পরিবেশবান্ধব স্মার্টফোন!

টেক ডেস্ক, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
পরিবেশবান্ধব ফেয়ারফোন, ছবি: (প্রতীকী)

পরিবেশবান্ধব ফেয়ারফোন, ছবি: (প্রতীকী)

  • Font increase
  • Font Decrease

পরিবেশ বান্ধব স্মার্টফোন তৈরির কথা অনেক প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানই বলে আসছে। যদিও সম্প্রতি গুগল ঘোষণা দিয়েছে পরিবেশ বান্ধব প্রোডাক্ট তৈরি করবে। তবে এ যাত্রায় এগিয়ে আছে ডাচ ভিত্তিক স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফেয়ারফোন।

ইউরোপের বাজারে ২০১৩ সালে ফেয়ারফোন প্রথম তাদের পরিবেশ বান্ধব স্মার্টফোন বাজারে ছাড়ে। তারই ধারাবাহিকতায় ফেয়ারফোন-৩ বাজারে ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

স্মার্টফোনের বাজারে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মতো অভিনব ফিচার এবং ডিজাইনের থেকে পরিবেশ বান্ধব ফোন তৈরিতে মনোযোগ দিয়েছে এই ডাচ প্রযুক্তি নির্মাতা। তারা মনে করেন, প্রযুক্তি মানুষের কল্যাণে ব্যবহৃত হবে ধ্বংসের জন্য নয়।

ফেয়ারফোনে ব্যবহৃত যন্ত্রাংশ পরিবেশ বান্ধব এবং নবায়নযোগ্য। এ লক্ষ্যে কাজ করার জন্য তারা বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন জায়গায় কমিউনিটি তৈরি করতে চায়।

আসন্ন ফেয়ারফোন-৩ এর ফিচারগুলো-

ডিসপ্লে

ফোনটির ৫.৬৫ ইঞ্চির বড় পর্দায় থাকছে ফুল এইচডি প্লাস রেজুলেশন। তবে এতে রয়ে গেছে ট্রেডিশনাল বেজেল বডি।

হার্ডওয়্যার

এর কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করতে স্ন্যাপড্রাগন ৬৫২ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। আর ৪জিবি র‍্যামের সঙ্গে থাকছে ১২৮ জিবির ইন্টারনাল স্টোরেজ সুবিধা।

ক্যামেরা

ছবি তোলার জন্য পেছনে ব্যবহার করা হয়েছে ১২ এবং সামনে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। যা বাজারে থাকা স্মার্টফোনগুলোর তুলনায় অনেক কম।

ব্যাটারি

ফোনটিকে সচল রাখতে ৩০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারির সঙ্গে থাকছে ৩.০ কুইক চার্জিং সুবিধা।

মূলত, এই ফোনে উন্নত ক্যামেরা সেটআপ বা পাওয়ারফুল হার্ডওয়্যার সুবিধা দেওয়া মূল লক্ষ্য নয়। ফেয়ারফোন হচ্ছে পরিবেশ বান্ধব, নবায়নযোগ্য একটি স্মার্টফোন।

আগামী অক্টোবরে ফেয়ারফোন-৩ বাজারে ছাড়ার পরিকল্পনা করছে প্রতিষ্ঠানটি। এর বাজারমূল্য ৫০০ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। যা বাংলাদেশি টাকায় ৪২ হাজার টাকা।

আপনার মতামত লিখুন :