নাম পরিবর্তন করে ১৪ বছর আত্মগোপনে আসামি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বগুড়া বার্তা২৪.কম
আসামি শিবাহাড়ি। ছবি: বার্তা২৪.কম

আসামি শিবাহাড়ি। ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

নাম পরিবর্তন করে ১৪ বছর আত্মগোপনে থেকেও পার পেলেন না হত্যা মামলার আসামি শিবাহাড়ি (৫০)। এই ১৪ বছরে মামলার রায় ঘোষণা করা হয়। তার অনুপস্থিতিতেই আদালত শিবাহাড়িকে যাবজ্জীবন সাজা প্রদান করেন।

সোমবার (২৯ এপ্রিল) বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামানের নেতৃত্বে একটি দল তাকে নাটোর থেকে গ্রেফতার করে। শিবাহাড়ি নাম পরিবর্তন করে সেলিম নামে নাটোর টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটে চাকরি করছিলেন।

বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান বার্তা২৪.কমকে জানান, ২০০৫ সালের ২৪ এপ্রিল বগুড়া শহরের চকসূত্রাপুর সুইপার কলোনিতে খুন হন শ্রী রনি বাশফোড় (২০)। এই খুনের একমাত্র আসামি শিবাহাড়ি হত্যাকাণ্ডের পরপরই স্ত্রী সন্তান নিয়ে নিরুদ্দেশ হন। মামলাটি তদন্ত কালে পুলিশ অনেক চেষ্টা করেও তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি। পরে বগুড়া সদর থানা পুলিশ পলাতক দেখিয়ে শিবাহাড়ির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়। বিচার শেষে গত ২০১৭ সালের ১৩ জুন বগুড়ার অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত-১ এর বিচারক পলাতক শিবাহাড়িকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন।

ওসি বদিউজ্জামান বলেন, ‘গোপন সংবাদে জানতে পারি আসামি শিবাহাড়ি নিজের নাম ও ঠিকানা পরিবর্তন করে সেলিম নাম ধারণ করে নাটোর টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটে চাকরি করছে। এরপর সোমবার (২৯ এপ্রিল) নাটোরে অভিযান চালিয়ে শিবাহাড়িকে গ্রেফতার করে বগুড়ায় আনা হয়। গ্রেফতারের পর শিবাহাড়ি নাম পরিবর্তন করে আত্মগোপনে থাকার বিষয়টি পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে। পরে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।