Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ৩১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

গেম অফ থ্রোন্সের সিজন-৮ পুনর্নির্মাণের দাবি

গেম অফ থ্রোন্সের সিজন-৮ পুনর্নির্মাণের দাবি
গেম অব থ্রোন্সের কাভার ফটো, ছবি: সংগৃহীত
টেক ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

জনপ্রিয় টিভি সিরিজ 'গেম অফ থ্রোন্স' এর সিজন-৮ দেখে হতাশা প্রকাশ করেছেন এর দর্শকরা। এই সিরিজের ৬টি পর্ব দেখার পর ৮ম পর্ব নিয়ে দর্শকদের ব্যাপক উৎসাহ আর উদ্দীপনা ছিল। কিন্তু এটি দর্শকদের হতাশ করেছে বলেই যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম ইন্ডিপেনডেন্টের এক প্রতিবেদনে  বলা হয়েছে।

আর এজন্য সিরিজটির ভক্তরা একটি পিটিশন জমা দিয়েছে এটি পুনর্নির্মাণ করার জন্য। এই পর্যন্ত ৩৩ হাজার ভক্ত স্বাক্ষর পিটিশনে জমা পড়েছে। চেঞ্জ.ওআরজি নামক অনলাই সাইটে পিটিশনটি দেওয়া হয়েছে।

এই সিরিজটি পুনর্নির্মাণের জন্য কর্তৃপক্ষকে ভক্তরা পিটিশনটি পড়ার জন্য আবেদন জানায়।

গেম অব থ্রোন্সের একটি বিশাল সংখ্যক ভক্ত বাংলাদেশেও রয়েছে। আর সেই উন্মাদনায় এবারের পহেলা বৈশাখে বাড়তি আনন্দ যোগ করতে সেইদিন মুক্তি পেয়েছিল সিজন-৮।

জর্জ মার্টিন এর বেস্ট সেলিং বই ‘এ সং অব আইস এন্ড ফায়ার’ অবলম্বনে নির্মিত এই সিরিজটির ৮ পর্বের মাধ্যমেই এর ইতি টেনেছিল। কিন্তু তা হতাশ করেছে এর ভক্তদের।

কিন্তু বহুল প্রত্যাশিত এই সিজন হতাশ করেছে দর্শকদের তাই হতাশা ঘোচাতে পুনর্নির্মাণের দাবি জানাতে ক্যাম্পেইন চালাচ্ছে গেম অব থ্রোন্স ভক্তরা।

আপনার মতামত লিখুন :

এক গেমে খেলেই খোয়ালেন সব সঞ্চয়!

এক গেমে খেলেই খোয়ালেন সব সঞ্চয়!
গেমিংয়ে আসক্ত কিশোর, ছবি: প্রতীকী

আমার ২২ বছর বয়সের ছেলেটি অটিজমে আক্রান্ত। সে অন্য কোনো কাজ করতে পারে না বিধায় আইপ্যাড, প্লেস্টেশন এবং গেমিংয়ের জগতে ঢুকে গেছে। সম্প্রতি সে একটি গেম খেলে ব্যয় করেছে ৩,১৬০ পাউন্ড যা বাংলাদেশি টাকায় ৩ লাখ ৩৪ হাজার ১৮০ টাকা।

এভাবেই ছেলিটির বাবা থমাস কার্টার বিবিসিকে জানান, সম্প্রতি সে আইপ্যাডে ‘হিডেন আর্টিফ্যাক্ট’ নামের একটি গেম খেলে। আর সেই গেম খেলেই গত ১৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩০ মে মাসের মধ্যে তাদের সঞ্চয়ের সব টাকা খরচ করে ফেলেছে।

থমাস আইটিউন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানান। কিন্তু তারা বিষয়টি সম্পর্কে অবগত হলেও সেই টাকা আর ফেরত দেয়নি।

তবে গেমিংয়ের প্রতি তীব্র আশক্তি এবং অর্থ খোয়াবার মতো খবর এটিই প্রথম নয়। এমন বেশকিছু খবর বিবিসির প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। যেখানে কিশোররা তাদের বাবা-মার ব্যাকিং কার্ড থেকে অর্থ ব্যয় করে গেম খেলছে।

সূত্র: বিবিসি

চাহিদা মেটাতে সক্ষম নয় ফেসবুকের ওকুলাস

চাহিদা মেটাতে সক্ষম নয় ফেসবুকের ওকুলাস
ফেসবুকের ভিআর ওকুলাস, ছবি: সংগৃহীত

বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়া কোম্পানিগুলো শুধুই অ্যাপ ভিত্তিক সার্ভিসের বাইরেও এখন বিভিন্ন ডিভাইস নিয়ে কাজ করছে। বলতে গেলে অনলাইনের বাইরে গিয়ে তারা এখন প্রযুক্তি নির্মাতাদের দলে যোগ দিচ্ছে অধিক মুনাফা লাভের আশায়।

তেমনি ফেসবুকের তৈরি ভার্চুয়াল রিয়েলিটি (ভিআর) ওকুলাস বাজারে  ছাড়ে প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু গেমিংয়ের বাজারের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে প্রস্তুত নয় ফেসবুকের এই ভার্চুয়াল রিয়েলিটি।

সিএনবিসি’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশেষ করে গেমিংয়ের বাজার ধরতেই ফেসবুক তাদের ভিআর ওকুলাস বাজারে ছাড়ে। কিন্তু ওকুলাসের সহ প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক ম্যাকাউলি মনে করেন বর্তমান বাজার ধরতে এটি যথেষ্ঠ নয়।

তিনি বলেন, যখন একজন ইউজার ভিআর হেডসেট পরে গেম খেলবেন কিন্তু অপর প্রান্তে থাকা তার বন্ধু দ্বিমাত্রিক (২ডি) মুডে খেলবে। যার মধ্যে কোনো সমন্বয় থাকবে না। ফলে এই ভিআর গেমিংয়ের বাজারে চাহিদা মেটাতে পারবে না।

গত ২০১৭ সালে ফেসবুক ‘ওকুলাস গো’ বাজারে ছাড়ে। যার বাজারমূল্য নির্ধারণ করা হয়েছিল ১৯৯ মার্কিন ডলার। মার্কেট রিসার্চ সুপার ডাটার মতে, ২ মিলিয়ন ইউনিট বিক্রি হয়েছিল ওকুলাস গো।

অন্যদিকে এবছরের মে মাসে ওকুলাস কুয়েস্ট বিক্রি হয়েছিল ১ মিলিয়ন ইউনিট এবং ওকুলাস রিফট ৫ লাখ ৪৭ হাজার ইউনিট।

তবে সম্প্রতি বাজারে আসা ‘ওকুলাস রিফট এস’ পিসি ভার্সনের জন্য অবমুক্ত করা হয়। যার বাজারমূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৯৯ মার্কিন ডলার। কিন্তু ম্যাকাউলি মনে করেন বাজারের অন্যান্য ভিআর হেডসেটের সঙ্গে পাল্লা দিতে পারবে ফেসবুকের ওকুলাস।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র