Barta24

শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

English

জীবন যুদ্ধে হার না মানা এক রাজিবের গল্প

জীবন যুদ্ধে হার না মানা এক রাজিবের গল্প
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ডিষ্ট্রিক করেসপন্ডেন্ট বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
চাঁপাইনবাবগঞ্জ


  • Font increase
  • Font Decrease

একটি টাকা দাওনা, একটি টাকা দাওনা, একশো টাকা, পাঁচশো টাকা, হাজার টাকা চাইনা-এই গান গেয়ে মানুষের মন জয় করে পরিবারের জন্য রোজকার করেন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রাজিব। পুরো নাম রাজিবুল ইসলাম। দুই মেয়ে রাজিয়া, কাফিয়া ও স্ত্রীকে নিয়ে তার বর্তমান পরিবার।

তানোর উপজেলার সিন্দুকায় গাইনপাড়া গ্রামে রাজিবের জন্ম। অত্যন্ত গরীব পরিবারে চার ভাইবোনের মধ্যে রাজিব ছিলেন তৃতীয়। জন্মের পরপরই টাইফয়েডজনিত কারণে সে অন্ধ হয়ে যায়। শুরু হয় তার জীবনযুদ্ধ। পড়াশোনায় অমনোযোগী স্বভাবের রাজীব ছোটবেলা থেকেই গানভক্ত ছিলো। সঙ্গে থাকত একটা ভাঙ্গাচোরা রেডিও। আর পথে প্রান্তরে তাল মিলিয়ে গুনগুন করে গান গাইতেন।

সম্প্রতি তার দেখা মেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলা বাজারে। রাজিব বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে জানান, পরিবারের ছয়জন সদস্যদের পেট চালানো বাবা মায়ের পক্ষে কষ্টকর হওয়ায় ৮-১০ বছর বয়সেই আমাকে সংসারের হাল ধরতে হয়। জীবিকার শুরুর দিকে রেডিও নিয়ে বাসে মানুষকে গান শুনিয়ে অর্থ উপার্জন করতাম। কিন্তু বাসের টিকিট মাস্টাররা তা বেশিদিন চলতে দেননি।  

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563535457184.jpg

এক ব্যক্তির সহযোগিতায় তানোর সদরের একটি স্কুলে ভর্তি করলেও বেশিদূর পড়াশোনা করতে পারেনি রাজিব। স্কুলে গান শিখতে গিয়ে তবলা ভেঙে ফেলার দায়ে স্কুল থেকে বের করে দেওয়া হয় তাকে। সেদিনের পর আর কখনও স্কুলে যাওয়া কিংবা হারমোনিয়াম-তবলা বাজানো শেখা হয়ে উঠেনি। কিন্তু শেখার আগ্রহ থেমে ছিলোনা। তাই হাঁড়ি-পাতিল দিয়েই শুরু হয় রাজিবের বাদ্যযন্ত্র বাজানো। মাটির হাড়ি, কলসি ও বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাঙার পর রাজিব আবিষ্কার করেন টিনের কলসি। সেটাতেই সুর তুলে এখন গান ফেরি করে বেড়ান। রাস্তার অলিগলিতে বসেই  শুরু করেন নিজের কথা ও সুরে বানানো গান। মুখ ও টিনের কলসির সাহায্যে ভিন্ন রকম শব্দ করে এলাকায় বেশ পরিচিত হয়ে ওঠেন তিনি। বিভিন্ন বয়সী শিক্ষার্থী তাদের আড্ডা জমাতে কিংবা বিভিন্ন দোকান ও ভিড় ঠেলেই খুঁজে পাওয়া যায় রাজিবকে। ইউটিউবসহ বিভিন্ন ফেসবুক পেইজে রাজিব এক পরিচিত নাম। ভ্যানে চড়ে বিভিন্ন এলাকায় এভাবেই রাজিব ফেরি করে গান শুনাতেন।

কিন্তু একদিন সেই ভ্যান দুর্ঘটনায় বাম পা-টাও ভেঙে যায়। সেই থেকে রাজিবের ভ্যানে করে বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে গান শোনানো আর হয়না। তবে থামেনি গানপাগল রাজিবের পথচলা। খুঁড়িয়ে পথচলেই তিনি এখন গান গেয়ে বেড়ান। আগে বিভিন্নস্থানে যেতে পারলেও বর্তমানে আর দূরে যেতে পারেন না।

রাজিবের স্বপ্ন সন্তান দুটিকে তিনি মানুষের মত মানুষ করবেন। বড় মেয়ে রাজিয়া ৩য় শ্রেণিতে ও ছোট মেয়ে কাফিয়া একটি স্থানীয় এতিমখানায় হাফিজিয়া পড়ছে।

রাজিব আরও বলেন, সংসারে একটু সচ্ছলতা ফেরাতে প্রতিবন্ধী ভাতার জন্য ছুটে গিয়েছিলাম স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে। কিন্তু স্থানীয় জনপ্রতিনিধি তাকে ভাতার কার্ড পাইয়ে দিতে ৬ হাজার টাকা দাবি করে, সে টাকা দিতে না পারায় আর প্রতিবন্ধী ভাতা পাওয়া হয়নি।

আপনার মতামত লিখুন :

রোহিঙ্গা ডাকাতের গুলিতে যুবলীগ নেতা নিহত

রোহিঙ্গা ডাকাতের গুলিতে যুবলীগ নেতা নিহত
নিহত যুবলীগ নেতা ওমর ফারুক, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

কক্সবাজারের টেকনাফে হ্নীলায় নিজ বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে ওমর ফারুক (৩০) নামে এক যুবলীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) রাত পৌনে ১১টার দিকে জাদিমোড়া পাহাড়ী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ওমর ফারুক উপজেলার হ্নীলা ইউপি’র জাদিমোরা এলাকার মোনাফ কোম্পানির ছেলে এবং হ্নীলা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/23/1566498266141.jpg

নিহতের পরিবারের দাবি, রোহিঙ্গা ডাকাত সর্দার সেলিমের নেতৃত্বে একদল অস্ত্রধারী ওমর ফারুককে নিজ বাড়ির সামনে থেকে তুলে পাহাড়ে পাশে নিয়ে গিয়ে গুলি করে হত্যা করে।

খবর পেয়ে নিহতের ভাই আমির হামজা ও উসমানসহ স্বজনরা লাশ আনতে গেলে ডাকাত দল লাশ আনতে বাধা দেয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘খবর পেয়ে লাশ উদ্ধারে গেছে পুলিশের একটি টিম।’ তবে ঘটনার বিস্তারিত পরে জানানো হবে বলে জানান তিনি।

পুলিশ হেফাজত থেকে পালিয়ে যাওয়া দুই আসামি আটক

পুলিশ হেফাজত থেকে পালিয়ে যাওয়া দুই আসামি আটক
রাজবাড়ী ম্যাপ

রাজবাড়ীতে পুলিশ হেফাজত থেকে পালিয়ে যাওয়া দুই আসামিকে আটক করেছে পুলিশ। পুলিশ হেফাজত থেকে পালিয়ে যাওয়া আটককৃত দুই আসামি হলো গোয়ালন্দের নলিয়াপাড়ার শাকিল প্রামাণিক(২১) ও শহিদুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (২২আগস্ট) রাত ১০টায় এদেরকে আটক করা হয়েছে বলে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে নিশ্চিত করেছেন কোর্ট পুলিশের জিআরও মাহবুব হোসেন।

তিনি জানান, আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে ২৩ জন আসামিকে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ১৬৪ ধারার জবানবন্দী দেওয়ার জন্য পুলিশ কোর্টে আনা হয়। জবানবন্দী শেষে আসামিদেরকে কারাগারে নেওয়ার জন্য প্রিজন ভ্যানে উঠানোর সময় শাকিল ও শহিদুল পুলিশ হেফাজত থেকে পালিয়ে যায়।

আসামীরা পালিয়ে যাওয়ার পর শুরু হয় সাঁড়াশি অ‌ভিযান। পরে রাত ১০টার দি‌কে কোর্ট এলাকার অদূরে থানা পুকুরে লু‌কি‌য়ে থাকা উক্ত দুই আসামিকে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র