টাঙ্গাইলে ব্যবসায়ী হত্যাকাণ্ডে তিন স্কুলছাত্র গ্রেফতার

ডি‌স্ট্রিক্ট করেসপ‌ন্ডেন্ট, টাঙ্গাইল, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

টাঙ্গাইলের মধুপুরে বাড়ি ফেরার পথে আব্দুল জলিল (৫৫) নামের এক ব্যবসায়ীকে গলা কেটে হত্যা ও টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায়  তিন স্কুলছাত্রকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্নস্থান থেকে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার তিনজন হলেন, উপজেলার সটিবাড়ি এলাকার বেল্লাল হোসেনের ছেলে রাকিব হাসান হিমেল (১৬) এবং অলিপুর গ্রামের মৃত মইন উদ্দিনের ছেলে সাদিকুল ইসলাম সাদিক (১৭)। তারা দুইজনেই রাণী ভবানী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র।

এছাড়াও এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আশুড়া উত্তর পাড়ার আব্দুল লতিফের ছেলে রাজু আহমেদকে (১৪) গ্রেফতার করা হয়। রাজু কালামাঝি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র।

বৃহস্পতিবার বিষয়টি নিশ্চিত করে মধুপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) কামরান হোসেন বলেন, এ হত্যাকাণ্ডের পর পুলিশ আসামিদের গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত রাখে। রহস্য উদঘাটনের জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে নিজ নিজ এলাকা থেকে ওই তিন ছাত্রকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের মূল উদ্দেশ্য ছিল ওই ব্যবসায়ীর কাছ থেকে টাকা ছিনতাই করা।

তিনি আরও বলেন, ব্যবসায়ী আব্দুল জলিল যেদিন খুন হন তার পরদিন ছিল হাট। তিনি হাটের আগের দিন রাতে টাকা কালেকশন করে নগদ টাকা নিয়ে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে ছিনতাই করতেই হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটে। আব্দুল জলিল প্রায়ই নগদ টাকা নিয়ে চলাচল করতেন। এ কারণে তিনি ছিনতাইয়ের শিকার হন।

তবে টাকা ছিনিয়ে নেয়ার সময় জলিল তাদেরকে চিনে ফেলেন। তখন শিক্ষার্থী রাকিব হাসান হিমেল ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে জবাই করে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়।

সহকারি পুলিশ সুপার আরও বলেন, শিক্ষার্থী রাজু জলিলের ওপর বেশ কিছুদিন ধরে নজর রাখা হচ্ছিল। এছাড়া সাদিক পুরো বিষয়টি কো-অডিনেশন এবং ছিনতাই করার পরিকল্পনা করে।

উল্লেখ্য, গত ১৫ এপ্রিল রাতে জলিল মধুপুর থেকে আনুমানিক পাঁচ লাখ টাকা নিয়ে অলিপুরে নিজ বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। টাঙ্গাইল-মধুপুর সড়ক থেকে অলিপুরের বাড়ির দিকের সড়ক তাকে গলা কেটে হত্যা করে টাকা ছিনতাই করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :