Barta24

শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬

English

ভুঞাপু‌রে ৪০ গ্রা‌মের মানুষ পা‌নিব‌ন্দি

ভুঞাপু‌রে ৪০ গ্রা‌মের মানুষ পা‌নিব‌ন্দি
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
টাঙ্গাইল


  • Font increase
  • Font Decrease

টাঙ্গাই‌লের ভুঞাপু‌রে পাঁচ‌টি ইউ‌নিয়‌নের ৪০ গ্রা‌মের মানুষ পা‌নিব‌ন্দি হ‌য়ে প‌ড়ে‌ছেন। যমুনা নদী‌র পা‌নি বাড়ায় বন্যার্ত এসব গ্রামে খাদ্য ও সুপেয় পা‌নির ত‌ীব্র সংকট দেখা দিয়েছে।

বুধবার (১৭ জুলাই) উপ‌জেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা যায়, ঘরবা‌ড়ি‌তে পা‌নিতে নিমজ্জিত থাকায় গরু-ছাগল ও প‌রিবার নি‌য়ে অনেকেই উচু প্রাথ‌মিক বিদ্যালয়গু‌লোতে আশ্রয় নি‌য়ে‌ছেন। উপ‌জেলার সাতটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৩০টি স‌রকা‌রি প্রাথ‌মিক বিদ্যালয় বন্ধ রাখা হ‌য়ে‌ছে।

টাঙ্গাই‌লের পা‌নি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) জানায়, ভুঞাপুর উপ‌জেলায় যমুনা নদীর পা‌নি বিপদসীমার ৭২ সে‌ন্টি‌মিটার ওপর দি‌য়ে প্রবাহিত হ‌চ্ছে। আরও দুইদিন যমুনার পা‌নি বাড়ার সম্ভাবনা আছে।

Tangail-Flood

উপজেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয় সূ‌ত্রে জানা গে‌ছে, উপ‌জেলার গো‌বিন্দাসী ইউ‌নি‌য়‌নের চারটি গ্রাম, নিকরাইল ইউ‌নিয়‌নে আটটি, গাবসারা ইউ‌নিয়‌নে ছয়টি, অর্জুনা ইউনিয়‌নে ১৮টি ও ফলদা ইউ‌নিয়‌নের তিন‌টি গ্রা‌মের মানুষ পা‌নিব‌ন্দি হ‌য়ে প‌ড়ে‌ছেন। এর আগে গত ক‌য়েক‌দি‌নের নদীভাঙ‌নে উপ‌জেলার গো‌বিন্দাসী ইউনিয়‌নের তিন‌টি গ্রা‌মে শতা‌ধিক পরিবার গৃহহারা হ‌য়ে প‌ড়ে‌ছে। ক‌য়েক‌ গ্রা‌মের ভাঙ‌নে ফসলি জ‌মি নদীগ‌র্ভে চ‌লে গে‌ছে।

ভাঙন ও বন্যার কার‌ণে দি‌শেহারা মানুষ মানব‌বেতর জীবন যাপন কর‌ছেন। জায়গাসহ ঘরবা‌ড়ি হা‌রি‌য়ে বহু মানুষ নিঃস্ব হ‌য়ে গেছেন। তাদের অনেকেই খোলা আকা‌শের নি‌চে বসবাস করছেন। অনেকেই আত্মীয়স্বজনের বা‌ড়ি‌তে আশ্রয় নি‌য়ে‌ছেন।

ভাঙনকব‌লিত মানু‌ষের অভিযোগ, ভাঙন‌রো‌ধে কার্যকর কোনো উদ্যোগ নেয়‌নি পাউবো। সরকার কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করলে কাউকে বা‌ড়িছাড়া হতে হতো না। আঘাত হান‌তে পার‌তো না প্রমত্তা যমুনা।

স্থানীয় গাবসারা ইউনিয়ন প‌রিষ‌দের চেয়ারম্যান মু‌নিরুজ্জামান ম‌নির জানান, এই ইউনিয়ন পু‌রোটাই চরাঞ্চল। বন্যার কার‌ণে পু‌রো ইউনিয়‌নের ৫০টি গ্রা‌মে পা‌নি ঢুকেছে। এতে বেশ ক‌য়েক‌টি গ্রাম পু‌রোপু‌রি ত‌লিয়ে গে‌ছে। এখন পর্যন্ত কোনো ধর‌নের ত্রাণ সহায়তা পাওয়া যায়‌নি।

Tangail-Flood

উপ‌জেলা মাধ্যা‌মিক শিক্ষা কর্মকর্তা শা‌হিনুর ইসলাম জানান, বন্যাকব‌লিত এলাকার বিদ্যালয়গু‌লো বন্ধ রাখা হ‌য়ে‌ছে।

উপ‌জেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝোটন চন্দ জানান, বন্যাকব‌লিত মানুষ‌দের সহ‌যো‌গিতার জন্য সব ধর‌নের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হ‌য়ে‌ছে। চি‌কিৎসা‌সেবার জন্য মোবাইল টিম গঠন করা হ‌য়ে‌ছে।

টাঙ্গাইল পাউবো’র বিজ্ঞান শাখার উপ-সহকারী প্রকৌশলী রেজাউল করিম বলেন, ভারী বর্ষণ এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে টাঙ্গাইলের যমুনা, পুংলী, ঝিনাই, বংশাই ও ধলেশ্বরীর পানিতে পানি আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। এর মধ্যে যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ৭২ সে.মি., ধলেশ্বরী নদীর দেলদুয়ার উপজেলার এলাসিন ব্রিজের এখানে বিপদসীমার ৮৯ সে.মি. এবং ঝিনাই নদীর কালিহাতী উপজেলার যোকারচর এলাকায় বিপদসীমার ৪৫ সে.মি. ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া বাকি দু’টি নদী পুংলী ও বংশাই নদী বিপদসীমার নিচে রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

সিরাজগঞ্জে ডেঙ্গুতে কলেজছাত্রের মৃত্যু

সিরাজগঞ্জে ডেঙ্গুতে কলেজছাত্রের মৃত্যু
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

সিরাজগঞ্জে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মেহেদী হাসান তালুকদার মীম (১৮) নামে এক কলেজছাত্রের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (১৭ আগস্ট) রাতে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। মীম কামারখন্দ উপজেলার হালুয়াকান্দি গ্রামের আমিরুল ইসলামের ছেলে ও কামারখন্দ হাজী করপ আলী ডিগ্রি কলেজ থেকে সদ্য এইচএসসি পাস করেছেন।

আরও পড়ুন: সিরাজগঞ্জে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে ৮৯ ডেঙ্গু রোগী

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. ফরিদুল ইসলাম জানান, গত বুধবার (১৪ আগস্ট) ডেঙ্গু শনাক্তের পর থেকে মীম বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা গ্রহণ করছিলেন। শনিবার রাত ৮টার দিকে তিনি মারা যান।

তার মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

গাইবান্ধায় আমন চারা কেনাবেচায় টোল আদায় বন্ধের দাবি

গাইবান্ধায় আমন চারা কেনাবেচায় টোল আদায় বন্ধের দাবি
আমন চারা কেনাবেচায় টোল আদায় বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পুনর্বাসন ও দারিয়াপুর হাটসহ সকল হাট বাজারে আমনের চারা (বিছন) ক্রয় বিক্রয়ে টোল আদায় বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

শনিবার (১৭ আগস্ট) বাংলাদেশ কৃষক সমিতির আয়োজনে স্থানীয় দারিয়াপুর হাটের চারমাথা মোড়ে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এতে জেলা কৃষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ছাদেকুল ইসলাম মাস্টারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন কমিউনিস্ট পার্টির জেলা সভাপতি ও কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য মিহির ঘোষ, জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, কৃষক সমিতির জেলা সহ-সভাপতি সন্তোষ বর্মণ, সদর উপজেলা কৃষক সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মন্ডল, দারিয়পুর অঞ্চল কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি গুলবদন সরকার, সাধারণ সম্পাদক কৃষক নেতা জাহাঙ্গীর আলম মাস্টারসহ অনেকে।

বক্তারা দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে সরকারের প্রতি দাবি জানান। সেই সঙ্গে ইরি ধানের ন্যায্য দাম না পাওয়া, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের কাছ থেকে যাতে আমন চারা ক্রয় বিক্রয়ে কোনো প্রকার টোল আদায় না করার জন্য প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র