ইভিএম কিনতে আরও ৪০০ কোটি টাকা ছাড়



আসিফ শওকত কল্লোল, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ইভিএম কিনতে আরও ৪০০ কোটি টাকা ছাড়। ছবি: সংগৃহীত

ইভিএম কিনতে আরও ৪০০ কোটি টাকা ছাড়। ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) কিনতে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অনুকূলে আরও ৪০০ কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ ছাড় করেছে পরিকল্পনা কমিশন। পরিকল্পনা কমিশন এডিপির ‘বিশেষ প্রয়োজনে উন্নয়ন সহায়তা’ খাত থেকে এ অর্থ ছাড় করেছে। এর আগে ৬ আসনে ইভিএম ব্যবহারের জন্য ১১০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। যার মধ্যে ১০৫ কোটি টাকা যন্ত্রপাতি কিনতে ব্যয় হবে।

রোববার (২৩ ডিসেম্বর) পরিকল্পনা কমিশনের কার্যক্রম বিভাগের সিনিয়ার সহকারী প্রধান মো. মোস্তাফিজুর রহমান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বিষয়টি অর্থ বিভাগকে জানানো হয়। অর্থমন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, গত ৫ ডিসেম্বর পরিকল্পনা কমিশনে চিঠি দিয়ে এই খাতে আরও ৪০০ কোটি টাকা বরাদ্দ চায় ইসি। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের বাস্তবায়নাধীন ইভিএম প্রকল্পটি গত ১৮ সেপ্টেম্বর একনেকে অনুমোদিত হয়। প্রকল্পটির প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ হাজার ৮২৫ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। প্রকল্পটি সম্পূর্ণ জিওবি অর্থায়নে বাস্তবায়িত হবে। প্রকল্পটির অনুমোদিত বাস্তবায়ন মেয়াদ চলতি বছরের জুলাই থেকে আগামী ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত।

চিঠিতে আরও উল্লেখ করা হয়, এই অর্থবছরে বরাদ্দের পরিমাণ এক হাজার ৯৯৮ কোটি ৯ লাখ ৩০ হাজার টাকা। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন বিভিন্ন পর্যায়ের নির্বাচন এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ৬টি আসনের সব কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহারের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। তাই চলতি বছরের বরাদ্দ থেকে আরও ৩৯০ কোটি টাকা মূলধন খাতে এবং রাজস্ব খাতে ১০ কোটিসহ মোট ৪০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া প্রয়োজন।

এমতাবস্থায় নির্বাচন ব্যবস্থায় তথ্যপ্রযুক্তি প্রয়োগের লক্ষ্যে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ইভিএম ক্রয় এবং আনুষঙ্গিক ব্যয় নির্বাহের জন্য প্রকল্পের অনুকূলে আরও ৪০০ কোটি বরাদ্দ প্রদানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ইসির নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।