ভিওআইপি নিয়ে বিটিআরসির তোপের মুখে অপারেটররা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
অবৈধ ভিওআইপি  প্রতিরোধে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দিচ্ছে বিটিআরসি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক।

অবৈধ ভিওআইপি প্রতিরোধে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দিচ্ছে বিটিআরসি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক।

  • Font increase
  • Font Decrease

অবৈধ ভিওআইপি নিয়ন্ত্রণে প্রায়শই চলে বিটিআরসির অভিযান । কিন্তু তবুও কমছে না এই ব্যবসা। তাই অপারেটররা  ডিস্ট্রিবিউটরদের মাধ্যমে যদি সিম বিক্রির ক্ষেত্রে এখনি সংযত না হয় তাহলে অপারেটরদের সামনে কঠিন আইনি প্রক্রিয়ার মুখোমুখী হতে হবে। এবং তাদের কোন ভাবেই ছাড় দেয়া হবেনা।

রবিবার( ১১ নভেম্বর) বিটিআরসি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক কথা বলেন বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক। তিনি বলেন আমি কাউকে দোষী করে বলছিনা। কিন্তু প্রতিনিয়ত একটা ভিওআইপি বন্ধে বিটিআরসির যে পরিমান লোকবল থেকে শুরু করে এফোর্ট দিতে হয় তার থেকে যদি অপারেটররা দায়িত্ব নিতো তাহলে দেশের রাজস্ব বৃদ্ধির পাশাপাশি অপরাধও কমে আসতো।

এসময় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তোপের মুখে পড়েন বিভিন্ন মোবাইল অপারেটররা। কেন এই ধরনের ব্যবসা বাড়ছে এমন প্রশ্নের কোন ধরনের সন্তোষজনক উত্তর দিতে পারেনি অপারেটররা।

রবির সিম কেন এত বেশি? বিটিআরসির প্রশ্নের উত্তরে রবির রেগুলেটরি এফেয়ার্স এর দায়িত্বপ্রাপ্ত  এসএম ইমরানুল হক বলেন – আমাদের চিটাগাং এ নেটওয়ার্ক অনেক শক্তিশালী এই জন্য হয়ত আমাদের সিম এর সংখ্যা বেশি এছাড়াও আমরা দুইটি কোম্পানি একসাথে মার্জ হবার কারনেও সিম এর সংখ্যা বেড়ে থাকতে পারে।

গতানুগতিক উত্তরে  টেলিটক রেগুলেটরি এফেয়ার্স এর দায়িত্বপ্রাপ্ত  সাইফুর রহমান বলেন - গ্রাহকরা কি কাজে সিম ব্যবহার ব্যবহার করছে তা আসলে আমদের হাতে থাকেনা।আর আমাদের পয়েন্ট অফ সেল এবং বায়োমেট্রিক ডিভাইসও কম।  তবে আমরা ভবিষ্যতে এই ব্যাপারে সতর্ক থাকবো

সন্তোষজনক উত্তর না পাওয়ায়  বিটিআরসি মহাপরিচালক  মুস্তফা কামাল বলেন অপারেটরদের সতর্ক করে বলেন , এখানে অপারেটররা দায়িত্ব এড়িয়ে যাওয়ার যে চেস্টা করছেন সেটা ঠিক না। এরপর যদি কোন সিম  ভিওআইপিতে ব্যবহার করা হয় তাহলে মানি লন্ডারিং এবং হুন্ডির মামলা পর্যন্ত করা হবে। অপারেটররা নেগ্লেজেন্সি বাদ দিয়ে প্লিজ সিন্সিয়ারলি কাজ করুন।  

মামলা পরিচালনা নিয়ে র‍্যাব৩  এর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কর্নেল এমরানুল হাসান বলেন  - ভিওআইপি এর অভিযোগে যেসব মামলা হয় তার আর কোন খোঁজ থাকেনা। এতে করে অপরাধীরা দ্রুতই আইনের ফাক গলে বের হয়ে যায়। তাই মামলার বাদি যদি বিটিআরসির পাশাপাশি অপারেটররা হয় তাহলে  সেটা মনিটরিং করা সুবিধা হবে ।

অপারেটরদের দায় আছে উল্লেখ করে বিটিআরসির স্পেক্ট্রাম বিভগের মহাপরিচালক  নাসিম পারভেজ কার নামে গিয়েছে সিম ,কার হাতে গিয়েছে এগুলা দেখা অপারেটরদের দ্বায়িত্ব।এগুলো একেকটা প্রোডাক্ট।তাই এগুলা যদি মিস ইউজ হয় তাহলে এর দায়ভার অবশ্যই অপারেটরদের উপর বর্তায়।

সম্প্রতি সিম বক্স জিওলজিক্যাল ফাইন্ডিংস এর মাধ্যমে ঢাকা ও চট্টগ্রাম জেলায় ২৬ টি আবাসিক স্থাপনায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান সিম উদ্ধার করে বিটিআরসি। যার মধ্যে রবির ১৬ হাজার ৮১২ টি , টেলিটকের ১৫ হাজার ৯৩৯ টি ম বাংলালিংক এর ৬ হাজার ১৭৬ তি , গ্রামীণফোনের ৩ হাজার ২২৩ টি সিম শহ সর্বমোট ৪২ হাজার ১৫০টি সিম উদ্ধার করা হয়।

এসময় অবৈধ ভিওআইপি কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের সিমপোর্ট বিশিষ্ট সর্বমোট ১৪৮ টি জিএসএম সিমবক্স গেটওয়ে , ২ হাজার ৬৭৭ টি মডেম ও অন্যান্য আনুসাঙ্গিক মালামাল জব্দ করা হয়।  

এছাড়াও অভিযুক্ত ২১ জনের বিরুদ্ধে ২৮ টি মামলা দায়ের করা হয়।

 

 

আপনার মতামত লিখুন :

এ সম্পর্কিত আরও খবর