টিনের বদলে পাকা ঘর পেল ৫৫ পরিবার

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঝিনাইদহ
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার পাগলা কানাই ইউনিয়নের গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দা হলেন সাথী সরকার। অভাবের সংসার তার। কয়েক বছর আগে স্বামী মারা যায়। এরপর ২ সন্তান নিয়ে খাস জমিতে খুপরি ঘরে বসবাস করছিলেন তিনি। স্বপ্ন ছিল একদিন পাকা ঘর নির্মাণ করবেন। কিন্তু স্বামী মারা যাওয়ায় এবং অভাবের কারণে পাকা ঘর তো দূরের কথা ভালো একটি টিনের ঘরও নির্মাণ করতে পারেননি তিনি।

তবে তার স্বপ্ন এখন সত্যি হয়েছে। সদর উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে তাকে রঙিন পাকা ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। সরকারের গুচ্ছগ্রাম প্রকল্পের আওতায় টিনের বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়ার কথা থাকলেও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার প্রচেষ্টায় তাকে পাকা ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে সাথী সরকার বলেন, ‘আমি পাকা বাড়িতে থাকতে পারব তা কোনো দিন ভাবতে পারিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ। সেই সঙ্গে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাম্মী ইসলামকেও ধন্যবাদ।’

সাথী সরকারের মতো এমন পাকা বাড়ি পেয়ে খুশি ঝিনাইদহ সদর উপজেলার পাগলা কানাই, মধুহাটি, কুমড়াবাড়িয়া ও দোগাছী ইউনিয়নের ৫৫টি গৃহহীন পরিবার। মাত্র দেড় লাখ টাকায় একটি ইটের পাকা ঘর, বারান্দা ও একটি পাকা টয়লেট তৈরি করে দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাম্মী ইসলাম জানান, ৪টি ইউনিয়নের ৬টি গুচ্ছগ্রামে ৫৫টি পরিবারকে পাকা ঘর তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। প্রত্যেকটি ঘরের মেঝ পাকা-উপরে টিন এবং একটি পাকা টয়লেট তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ঘরে রঙ করে দেওয়া হয়েছে। একটি ঘর ও টয়লেট তৈরি করতে দেড় লাখ টাকা করে ব্যয় করা হয়েছে। ঘরগুলো পেয়ে গৃহহীন পরিবারগুলো অনেক খুশি হয়েছে।