ভোটের মাঠে সতর্ক অবস্থানে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী

শাহরিয়ার হাসান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ রোববার (৩০ ডিসেম্বর)। সুশৃঙ্খল, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণে সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থায় রয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। নির্বাচনকে সহিংসতামুক্ত রাখতে রাজধানীসহ সারাদেশে গ্রহণ করা হয়েছে ব্যাপক নিরাপত্তাব্যবস্থা। সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি’র সমন্বয়ে তৈরি করা হয়েছে নিরাপত্তাবলয়।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্দেশনা মেনে নিরাপত্তা পরিকল্পনা সাজিয়েছে পুলিশসহ অন্যান্য বাহিনী। সে নির্দেশনা অনুযায়ী ইতোমধ্যে ভোটকেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পর্যায়ের সর্বশেষ বৈঠকে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি মোকাবিলায় কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে সে পরিকল্পনা করা হয়েছে। আর গত ২ দিন ধরেই রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে সেনা সদস্যরা টহল ও তল্লাশী দিচ্ছেন। এছাড়া বিজিবি ও র‌্যাবকে যৌথ নিরাপত্তা তল্লাশি চৌকি পরিচালনা করতে দেখা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সারাদেশে দেড় লাখ পুলিশ সদস্য ও ১০ হাজার র‌্যাব সদস্য নির্বাচনের দিন দায়িত্ব পালন করবে। এর মধ্যে ৮০ হাজার ১৬৬ পুলিশ সদস্য ভোটকেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করবে। এছাড়া এক হাজার ১২৭ প্লাটুন বিজিবি সদস্য স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে নির্বাচনের দিন মাঠে থাকবে। প্রায় ৪ লাখ ৭০ হাজার আনসার-ভিডিপি ভোটকেন্দ্রে পুলিশের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করবে। তাদের সঙ্গে আরও থাকছে গ্রাম পুলিশ ও দফাদার। উপকূলীয় অঞ্চলে নিরাপত্তা নিশ্চিতে সজাগ থাকবে কোস্টগার্ডের ১৮ উপজেলায় এক হাজার ২৬০ জন (৪৮ প্লাটুন) সদস্য।

র‌্যাব সূত্রে জানা গেছে, দেশজুড়ে র‌্যাবের ১৯টি অস্থায়ী ক্যাম্প যোগ হবে পূর্বের স্থায়ী ৫৭টি ক্যাম্পের সঙ্গে। প্রতিটি ব্যাটালিয়নে ৪টি টহল স্ট্রাইকিং রিজার্ভ হিসেবে থাকবে। তাছাড়া র‌্যাব সদর দফতরের ২০টি টহল, সেন্ট্রাল রিজার্ভ হিসেবে প্রস্তুত থাকবে।

এদিকে এবার নির্বাচনে ২৫ হাজার সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। যা প্রতি জেলায় এক ব্যাটালিয়ন (৭৪০ সদস্য) আর প্রতি উপজেলায় ১ প্লাটুন (৩৫ সদস্য) সদস্য নির্বাচনী মাঠে কাজ করবে।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দফতরের সহকারি মহাপরিদর্শক সোহেল রানা বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দিতে পুলিশ বদ্ধপরিকর। তবে নির্বাচনের দিন সহিংসতার আশঙ্কাও আমরা উড়িয়ে দিচ্ছি না। সেটি মাথায় রেখেই নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সব মিলিয়ে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত পুলিশ।’

এদিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা প্রস্তুতির অংশ হিসেবে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলো (কেপিআইভুক্ত) ঘিরে বিশেষ নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, গণভবন, সচিবালয়, নির্বাচন কমিশনার, জেলা প্রশাসন কার্যালয়, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দফতরসহ অন্যান্য সব ধরনের রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাকে ঘিরে বিশেষ নজর রাখা হচ্ছে।

প্রস্তুতি সম্পর্কে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘ইসির নির্দেশনা মেনে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে র‌্যাব। সে অনুযায়ী মাঠে কাজ করা হচ্ছে।’

আপনার মতামত লিখুন :