ছেলে একা কোদাল হাতে নিয়ে রাস্তা উপচে যাওয়া পানি মাটি দিয়ে আটকানোর করছে। সেখানে কেউ এগিয়ে আসছে না। এমন দৃশ্য দেখে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল ইসলাম নিজে কোদাল হাতে নিয়ে পানিতে নেমে পড়েন। পরে এলাকাবাসীরা এগিয়ে এসে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল ইসলামকে পানি আটকানোর কাজে সহযোগিতা করেন। রাত ৮টার দিকে লালমনিরহাট জেলা প্রসাশক আবু জাফর ওই স্থান পরির্দশন করেছেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/12/1562886721133.jpg

স্থানীয়রা জানান, উজানের পাহাড়ি ঢলের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে গত চারদিনের ভারী বৃষ্টি। এতে লালমনিরহাটের ৫টি উপজেলার তিস্তা ও ধরলা অববাহিকার চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলগুলো প্লাবিত হয়েছে। নৌকা বা ভেলা ছাড়া চরাঞ্চলের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ধেঁয়ে আসছে পাহাড়ি ঢল। এতে সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েছে শিশু, বৃদ্ধ ও প্রতিবন্ধীরা। চারদিকে অথৈ পানির কারণে গবাদি পশুপাখি নিয়ে অনেকটা বিপাকে চরাঞ্চলের খামারি ও চাষিরা। এলাকায় দেখা দিয়েছে সুপেয় পানির অভাব।

জেলার ৫ উপজেলার প্রায় ১০/১৫ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে পানিবন্দী মানুষের সংখ্যা। পানি বৃদ্ধির ফলে চরাঞ্চলের খেটে খাওয়া মানুষগুলো বেশি কষ্ট পোহাচ্ছে।

সিন্দুর্না ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান নুরুল আমিন বলেন, ভারি বর্ষণ ও উজানের ঢলে এ ইউনিয়নের প্রায় দুই হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।

হাতীবান্ধা উপজেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা ফেরদৌস আলম বলেন, তিস্তায় সামান্য পানি বাড়লেই কিছু পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েন। ইতিমধ্যে তালিকা করে কিছু ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে।

তিস্তা ব্যারেজের ডালিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বলেন, তিস্তার পানি প্রবাহ রাত ৯টায় বিপদসীমার ২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে জেলার নিম্নাঞ্চল ও চরাঞ্চলে বন্যার সৃষ্টি হয়েছে। পানি নিয়ন্ত্রণ করতে ৪৪টি গেট খুলে দেওয়া হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

পঞ্চগড়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই সন্তানসহ বাবার মৃত্যু

পঞ্চগড়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই সন্তানসহ বাবার মৃত্যু
ছবি: সংগৃহীত

পঞ্চগড়ে সদর উপজেলার হাফিজাবাদ এলাকায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে দুই ছেলেসহ বাবার মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (২০ জুলাই) সন্ধ্যায় হাফিজাবাদ ইউনিয়নে পানিমাছ পুকুরী মাহানপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- পানিমাছ পুকুরী মাহানপাড়া এলাকার আইজুদ্দীনের ছেলে শহিদুল ইসলাম (৬৩) এবং তার দুই ছেলে নাজিরুল ইসলাম (৩৬) ও আশাদুল (২২)।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, বাড়ির পাশে একটি খালে কারেন্ট জাল বসিয়েছিলেন নাজিরুল। কিন্তু বৈদ্যুতিক তার পানিতে পড়ে যাওয়ায় জাল তুলতে গেলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন তিনি। ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে তার বাবা শহিদুল ইসলাম পানিতে নামলে তিনিও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। এরপর নাজিরুলের ছোট ভাই আশাদুল তার বড় ভাই ও বাবাকে উদ্ধার করতে পানিতে নামলে তিনিও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আহত হন।

পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় দুই ছেলেসহ বাবাকে আহত অবস্থায় পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের তিন জনকে মৃত ঘোষণা করেন।

পঞ্চগড় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু আক্কাস আহম্মেদ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান' এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়েছে।

রায়পুরায় ডাকাতের গুলিতে গরু ব্যবসায়ী নিহত, গুলিবিদ্ধ ২

রায়পুরায় ডাকাতের গুলিতে গরু ব্যবসায়ী নিহত, গুলিবিদ্ধ ২
নিহত গরু ব্যবসায়ীর মরদেহ, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

নরসিংদীর রায়পুরার ডাকাতের গুলিতে মোন্তাজ উদ্দিন ( ৪০) নামে এক গরু ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়েছের আরও দুই গরু ব্যবসায়ী।

শনিবার (২০ জুলাই) রাতে উপজেলার নিলক্ষা ইউনিয়নে চংপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহতদেরকে নরসিংদী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়, পরে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকায় পাঠানো হয়।

নিহত মোন্তাজ উদ্দিন রায়পুরার আব্দুল্লাহপুর গ্রামের সাধু মিয়ার ছেলে। আহতরা হলেন চরসুবুদ্ধি গ্রামের আসাদ মিয়া (৩০) ও রায়পুরায় বাহেরচর গ্রামের মানিক (৩৫)।

রায়পুরা থানা পুলিশ জানায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সলিমগঞ্জ বাজারের সাপ্তাহিক গুরুর হাট বসে। হাটে রায়পুরার নিলক্ষাসহ বিভিন্ন উপজেলার গরু ব্যবসায়ীরা গরু নিয়ে সলিমগঞ্জ বাজারে যায়। হাটে বেচাকেনা শেষে শনিবার রাতে গরু ব্যবসায়ীরা নৌকা যোগে নিলক্ষা আসছিলেন।

ব্যবসায়ীদের নৌকাটি নিলক্ষায় চরমধুয়া এলাকায় পৌঁছলে পেছন থেকে একটি স্পিডবোট নিয়ে ডাকাতরা তাদের ধাওয়া করেন। ওই সময় তারা জীবন বাঁচাতে নিলক্ষার চংপাড়া এলাকায় নৌকা ভিড়িয়ে নামার চেষ্টা করে। এ সময় ডাকাতরা ব্যবসায়ীদের লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি গুলি চালায়। ডাকাতের ছোড়া গুলি গরু ব্যবসায়ী মোন্তাজ উদ্দিনের মাথায় বিদ্ধ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

ডাকাতদের ছোড়া গুলিতে চরসুবুদ্ধি গ্রামের আসাদ মিয়া ও রায়পুরায় বাহেরচর গ্রামের মানিক মিয়া নামে আরও দুই গরু ব্যবসায়ী গুলিবিদ্ধ হয়। এ সময় তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে ডাকাতদের ধাওয়া করে। পরে ডাকাতদল পালিয়ে যায়।

রায়পুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি ) মহসিনুল কাদির ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘ডাকাতদের ছোড়া গুলিতে ঘটনাস্থলেই একজন নিহত হয়। পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে নরসিংদী সদর হাসপাতালে ও পরে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকায় পাঠায়।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র