চামড়া পাচার রোধে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে বিশেষ সতর্কতা

মো.তারেক রহমান, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ
ভারতের সীমান্তবর্তী বাংলাদেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা/ ছবি: সংগৃহীত

ভারতের সীমান্তবর্তী বাংলাদেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা/ ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে ভারতে কোরবানির চামড়া পাচার ঠেকাতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীগুলো বিশেষ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। ঈদের দিন থেকে চামড়া বোঝাই কোনো ট্রাক বা পরিবহন সীমান্ত অভিমুখে যেতে দেওয়া হবে না বলে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে জানিয়েছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুলিশ সুপার টিএম মোজাহিদুল ইসলাম।

সীমান্ত এলাকায় টহল জোরদারের পাশাপাশি গোয়েন্দা নজরদারিও বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া চামড়া চোরাচালানের সঙ্গে জড়িতদের তালিকা তৈরি করে তাদেরও কঠোর নজরদারির মধ্যে রাখা হচ্ছে। ঈদের দিন সকাল থেকে পরবর্তী এক মাস এই সতর্কতা জারি থাকবে বলে জনিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

প্রতিবছর কোরবানির ঈদ ঘিরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর ও শিবগঞ্জ উপজেলা সীমান্তে তৎপর হয়ে উঠে চোরাচালান সিন্ডিকেটের সদস্যরা। বেশ কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশে চামড়ার দাম তুলনামূলক কম হওয়ায় তা ভারতে পাচারের চেষ্টা করা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের একাধিক চামড়া ব্যবসায়ী জানান, এবারও দেশে কোরবানির চামড়ার দাম কম হওয়ার সম্ভাবনা থাকায় ভারতে চামড়া পাচার হয়ে যেতে পারে। আর এই সুযোগে আজমতপুর, তেলকুপি, কিরনগঞ্জ, মনোহরপুরসহ এর আশপাশের সীমান্ত এলাকাগুলোতে তৎপর হয়ে উঠতে পারে চোরাচালানকারীরা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রাণিসম্পদ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, গত বছর চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় এক লাখ ৫৪ হাজার পশু কোরবানি হয়েছিল। এবারও সমপরিমাণ পশু কোরবানি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

স্থানীয় চামড়া ব্যবসায়ীরা বলছেন, ঢাকা ও নাটোরের ট্যানারি মালিক ও আড়তদারদের কাছে তাদের কয়েক কোটি টাকা বকেয়া পড়ে থাকায় অর্থের অভাবে অনেক বৈধ ব্যবসায়ী এবার চামড়া কিনতে পারবেন না।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/11/1565508779212.gif

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির নেতা মঞ্জুর হোসেন জানান, এবারও দেশে দাম কম হওয়ার সম্ভাবনা থাকায় কোরবানির চামড়ার একটি বড় অংশ চোরাচালান সিন্ডিকিটের হাতে চলে যেতে পারে।

চামড়া পাচার রোধে ঈদের দিন সকাল থেকে সীমান্ত এলাকায় তৎপরতা বৃদ্ধির পাশাপাশি গোয়েন্দা নজরদারিও বাড়ানো হবে জানিয়েছেন বিজিবি কর্মকর্তারা। এছাড়া চামড়া পাচারের সম্ভাব্য পয়েন্টগুলো চিহ্নিত করে সতর্ক দৃষ্টি রাখবেন তারা।

জেলার চামড়া ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সভা করেছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুলিশ সুপার। সভায় সিদ্ধান্ত হয়, ঈদের দিন কোরবানির চামড়া সংগ্রহের পর এক সপ্তাহের মধ্যেই এর প্রাথমিক প্রক্রিয়াজাতকরণের কাজ শেষ করতে হবে ব্যবসায়ীদের। এরপর ২০ থেকে ২২ আগস্টের মধ্যেই জেলার সব চামড়া ঢাকা ও নাটোরের মোকামগুলোতে পাঠিয়ে দেবেন ব্যবসায়ীরা।

পুলিশ সুপার টিএম মোজাহিদুল ইসলাম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘চামড়া নিয়ে যানবাহনগুলোকে শুধু ঢাকা অভিমুখে যেতে দেওয়া হবে। এছাড়া নৌপথের মাধ্যমেও যেন চামড়া পাচার না হয়, সেজন্য সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সহায়তা চাওয়া হয়েছে।’

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৫৩ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল মাহবুবুর রহমান খান বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে জানান, চামড়া পাচার রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে তার ব্যটালিয়নের অধিনস্ত সব সীমান্ত ফাঁড়িকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যেসব সীমান্ত দিয়ে চামড়া পাচারের সম্ভাবনা রয়েছে, ঈদের দিন সকাল থেকেই সেসব সীমান্তে নজরদারি বাড়াবে বিজিবি।

আপনার মতামত লিখুন :