Alexa

ভোটকে কেন্দ্র করে সাইবার ওয়ার্ল্ডে সক্রিয় জঙ্গি সংগঠনগুলো!

ভোটকে কেন্দ্র করে সাইবার ওয়ার্ল্ডে সক্রিয় জঙ্গি সংগঠনগুলো!

ছবি: বার্তা২৪

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ব্যস্ততা বেড়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি) ও রাজনৈতিক দলগুলোতে। পাশাপাশি দেশকে অস্থিতিশীল করতে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে জঙ্গি সংগঠনও। আর এ জন্য জঙ্গিরা বেছে নিচ্ছে ভার্চুয়াল বা সাইবার ওয়ার্ল্ডকে।

গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, দেশ ও দেশের বাইরের বিভিন্ন সংঘবদ্ধ জঙ্গি সগঠনগুলো সাইবার ওয়ার্ল্ডকে পুঁজি করে নির্বাচনী পরিবেশকে নষ্ট করতে সক্রিয় হয়ে উঠছে। পাকিস্তান, আফগানিস্তান, আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশেগুলোতে নির্বাচনের আগে জঙ্গিরা সাইবার ওয়ার্ল্ডকে যেভাবে কাজে লাগায় একইভাবে বাংলাদেশেও ওই জগতকে কাজে লাগাতে চাচ্ছে তারা। এরই অংশ হিসবে জঙ্গি সংগঠনগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন মিথ্যাচার ও প্রোপাগান্ডা চালানো শুরু করেছে। বিশেষ করে রাজনৈতিক দলগুলোকে নির্বাচনে না আসতে প্ররোচণা ও গণতান্ত্রিক চেতনাকে নষ্ট করার চেষ্টা করছে। যাতে জঙ্গিরা নির্বাচনের সময় জনগণকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করতে পারে।

গোয়েন্দা সূত্রে আরো জানা গেছে, বাংলাদেশে কাজ করে জঙ্গি সংগঠনগুলোর মধ্যে- জেএমবি, আনসারুল্লাহ বাংলা টিম ও হিযবুত তাহরীর বাংলাদেশ অন্যতম। ইতোমধ্যে সাইবার ওয়ার্ল্ডে এসব সংগঠনগুলো বেশ সক্রিয় হয়ে উঠেছে। ফেসবুকে বিভিন্ন দল বা সংগঠনের নামে পেজ খুলে নির্বাচন কেন্দ্রীক নানা অপপ্রচার ও সংবেদনশীল তথ্য ছড়াচ্ছে। সমাজের বিভিন্ন শ্রেণির মানুষকে টার্গেট করে এসব তথ্য ছড়ানো হচ্ছে।

ফেসবুক ও ইউটিউবে নির্বাচনকে সামনে রেখে সক্রিয় হিযবুত তাহরীর। নিষিদ্ধ এই সংগঠনটি ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সচেতন শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ’ নামক একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে লাগাতার আসন্ন নির্বাচনকে নিয়ে উসকানিমূলক ও জিহাদী প্রচারণা চালাচ্ছে। এই চ্যানেলের সর্বশেষ ২ মিনিট ২৭ সেকেন্ডের একটি ভিডিওতে আওয়ামী-বিএনপি-জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’কে কাফির সাম্রাজ্যবাদী বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এমনকি এসব রাজনৈতিক দল ও জোটকে দালাল শাসকগোষ্ঠী আখ্যায়িত করে তাদের প্রত্যাখ্যান এবং সংগঠনের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে খিলাফত প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানানো হয়।

এদিকে, নির্বাচনকে সামনে রেখে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জন্য হিযবুত তাহরীর সাইবার ওয়ার্ল্ডের বড় হুমকি বলে মনে করছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার সিকিরিউটি ও ক্রাইম বিভাগ। ইতোমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সংগঠনটির দুইটি পেইজ শনাক্ত করা হয়েছে। তবে এটি বৈশ্বিক জঙ্গি সংগঠন হলেও বাংলাদেশে তাদের অবস্থান অনেক নমনীয়। তবে তারা ইন্টেলেকচুয়াল ওয়েতে কাজ করছে। তাই নিজেদের অবস্থান জানাতে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে বেছে নিয়েছে।

তবে জঙ্গিদের এ ধরণের অপচেষ্টা রুখতে সাইবার সিকিউরিটি এবং ক্রাইম ইউনিট জঙ্গি সংগঠনসহ বিভিন্ন চক্রের ২০০ ফেসবুক আইডি চিহ্নিত করেছে। এ বিষয়ে বিভাগের প্রধান অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার মো. নাজমুল হক বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘নবম, দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্যে গুণগত পার্থক্য রয়েছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বাংলাদেশের ইতিহাসে মাইলফলক হয়ে থাকবে। কেননা এ নির্বাচনে সাইবার ওয়ার্ল্ডের সর্বোচ্চ ব্যবহার হতে যাচ্ছে। আর এই সাইবার ওয়ার্ল্ডকে কাজে লাগিয়ে জঙ্গি সংগঠনগুলো সক্রিয় হয়ে উঠতে পারে। তারা নানাভাবে জনমনে আতঙ্ক ও বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতে পারে।’

তিনি আরো বলেন, ‘সাইবার ওয়ার্ল্ডে জঙ্গি হুমকি ও মিথ্যাচার বন্ধ করতে আমাদের টিম প্রস্তুত রয়েছে। তবে জঙ্গিরা সাইবার ওয়ার্ল্ডে সক্রিয় থাকলেও তাদের ফিজিক্যাল ভূমিকা দেখানোর সুযোগ নেই। নির্বাচনের সময় সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ডিএমপির সাইবার সিকিরিউটি এবং ক্রাইম বিভাগের ১০০ জনের এক টিম কাজ করছে।’

আপনার মতামত লিখুন :