Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

কোরবানির পশুর চামড়া

আড়তদার বিক্রি করলেই চামড়ার টাকা পাবে মাদরাসা-এতিমখানা

আড়তদার বিক্রি করলেই চামড়ার টাকা পাবে মাদরাসা-এতিমখানা
পড়ে আছে কোরবানির পশুর চামড়া, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
পটুয়াখালী


  • Font increase
  • Font Decrease

সারা দেশের মতো পটুয়াখালীর বাজারেও কোরবানির পশুর চামড়ার তেমন কদর নেই। বিগত বছরগুলোতে কিছু বেচা বিক্রি হলেও এবার একেবারেই পানির দামে চামড়া বিক্রি হচ্ছে। কেউ কেউ চামড়া বিক্রি করতে না পেরে ফেলেও দিচ্ছেন। আর যারা বিক্রি করছেন তার দাম এক থেকে দেড়শ টাকার বেশি নয়। এ কারণে অনেকে বাকি টাকায় চামড়া বিক্রি করছেন। আড়ৎ মালিকরা বলছেন, চামড়া বিক্রি করতে পারলেই তারা চামড়ার দাম পরিশোধ করবেন।

বেশ কয়েক বছর আগেও কোরবানির পর পরই বিভিন্ন এলাকায় পশুর চামড়া কিনতে বিভিন্ন গ্রুপের লোকজন দাম দর করত। সে সময়ে অড়াই থেকে তিন হাজার টাকা কিংবা এর বেশি দামেও গরুর চামড়া বিক্রি হতো। আর ছাগলের চামড়া আড়াইশ থেকে তিনশ টাকায় বেচা বিক্রি হতো। চামড়া কিনতে অনেক মৌসুমি ব্যবসায়ীদের অনানগোনাও ছিল। তবে সে সব এখন কেবলই স্মৃতি। এখন দাম দরতো দূরের কথা কেউ চামড়া কিনেতেও আসছেন না।

যেহেতু কোরবানি পশুর চামড়ার টাকা গরিবের মাঝে বিলিয়ে দেয়া হয়। সেজন্য অনেকে বাধ্য হয়ে বিভিন্ন এতিমখানা ও মাদরাসায় চামড়া দান করছেন। আর এক্ষেত্রে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ এসব চামড়া বিভিন্ন আড়তে বাকি টাকায় বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন।

আড়তদার বিক্রি করতে পারলেই টাকা পাবে মাদরাসা-এতিমখানা

আর আড়ৎ মালিকরা বলছেন, 'কবে দামে চামড়া বিক্রি করতে পারব, কবে নাগাদ ট্যানারি মালিকরা টাকা দেবে, তার ওপর নির্ভর করে চামড়ার মূল্য পরিশোধ করব। বিগত বছর যে চামড়া বিক্রি করছি সেই মূল্যই এখনো পাওয়া যায়নি।'

তবে চামড়ার বাজার এতটাই খারাপ যে, রিকশা ভাড়া দিয়ে বাসা বাড়ি থেকে চামড়া আড়তে পৌঁছে দিতে যে টাকা লাগছে সেই টাকাও পাওয়া যায় না। ফলে এখন এমন পরিস্থিতি যে এক সময়কার মূল্যবান চামড়া এখন কোরবানি পশুর বর্জ্য হিসেবে হয়তো ফেলে দিতে হবে।

তবে মুসলিম ধর্মীয় নেতারা বলছেন, 'এক সময়ে কোরবানির চামড়া দিয়ে মাদরাসা এতিমখানাগুলো একটি তহবিল সংগ্রহ করতে পারলেও এখন আর সেটি হচ্ছে না। চামড়ার মূল্য এভাবে কমে যাওয়ায় অসহায় দরিদ্র মানুষ গুলো সরাসরি বঞ্চিত হচ্ছেন।' এ কারণে কোরবানির চামড়ার দাম নির্ধারণ ও সেই মূল্য মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নে গুরুত্ব দেয়ার কথা বলছেন তারা।

আপনার মতামত লিখুন :

বেনাপোলে ৪০ হাজার ইউএস ডলারসহ এক নারী আটক

বেনাপোলে ৪০ হাজার ইউএস ডলারসহ এক নারী আটক
বেনাপোলে ৪০ হাজার ইউএস ডলারসহ এক নারী আটক

যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের আমড়াখালি চেকপোস্ট এলাকা থেকে সুরাইয়া বেগম (৩৫) নামে এক নারীকে ৪০ হাজার ৪০০ ইউএস ডলার ও ১৩ লাখ ভারতীয় রুপিসহ আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা।

শনিবার (১৭ আগস্ট) রাত ১১ টার সময় ঢাকাগামী একটি বাস থেকে তাকে নামিয়ে ব্যাগ তল্লাশি করে এসব বৈদেশিক মুদ্রা আটক করে ৪৯ ব্যাটালিয়নের বিজিবি সদস্যরা। আটক সুরাইয়া উত্তর ঢাকার  শাহ আলমের স্ত্রী।

৪৯ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সেলিম রেজা বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তারা খবর পায় এক নারী বিপুল পরিমাণ ইউএস ডলার ও ভারতীয় রুপি নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন। এ খবরে বেনাপোল থেকে ছেড়ে আসা একটি পরিবহনে তল্লাশি করা হয়। এ সময় পরিবহনে থাকা সুরাইয়া নামে এক নারীকে আটক করা হয়। পরে তার সাথে থাকা হাত ব্যাগ তল্লাশি করে ৪০ হাজার ৪০০ ইউএস ডলার ও ১৩ লাখ ভারতীয় রুপি পাওয়া যায়। আটক নারীর বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ছুটি শেষে চালু বুড়িমারী স্থলবন্দর

ছুটি শেষে চালু বুড়িমারী স্থলবন্দর
বুড়ীমারী স্থলবন্দর, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

পবিত্র ঈদ-উল আযহা উপলক্ষে টানা আটদিন বুড়িমারী স্থলবন্দরে আমদানি-রফতানি বন্ধ থাকার পর স্থলবন্দরের কার্যক্রম আবারও শুরু হয়েছে। তবে দুই দেশের পাসপোর্টধারী যাত্রী পারাপারে ঈদের ছুটিতেও বন্দর স্বাভাবিক ছিল বলে জানিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

রোববার (১৮ আগস্ট) সকাল ১০ টায় পাটগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রুহুল আমিন বাবুল এ তথ্য বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, উভয় দেশের যৌথ সিদ্ধান্তে পবিত্র ঈদ-উল আযহা উপলক্ষে বন্দর ৮ দিন বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। ঈদের ছুটি শেষ করে আবারও রোববার সকালে স্থলবন্দরের কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। এর আগে শুক্রবার (৯ আগস্ট) থেকে বুড়িমারী স্থলবন্দর আমদানি-রফতানি বন্ধ করা হয়।

বুড়িমারী ইমিগ্রেশন ইনচার্জ উপ পরিদর্শক (এসআই) খন্দকার মাহমুদ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘ঈদ উপলক্ষে আমদানি-রফতানি কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও পাসপোর্টধারী যাত্রী পারাপার স্বাভাবিক ছিল। যে কারণে পাসপোর্টধারী যাত্রীরা অনেকেই ভারতে ঘুরতে গেছেন। ভ্রমণ শেষে তারা দেশে ফিরতে শুরু করেছেন।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র