ছাত্রকে বেত্রাঘাতের দায়ে প্রধান শিক্ষকের সাজা



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
শিক্ষকের বেত্রাঘাতে আহত ছাত্র/ ছবি: সংগৃহীত

শিক্ষকের বেত্রাঘাতে আহত ছাত্র/ ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

টাঙ্গাইলের কালিহাতী সদর উপজেলার এক মাদরাসা শিক্ষার্থীকে বেত্রাঘাত করে জখম করার অভিযোগে বায়জিদ হোসেন নামের এক শিক্ষককে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিত দেব নাথ।

দণ্ডপ্রাপ্ত উপজেলার জামিয়া ওসমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

বুধবার (৬ মার্চ) সন্ধ্যায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে প্রধান শিক্ষককে এ দণ্ডাদেশ দেন তিনি। দণ্ডপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বায়জিদ হোসেন নরসিংদি জেলার মনোহরদী উপজেলার চর-মান্দুলিয়া গ্রামের সাব্বির হোসেনের ছেলে। বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) ঐ শিক্ষককে জেল খানায় পাঠানো হয়েছে।

জানা যায়, ৬ মার্চ বুধবার সন্ধ্যায় কালিহাতী উপজেলা সদরের জামিয়া ওসমানিয়া আরাবিয়া (পোস্ট অফিস সংলগ্ন) মাদ্রাসার নাজেরা বিভাগে অধ্যায়নরত একই উপজেলার চামুরিয়া গ্রামের জোবায়ের হোসেন রাহাত (৯)কে দেখতে আসেন তার বাবা বাবুল হোসেন মিলন।

এ সময় ছেলেকে কান্না করতে দেখে কী হয়েছে জানতে চান তিনি। জিজ্ঞাসাবাদে ছেলের কান্নার ঘটনা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে বেত্রাঘাতের অসংখ্য জখমের চিহ্ন দেখতে পান।

পরে সন্তানের জখম দেখে ক্ষুব্ধ মিলন ঐ প্রধান শিক্ষকের বিচার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। 

এ অভিযোগের তদন্ত ও ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ঐ প্রধান শিক্ষককে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন।

কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিত দেব নাথ জানান, ছাত্র/ছাত্রীদের ওপর বেত্রাঘাত চালানোয় নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও ঐ ছাত্রকে অতিরিক্ত বেত্রাঘাত করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম করেন মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক বায়জিদ হোসেন।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে ও তদন্তে ছাত্র নির্যাতনের প্রমাণ পাওয়ায় দণ্ডবিধির ১৮৮ ধারায় অভিযুক্ত বায়জিদ হোসেনকে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মীর মোশারফ হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘ঐ শিক্ষককে বৃহস্পতিবার জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে হয়েছে।’