এমএনপি সেবা মিলবে ১ আগস্ট থেকে

 

ঢাকা: আগামী ১ আগস্ট থেকে দেশে চালু হচ্ছে বহুল প্রতীক্ষিত মোবাইল নাম্বার পোর্টেবেলিটি-এমএনপি (বর্তমান মোবাইল নাম্বার অপরিবর্তিত রেখে অপারেটর বদলের সুযোগ)। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এরই মধ্যে তিন মোবাইল অপারেটর এই নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে।

বিটিআরসি`র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক বার্তা২৪.কমকে বলেন, আগামী ১ আগস্ট যাতে এমএনপি সেবা যাতে চালু করা যায়, সেজন্য সব চেষ্টাই আমরা করছি। আশা করছি, নির্দিষ্ট তারিখেই আমরা এই সেবাটি চালু করে গ্রাহকদের প্রত্যাশা পূরণে সক্ষম হব।

বহু গ্রাহক তার নিজ নিজ অপারেটরের সেবায় সন্তুষ্ট নয়। কিন্তু নাম্বার পরিবর্তন হবে, এই কারণে অনেকেই অপারেটর পাল্টাতে চান না। গ্রাহকদের এই বিষয়টি মাথায় রেখেই ২০০৮ সালে প্রথম উদ্যোগ নেওয়া হয় এমএনপি চালুর। এর ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিও অনেকবার এটি চালুর সুপারিশ করে। পরবর্তীতে বিটিআরসি এ সংক্রান্ত একটি নীতিমালা করে। কিন্তু বিভিন্ন কারণে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থার এই উদ্যোগ আর আলোর মুখ দেখেনি।  

বাংলাদেশ ও স্লোভেনিয়ার ব্যবসায়ীদের কনসোর্টিয়াম ইনফোজিলিয়ান বিডি-টেলিটেক গত বছরের নভেম্বরে এমএনপি এর লাইসেন্স পায়। লাইসেন্সের শর্ত অনুযায়ী, ১৮০ দিনের মধ্যে এই সেবা চালু করতে হবে।

বিটিআরসি’র এক কর্মকর্তা নাম না প্রকাশের শর্তে বার্তা২৪.কমকে বলেন, টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আন্তরিক হলেও নানা জটিলতায় নির্দিষ্ট সময়ে সেবাটি চালু করা যায়নি।    

গ্রাহকরা ৩০ টাকা খরচ করে এই সেবা নিতে পারবেন। নম্বর ঠিক রেখে মোবাইল অপারেটর পরিবর্তনের এই আবেদনের ৭২ ঘন্টার মধ্যে বদলে যাবে তার অপারেটর। একবার অপারেটর পরিবর্তন করলে ৯০ দিন পর আবার অপারেটর পরিবর্তন করা যাবে।

এর আগে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে একবার এমএনপি চালু করতে নিলাম করা হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত এই বিষয়টি আর এগোয়নি।

সূত্র জানায়, এই নেটওয়ার্কে প্রথম যুক্ত হয় দেশের বৃহৎ মোবাইল অপারেটর গ্রামীনফোন। এরপর যুক্ত হয় দ্বিতীয় বৃহত্তম অপারেটর রবি আজিয়াটা লিমিটেড ও বাংলালিংক। রাষ্ট্রায়ত্ব কোম্পানি টেলিটক এখন পর্যন্ত এমএনপি নেটওয়ার্কে যুক্ত হয়নি।

পাশ্ববর্তী দেশে ভারত পাকিস্তানসহ বিশ্বের ৭২টি দেশে এই সেবা চালু রয়েছে। সিঙ্গাপুর এই সেবা চালুর অগ্রপথিক। 

টেক এর আরও খবর