চাঁদপুর-৫ আসনে ধানের শীষ নিয়ে কাড়াকাড়ি

বাঁ থেকে ইঞ্জিনিয়ার মমিুনল হক, এম এ মতিন, নেয়ামুল বশির, ছবি: সংগৃহীত

চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) নির্বাচনী এলাকায় ক্রমেই ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থিতা নিয়ে কৌতূহল জমে উঠছে। বিএনপি থেকে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন দুইজন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের হয়ে এলডিপি থেকে পেয়েছেন একজন।

এরা তিনজন হলেন বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মমিুনল হক ও এম এ মতিন। আর আসনটিতে ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে এলডিপির ড. নেয়ামুল বশিরকেও ধানের শীষে লড়ার জন্য মনোনয়ন তালিকায় রেখেছে।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) কর্তৃক যাচাই বাছাইয়ের পর নির্বাচন করার গ্রিন সিগন্যাল পেয়েছিল বিএনপির দুই প্রার্থী। কিন্তু নেয়ামুল বশিরের মনোনয়ন অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছিল।

তবে নির্বাচন কমিশনে আপিল করলে বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) নির্বাচন কমিশন কর্তৃক এলডিপির প্রার্থী ড. নেয়ামুল বশিরের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করে।

এতে করে আসনটিতে ‘ধানের শীষ প্রতীক’ নিয়ে নির্বাচন করার জন্য তিনজন বৈধ প্রার্থী রয়েছে। এমনকি সব প্রার্থীই নির্বাচনের অংশ নেয়ার জন্য উৎসুক হয়ে আছে।

জানতে চাইলে ড. নেয়ামুল বশির বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন আমার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করেছেন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে এলডিপিকে নয়টি আসন দেয়া হয়। এরমধ্যে চাঁদপুর-৫ আসন থেকে আমি দলীয় মনোনয়ন পেয়েছি।’

তিন প্রার্থীর ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে টানাটানি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আশা করছি আগামী ৯ ডিসেম্বরের মধ্যে চূড়ান্তভাবে জানা যাবে কে হচ্ছেন ধানের শীষের কান্ডারি। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের যে কোন সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে কাজ করে যাব।’

এদিকে ড. নেয়ামুল বশির মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছিলেন ইঞ্জিনিয়ার মমিুনল হকের সমর্থকরা। গত দুইদিন ধরে ফেইসবুকে দলীয় মনোনয়ন চূড়ান্তভাবে ইঞ্জি. মমিনুল হককে দেয়া হয়েছে বলে প্রচারণা চালানো হয়। কিন্তু বৃহস্পতিবার নেয়ামুল বশিরের মনোনয়ন বৈধ হওয়ায় কিছুটি অস্বস্তিবোধ করছেন ইঞ্জিনিয়ার মমিুনল হকের সমর্থকরা।

এছাড়া সাবেক চারবারের সংসদ সদস্য এমএ মতিন। তিনি ২০০৮ সালে মনোনয়ন চায়নি। এবার চেয়েছেন। আগামী ৯ ডিসেম্বরের পূর্বে তিনি চূড়ান্ত প্রার্থিতা নিয়ে কোন কথা বলতে চান না। গত দশ বছর ধরে সাবেক জেলা বিএনপির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে দলীয় কর্মসূচী পালন করেন সাবেক এই সাংসদ ও তার অনুসারীরা।

সাবেক জেলা বিএনপির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হকের বলয়ে রয়েছে হাজীগঞ্জ ও শাহরাস্তি উপজেলা এবং পৌর বিএনপির কমিটি। হাজীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোজাম্মেল হোসেন মোহন বলেন, ‘দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হক। ধানের শীষ প্রতীককে এই আসনে বিজয় করতে ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হকের বিকল্প নাই।’

নির্বাচন এর আরও খবর

//election count down